রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর প্রসঙ্গে - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১ ১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১১-১৭ ২০:০৭:২৩

রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর প্রসঙ্গে

রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর প্রসঙ্গে
Spread the love

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা (এনজিও) ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার নানা রকম চাপের কারণে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর প্রক্রিয়া ব্যাহত হচ্ছে। কক্সবাজারের বিভিন্ন পাহাড়ে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা নাগরিকরা নানা রকম অপরাধে জড়াচ্ছে। মাদক কারবার, চাঁদাবাজি, ধর্ষণ- এমনকি প্রায়ই হত্যাকা- ঘটছে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে। এ কারণে সরকার রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরের চেষ্টা করছে। সংবাদের গতকাল সোমবারের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, অনেক রোহিঙ্গা ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করে বিভিন্ন জেলায় ছড়িয়ে পড়ছে। কিন্তু দেশি ও বিদেশি বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার ক্ষুণ্ন হওয়ার ভয় দেখিয়ে এদের ভাসানচরে যেতে নিরুৎসাহিত করছে।

ভাসানচরে সব ব্যবস্থা নিশ্চিত করার পরও রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের ক্ষেত্রে বাধা এসেছে একাধিক সুবিধাভোগী পক্ষের কাছ থেকে। কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্প ঘিরেই এই সুবিধাভোগী গ্রুপ তৈরি হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। একদল সুবিধাভোগী আছে, যারা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মাধ্যমে মাদক ব্যবসা, অস্ত্র চোরাচালান, নারী পাচারের মতো কর্মকান্ড করছে। ক্যাম্পের ভেতরে দীর্ঘদিন ধরেই এ ব্যবসা চলছে বলে নানাভাবে তথ্য এসেছে। এখন পরিস্থিতি অনেক বেশি খারাপ পর্যায়ে চলে গেছে, তার প্রমাণ ক্যাম্পের ভেতরে ধারাবাহিক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ। বিভিন্ন সংস্থা ও এনজিও, যারা রোহিঙ্গাদের মানবিক সেবা দেয়ার জন্য কাজ করছেন। অভিযোগ অনুযায়ী, তাদের অনেকেই কাজ করছেন নিজেদের জন্য, নিজেদের সুবিধার জন্য।

কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সাম্প্রতিক সময়ে রোহিঙ্গাদের মধ্যে প্রাণঘাতী সংঘাত বাংলাদেশের নিরাপত্তার জন্য বড় ধরনের হুমকি সৃষ্টি করেছে। এ বিষয়টিকে এখনই যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে না দেখলে এটি বিস্তৃত হয়ে এ অঞ্চলের জন্যই বড় ধরনের অস্থিতিশীলতার জন্ম দিতে পারে। এ অবস্থায় রোহিঙ্গাদের একটা অংশকে ভাসানচরে স্থানান্তর করে দেখা যেতে পারে।

ভাসানচরে অত্যন্ত আধুনিক ও নিরাপদ বসবাসের উপযোগী পরিবেশের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যেখানে প্রায় এক লাখ রোহিঙ্গাকে স্থানান্তর সম্ভব। সেখানে রোহিঙ্গাদের জন্য আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসহ বসবাস, উন্নত পয়ঃনিষ্কাশন, সন্তানদের লেখাপড়ার ব্যবস্থা এবং জীবিকারও সুযোগ রয়েছে। কক্সবাজারে ক্যাম্পে বরং রোহিঙ্গারা গাদাগাদি করে কষ্টকর জীবনযাপন করছে। রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর করা গেলে তাদের জীবনমানে ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে বলে মনে করছে সরকার।

ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের একটা অংশকে নিলেই সংকটের সমাধান হবে না। সংকটের প্রকৃত সমাধান রোহিঙ্গাদের নিজেদের দেশে ফেরত নেয়া। এ কারণে প্রত্যাবাসনের জন্যই আরও বেশি প্রচেষ্টা চালাতে হবে। এ লক্ষ্য অর্জনে কার্যকর কূটনৈতিক তৎপরতা চালাতে হবে। সূত্র দৈনিক সংবাদ

আরো সংবাদ