রোহিঙ্গা ঢলের ৪ বছর পূর্ণ : ক্যাম্পে মানববন্ধন ও দোয়া মাহফিল - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৮-২৫ ১৩:১৩:২৪

রোহিঙ্গা ঢলের ৪ বছর পূর্ণ : ক্যাম্পে মানববন্ধন ও দোয়া মাহফিল

রোহিঙ্গা ঢলের ৪ বছর পূর্ণ : ক্যাম্পে মানববন্ধন ও দোয়া মাহফিল
Spread the love

বিশেষ প্রতিবেদক : মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যে নির্যাতনের মুখে পড়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া আটকে থাকা আর ভাসানচরে স্থানান্তর নিয়ে পার হচ্ছে আরেকটি বছর। এ নিয়ে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্পে বিচ্ছিন্নভাবে মানববন্ধন ও মসজিদে দোয়া মাহফিল করেছে রোহিঙ্গারা। বুধবার (২৫ আগস্ট) মায়ানমার থেকে নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসার ৪ বছর পূর্তি উপলক্ষে রোহিঙ্গা এ কর্মসূচী পালন করেন। অবশ্য, রোহিঙ্গারা যাতে দল বেধে এসব কর্মসূচী পালন করতে না পারে সে ব্যাপারে সরকারের নিধেধাজ্ঞা ছিল। এ কারণে ক্যাম্পে নিয়োজিত আইনশৃংখলা বাহিনী নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করে।

ক্যাম্পের একাধিক সূত্র নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, রোহিঙ্গা সংকটের চার বছর পূর্তির দিন ফজরের নামাজের পর মসজিদে মসজিদে দোয়া মাহফিল হয়েছে। কিছু কিছু এলাকায় বিভিন্ন লেখা সম্বলিত প্লে কার্ড নিয়ে রোহিঙ্গা শিশু ও নারীরা বিচ্ছিন্নভাবে ছোট ছোট মানববন্ধন করেছে। তবে পুরো রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এপিবিএন সদস্য পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে। ফলে বুধবার সকাল থেকে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলায় ৩৪ টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এপিবিএন এর সদস্য ছাড়াও জেলা পুলিশের সদস্য র‌্যাব এবং গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা তৎপর রয়েছে।

এদিকে, বুধবার সকালে কক্সবাজার রোহিঙ্গা প্রতিরোধ কমিটির ব্যানারে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে অবিলম্বে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের দাবীতে মানববন্ধন করেছে। মানববন্ধন কর্মসূচীতে বক্তারা জানান, বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বসবাসের কারণে কক্সবাজারে স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সাথে নানা সংঘাত দেখা দিয়েছে। মাদক কারবার, হত্যা, অপহরণসহ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে রোহিঙ্গারা। কক্সবাজারে বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা রোহিঙ্গাদের শনাক্ত করে তাদেরকে এক জায়গায় নিয়ে আসা দরকার। তারা অবৈধভাবে পাসপোর্ট ও এনআইডি করেছে এসবগুলো বাতিল করতে হবে। রোহিঙ্গাদের মদতদাতাদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সমাবেশে দাবি জানান বক্তারা।

কক্সবাজারে শরনার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ রেজওয়ান হায়াত জানিয়েছেন কোভিড-১৯ পরিস্থিতিসহ নিরাপত্তা জনিত কারণে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সভা সমাবেশের কোনো সুযোগ নেই। বর্তমানে ৩৪ টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পেই শান্ত রয়েছে।

উল্লেখ্য, বুধবার ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গা সংকটের চার বছর পূর্তি হয়েছে। ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট থেকে মায়ানমার সেনাবাহিনীর গনহত্যার মুখে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে কক্সবাজারে সাড়ে ৭ লাখের অধিক রোহিঙ্গা কক্সবাজারে আশ্রয় নেয়। এর ঠিক দুই বছরের মাথায় ২০১৯ সালের ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কয়েক লাখ রোহিঙ্গার সমাবেশের ঘটনায় দেশ বিদেশে ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি হয়। এর পর সরকার ক্যাম্পে যে কোনো ধরনের সভা সমাবেশের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

মায়ানমারে জাতিগত নিধনের শিকার হয়ে বর্তমানে প্রায় ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা এখন বাংলাদেশে। কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের ৩৪টি ক্যাম্পে তাদের বসবাস। এর বাহিরে কক্সবাজারের বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অসংখ্য রোহিঙ্গা। কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গা ভাসানচরে পাঠানো হলেও অনেকেই পালিয়ে এসেছে। তবে রোহিঙ্গা ঢলের এ ৪ বছরে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে কক্সবাজারের স্থানীয় লোকজন ও সামাজিক পরিবেশের উপর। প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বিলম্বিত হওয়ায় রোহিঙ্গাদের ভার এখন বাংলাদেশের উপর পড়েছে।

 

আরো সংবাদ