রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন অনিশ্চিত, স্বদেশ ফিরতে আকুতি - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-০৮-২৬ ০০:১৩:৪৭

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন অনিশ্চিত, স্বদেশ ফিরতে আকুতি

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন অনিশ্চিত, স্বদেশ ফিরতে আকুতি

জসিম সিদ্দিকী : রোহিঙ্গা সংকট অর্ধযুগ পেরিয়েছে কিন্তু এখনও স্বদেশে ফেরানো যায়নি। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সংকট আরও ঘনীভূত হয়েছে। একদিকে হুমকি বাড়ছে নিরাপত্তার, অন্যদিকে কমছে অর্থ সাহায্য। এমন কী কমছে মায়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপও। এ অবস্থায় সরকারও বলছে, সহজ হবে না প্রত্যাবাসন। আর বিশ্লেষকরা বলছেন, কূটনীতিকভাবে সংকট নিরসনে বাংলাদেশকে আগ্রাসী হতে হবে।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট মায়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর সেনাবাহিনীর নির্যাতনের জেরে লাখ লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে আসতে শুরু করে বাংলাদেশে। সাড়ে ৭ লাখ রোহিঙ্গাকে বিনা প্রস্তুতিতে ঠাঁই দেয় বাংলাদেশ। সেই ঘটনার ছয় বছর অতিবাহিত হলো।

জাতিসংঘের তথ্যমতে, বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থীর সংখ্যা বর্তমানে ১১ লাখের মতো। তবে বেসরকারি সূত্রের মতে এ সংখ্যা ১৫ লাখের কাছাকাছি।

গত ছয় বছরে রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরাতে দ্বিপক্ষীয়, ত্রিপক্ষীয় এবং বহুপক্ষীয় সব ধরনের চেষ্টাতেই বিফল বাংলাদেশ। সাম্প্রতিক সময়ে আন্তর্জাতিক মহল থেকে প্রস্তাব আসছে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশেই স্থায়ী করতে। এদিকে, অর্ধযুগ পেরোনোর পর সরকারও অনুভব করছে সহজ হবে না রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন।

বিশ্লেষকরা মনে করছেন, দেশের কূটনৈতিক পদক্ষেপে ঘাটতি ছিল বেশকিছু। বিশেষ করে ভারত ও জাপানের সহযোগিতা আকর্ষণে ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশ। সঙ্গে নতুন সংকট হিসেবে ধরা দিয়েছে রোহিঙ্গাদের ভরণ-পোষণে অর্থ জোগাড় করা। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে কমছে তহবিল। সর্বশেষ ২০২২ সালে প্রত্যাশার মাত্র ৬২ শতাংশ পূরণ করেছে দাতা দেশগুলো।

মানবিক জায়গা থেকে রোহিঙ্গাদের দেয়া আশ্রয় এখন নিরাপত্তার হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে দেশের জন্য। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মতে, গত কয়েক বছরে বেড়ে গেছে মাদক চোরাচালান; হতাহতের সংখ্যা বাড়ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদেরও।

যদিও কিছু রোহিঙ্গা জনগণকে পাইলট প্রকল্প হিসেবে বাংলাদেশ ফেরাতে চাইলেও পশ্চিমা দেশগুলোর মনোভাবে রয়েছে অসন্তোষ। ফলে আশাব্যঞ্জক কোন ফলাফলের দেখা মিলছে না এখনও।

সূত্র জানিয়েছে, মায়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যা, নির্যাতন ও দেশ থেকে বিতারণের ছয় বছর পূর্ণ হয়েছে ২৫ আগস্ট। প্রতিবছর এই দিনটিকে গণহত্যা দিবস হিসেবে পালন করে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে অবস্থান করা রোহিঙ্গারা। বৃষ্টি উপেক্ষা করে গণহত্যা দিবস পালন করেছে রোহিঙ্গারা। সকাল ১০টার দিকে উখিয়া কুতুপালং লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের খোলা মাঠে সমাবেশ করা হয়।  এতে হাজার হাজার রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশু উপস্থিত ছিলেন। প্রতিবছরের মতো এবারও সমাবেশ করে গণহত্যার বিচার ও স্বদেশে ফেরার আকুতি জানিয়েছে রোহিঙ্গারা। সমাবেশ থেকে তারা নিজ দেশে ফেরার প্রতিবাদ জানিয়েছে। সমাবেশে রোহিঙ্গা নেতারা  অভিযোগ করেন, প্রত্যাবাসন থমকে গেছে। কারণ মায়ানমার তাদের ফেরত নিতে চায় না। মায়ানমারের ওপর চাপ প্রয়োগ করতে হবে জোরালোভাবে।

এদিকে, ৬ বছরে পুলিশের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ৩ হাজার ২০টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ২৫ আগস্ট ২০১৭ সাল। দেশের দক্ষিণ সীমান্ত উখিয়া টেকনাফে আশ্রয় নেয় ৭ লাখের অধিক, বলপ্রয়োগে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী। আশ্রিত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বসবাস ৬ বছরে পা দিয়েছে। আর এই ৬ বছরে সব মিলিয়ে রোহিঙ্গার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ১২ লাখ। এই ৬ বছরের আদ্যোপান্ত খতিয়ে দেখা গেছে, কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন আলোচিত হত্যাকান্ড, অপহরণ, ধর্ষণ, মাদকসহ নানা অপরাধ কর্মকান্ডে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে তারা জড়িত রয়েছে।

কক্সবাজার জেলা পুলিশের পরিসংখ্যান মতে, গেল ৬ বছরে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ২৩৮টি অস্ত্র মামলা, ৯৪টি ধর্ষণ ও ধর্ষণ চেষ্টার মামলা, ৪৪টি অপহরণ মামলা, ২৪৩টি হত্যা মামলা, ৩৭টি মানব পাচার মামলা, ৬২টি ডাকাতির মামলা, ৪২টি ফরেনার্স এক্ট মামলা, ৬৫টি বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা এবং সর্বোচ্চ ২০৫৭টি মাদক মামলা রেকর্ড হয়েছে।

এছাড়া গত ৬ বছরে রোহিঙ্গাদের দ্বারা পুলিশ আক্রান্ত হয়েছে এমন ৭ মামলায় ৭৭ জন রোহিঙ্গাকে আসামি করা হয়েছে। যেখানে সর্বমোট ৩০২০টি মামলায় এই পর্যন্ত ৬৮৩৭ রোহিঙ্গাকে আসামি করা হয়।

এছাড়া শহরের বিভিন্ন ঘটনায় রোহিঙ্গা সংশ্লিষ্টতা পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম।

এই ব্যাপারে কক্সবাজারের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ফরিদুল আলম বলেন, বাংলাদেশের বিদ্যমান আইনে এমন কোন অপরাধ নেই, যা রোহিঙ্গারা করে না।

 

 

রীতিমতো স্থানীয়দের টার্গেট কিলার হিসেবে রোহিঙ্গাদের ব্যবহার করা হচ্ছে বলে জানান জেলার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ। প্রত্যাবাসন যতই বিলম্বিত হচ্ছে ততই বাড়ছে আঞ্চলিক নিরাপত্তার ঝুঁকি এমনই বলছেন বিশ্লেষকেরা।

অন্যদিকে, মায়ানমারের উত্তর মংডুর সাড়ে তিন লাখ রোহিঙ্গাকে নিজ গ্রামে ফেরত নিতে আগ্রহ মায়ানমার। ২৫ আগস্ট পূর্ণ হলো ৬ বছর। ২০১৭ সালের এই দিন থেকে শুরু হয়েছিল বিশ্ব স্বীকৃত রোহিঙ্গা মানবিক বিপর্যয়। পর্যায়ক্রমে ২০১৮ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত নতুন করে সাড়ে ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা মানবিক আশ্রয় পায় বাংলাদেশে।

অর্ধযুগপূর্ণ হলেও প্রত্যাবাসন পূর্ণতা পায়নি, যেটুকু আলোর মুখ দেখেছে সেটিও চলতি বছরে। বাংলাদেশের অব্যাহত কূটনৈতিক তৎপরতায় এ বছর গো এন্ড সি ভিজিটে নিজ দেশে একদিনের জন্য যাওয়ার সুযোগ পেয়েছে রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদল। এছাড়া বাংলাদেশে এক সপ্তাহ কাটিয়েছে মায়ানমার সরকারের একটি প্রতিনিধিদল।

তবে বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গারা ষষ্ঠ বারের মতো গণহত্যা দিবস পালনের আগের দিন ২৪ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যায় প্রত্যাবাসন ইস্যুতে গণমাধ্যমে কথা বলেছেন শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মিজানুর রহমান।

প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া চলমান আছে জানিয়ে নিজ কার্যালয়ে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, প্লেস অব অরিজিন অর্থাৎ রোহিঙ্গাদের নিজ ভূমিতে ফেরত নিতে নমনীয়তা প্রকাশ করেছে মায়ানমার।

তিনি বলেন, অন্তত উত্তর মংডু থেকে আসা রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে চায় মায়ানমার কিন্তু প্রক্রিয়াটি কীভাবে হবে সেটি এখনও নির্দিষ্ট হয়নি। এ বিষয়ে দু’দেশের মধ্যে দফায় দফায় সভা হচ্ছে। এ সময় তিনি শীঘ্রই প্রত্যাবাসন শুরু করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তবে তার বক্তব্যে কত সংখ্যক রোহিঙ্গাকে ফেরত নেয়া হবে সে বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা না পাওয়া গেলেও উত্তর মংডু থেকে বাংলাদেশে আসা নতুন রোহিঙ্গাদের সংখ্যা প্রায় সাড়ে তিন লাখ বলে জানা গেছে।

উত্তর মংডুর ফকিরা বাজারে ৫ একরের বেশি জায়গা আছে উখিয়ার ১১ নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা মোহাম্মদ আইয়ুবের। ৭৮ বছর বয়সী এই রোহিঙ্গা পরিবার নিয়ে নিজ ভিটে মাটিতে ফিরে গিয়ে কাটাতে চান জীবনের শেষ দিন গুলো।

আইয়ুব বলেন, ফকিরা বাজার ছিল সবুজে ভরা কৃষি নির্ভর সমৃদ্ধ গ্রাম। আমাদের গোলাভর্তি ধান ছিল, গোয়ালভর্তি গরু। আগের দিনগুলো আর ফেরত পাবো না তবে মৃত্যু আগে সেখানে আবার ফিরতে চাই, নিজ মাটিতে মরতে চাই।

রোহিঙ্গা নেতা মোহাম্মদ জুবায়ের বলেন, মায়ানমার এরকম আশা অনেকবার দেখিয়েছে এবার যদি সত্যিই তারা এরকম পদক্ষেপ নিতে চায় তাহলে রোহিঙ্গারা যেতে প্রস্তুত আছে। তবে অবশ্যই পূর্ণ নাগরিক অধিকার এবং নিরাপদ জীবনের নিশ্চয়তা দিতে হবে।

জাতিসংঘ শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা (ইউএনএইচসিআর) এর তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর থেকে ৭ লাখ ৪১ হাজার ৮৪১ জন রোহিঙ্গা নাগরিক বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়।

সর্বশেষ পরিসংখ্যান বলছে, বর্তমানে বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গা জনসংখ্যা ৯ লাখ ৬২ হাজার ৪১৬ জন। কক্সবাজারের ৩৩টি ক্যাম্পে ৯ লাখ ৩১ হাজার ৯৬০ জন রোহিঙ্গা অবস্থান করছেন। ভাসানচরে অবস্থান করছেন আরও ৩০ হাজার ৪৫৬ জন।

উল্লেখ্য, এ রোহিঙ্গাদের দ্রুত স্বদেশে ফেরানো না গেলে দেশের অর্থনীতি ও আঞ্চলিক নিরাপত্তার জন্য বড় হুমকি হয়ে দাঁড়াবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

আরো সংবাদ