শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ১৯ মে ২০২১ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৩-১৩ ০৬:৫১:০৫

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলবে ঈদের পর-শিক্ষামন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক : দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আবার বাড়তে থাকায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আরও বাড়তে পারে। এ ব্যাপারে ইঙ্গিত দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আবারও বাড়ছে। সংক্রমণআরও বাড়তে থাকলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার তারিখ পেছাতে পারে। কারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে সবার আগে।

গত কিছুদিনে করোনা সংক্রমণ কমে আসতে থাকায় প্রায় এক বছর ধরে বন্ধ থাকা দেশের স্কুল-কলেজসহ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আগামী ৩০ মার্চ থেকে খুলে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছিল সরকার। তবে গত কয়েকদিন এই ভাইরাসের সংক্রমণ ফের বাড়তে শুরু করেছে। এদিকে, সংক্রমণের এ ঊর্ধ্বগতি বিবেচনায় নিয়ে এখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পক্ষে নন বিশেষজ্ঞরা। তাছাড়া খুললেও যথাযথ ব্যবস্থা নিয়ে সীমিত আকারে খোলার পরামর্শ দিয়েছেন তারা। তবে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ানোর সম্ভাবনা রয়েছে।

করোনাভাইরাসে সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার বিষয়টি নিয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে উদ্বেগও প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ অবস্থায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত পর্যালোচনা করতে আজ ফের বৈঠকে বসছেন বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। তথ্য মন্ত্রণালয়ে এ বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। বৈঠকে শিক্ষা, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা, স্বাস্থ্য, স্বরাষ্ট্র, তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, ইউজিসি কর্মকর্তারা অংশ নেবেন।

গতকাল বিকেলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে মুজিববর্ষের অনুষ্ঠান আয়োজনের কেন্দ্রীয় কমিটির এক সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি গণমাধ্যমকর্মীদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা সম্পর্কিত এক প্রশ্নর জবাবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার তারিখ পেছাতে পারে বলে জানান।

ডা. দীপু মনি আরও বলেন, করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে জাতীয় ও কারিগরি পরামর্শক কমিটির সঙ্গে আলোচনা করে ও পরিস্থিতি বুঝে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব। তবে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষাই অগ্রাধিকার পাবে।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হলে ১৭ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত দেশের সব পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। এরপর করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় দফায় দফায় সেই ছুটি বাড়তে থাকে। সবশেষ গত ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (কওমি ছাড়া) বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। এরমধ্যে করোনা সংক্রমণের হার কমে আসতে থাকলে এবং গত ৭ ফেব্রুয়ারি দেশব্যাপী করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হলে স্কুল-কলেজ খোলা নিয়ে আলোচনা শুরু হয়। ডিসেম্বরের মধ্যে পরিস্থিতির যথেষ্ট উন্নতি না হওয়ায় এইচএসসির পাশাপাশি পঞ্চম ও অষ্টমের সমাপনী এবং কোন ক্লাসের বার্ষিক পরীক্ষাও নেয়া যায়নি।

পরে ২৭ ফেব্রুয়ারি এ বিষয়ে এক আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, ৩০ মার্চ দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হবে। এ বছরের শুরুর দিকে সংক্রমণের হার কমে এলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি শুরু হয়। কিন্তু মার্চের শুরু থেকে দেশে সংক্রমণের হার আবার বাড়তে শুরু করে।

দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা যেখানে তিনশ’র নিচে নেমে গিয়েছিল, গত তিন দিন ধরে আবার তা হাজারের বেশি থাকছে। সর্বশেষ গত ১০ জানুয়ারি করোনা শনাক্ত ছিল এক হাজার ৭১ জন। ১০ মার্চ ছিল এক হাজার ১৮ জন। আর গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৬৬ জনে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১ হাজার ৬৬ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। এ পর্যন্ত শনাক্ত কোভিড-১৯ রোগীর মোট সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৫ লাখ ৫৫ হাজার ২২২ জন। আর আক্রান্তদের মধ্যে গত একদিনে আরও ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। সব মিলিয়ে মৃতের মোট সংখ্যা পৌঁছেছে ৮ হাজার ৫১৫ জনে।

জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেন, ২৭ ফেব্রুয়ারি আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে সিদ্ধান্ত ছিল, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার আগে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক হবে। সেজন্য শনিবার বিকালে তথ্য মন্ত্রণালয়ে একটি বৈঠক ডাকা হয়ছে। তবে এখন পর্যন্ত যেটুকু দেখছি তাতে মনে হচ্ছে, আরও দুই সপ্তাহ পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে হতে পারে। তখন সংক্রমণ পরিস্থিতি বোঝা যাবে। তবে সংক্রমণ যদি এভাবে বাড়তে থাকে, তাহলে তো আশঙ্কার কথা।

এ ব্যাপারে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিপ্তরের একজন পরিচালক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, গত দুই সপ্তাহ ধরে করোনা পরিস্থিতি অবনতি হওয়ায় সরকারের বিভিন্ন দপ্তর থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পরিস্থিতি সর্ম্পকে জানতে চাওয়া হয়েছে। আমরা জানিয়েছি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ। শিক্ষকদের টিকা দেয়ার কার্যক্রমও চলছে দ্রুত গতিতে। তবে স্কুল-কলেজ খুললে পরিস্থিতি অবনতি হওয়ায় কথা বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানরা আমাদের জানিয়েছেন। এ উদ্বেগের বিষয়টি শনিবারের সভায় তোলা হবে।

এদিকে, গতকাল শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এমএ খায়ের বলেন, ‘শিক্ষামন্ত্রী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে কথা বলেছেন। সেখানে তিনি ‘শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আরও বাড়বে’ এই মন্তব্য করেননি। এ সময় অনেক মিডিয়াকর্মী সেখানে উপস্থিত ছিলেন। ফুটেজ দেখে, ভালোভাবে শুনে নিউজ করার জন্য অনুরোধ করা হলো।’ এম এ খায়ের বলেন, ‘সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, পরিস্থিতি বিবেচনায় সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

এদিকে, ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘এখন পর্যন্ত মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো ৩০ মার্চ খোলার কথা, আর বিশ্ববিদ্যালয় খোলার কথা ২৪ মে এবং হলগুলো খোলার কথা রয়েছে ১৭ মে থেকে। গত এক বছরে যে পর্যবেক্ষণ করেছি, আমাদের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মচারী ও অভিভাবকসহ সকলের স্বাস্থ্য ঝুঁকি, সার্বিক নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়েই আমরা সিদ্ধান্ত নেব। কাজেই আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, মার্চ মাসেই সংক্রমণ হয়েছিল। এরপর বেড়েছিল। এখন একটু মনে হয় ঊর্ধ্বগতি, টিকা এসে যাওয়াতে আমাদের সবার মধ্যে কিছু শৈথিল্যের ভাব দেখা দিয়েছিল। আশা করি, এই যে বাড়ছে তাতে সবাই সচেতন হবেন। সবাই ভালোভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানবেন, তাহলে বাড়বে না। যদি এই ঊর্ধ্বগতিটা অব্যাহত থাকে, তাহলে অবশ্যই পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে এবং জাতীয় পরামর্শক কমিটির সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে সরকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। পুনর্বিবেচনা করবে তারিখটি ৩০ মার্চই থাকবে, নাকি পরিবর্তন হবে। যদি পরিবর্তন হয়, তাহলে আপনাদের সহযোহিতায় আমরা সময়মতো জানিয়ে দেব।’

উল্লেখ্য, গত ২২ জানুয়ারি করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে গাইডলাইন প্রকাশ করে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর। এ গাইডলাইন অনুসরণ করে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি নিতে বলা হয়। স্কুল-কলেজগুলোতে ৩৯ পাতার গাইডলাইন পাঠিয়ে বলা হয়, ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে স্কুলগুলো প্রস্তুত করে রাখতে, যাতে যেকোন মুহূর্তে সেগুলো খুলে দেয়া যেতে পারে। করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে গোটা বিশ্বকে নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হচ্ছে। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের এই প্রতিকূল স্রোতের মুখোমুখি বাংলাদেশও। অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের মতো বাংলাদেশের জন্য আরেকটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে শিক্ষা খাত। প্রায় ১২ মাস ধরে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। কিছু ক্ষেত্রে অনলাইনে কার্যক্রম চলমান।

আরো সংবাদ