সংগীত ও শারীরিকের শিক্ষক নিয়োগ হচ্ছে প্রাথমিকে - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৯ মে ২০২৪ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২৪-০৪-২৯ ০৯:৪৮:০০

সংগীত ও শারীরিকের শিক্ষক নিয়োগ হচ্ছে প্রাথমিকে

শনিবার খুলবে মাধ্যমিক, রোববার থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়

নিউজ ডেস্ক :  প্রাথমিক শিক্ষার মান বাড়াতে বিদ্যমান সাধারণ শিক্ষকের পাশাপাশি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সংগীত ও শারীরিক শিক্ষার শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে। নতুন এই দুই বিষয়ের জন্য মোট ৫ হাজার ১৬৬ জনের পদ সৃষ্টি করা হচ্ছে। এর মধ্যে সংগীতের ২ হাজার ৫৮৩ জন এবং শারীরিক শিক্ষা বিষয়ের ২ হাজার ৫৮৩ জন। নতুন পদগুলো সৃষ্টির যৌক্তিকতা উল্লেখ করে প্রশাসনিক উন্নয়ন-সংক্রান্ত সচিব কমিটির সভায় অনুমোদনের জন্য এরই মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

নুষ্ঠেয় প্রশাসনিক উন্নয়ন-সংক্রান্ত সচিব কমিটির সভায় এ প্রস্তাব উত্থাপন হতে পারে। এ ছাড়াও ২০টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের পক্ষ থেকে ৫ হাজার ২৯৮টি পদ সৃষ্টির প্রস্তাব এবং ৬টি বিধিমালার সংশোধনের প্রস্তাব বৈঠকে উপস্থাপন করা হচ্ছে। বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ থেকে তৈরি প্রস্তাবগুলোর মধ্যে বেশিরভাগই রাজস্ব খাতে পদ সৃষ্টির প্রস্তাব। এর মধ্যে রাজস্ব খাতে বেশ কিছু অস্থায়ী পদ সৃষ্টির প্রস্তাবও রয়েছে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব ফরিদ আহাম্মদ প্রতিদিনের বাংলাদেশকে বলেন, প্রাথমিকে শিক্ষার্থীদের জন্য শারীরিক শিক্ষা ও সংগীতের জন্য শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। সবকিছু চূড়ান্ত করে তা অনুমোদনের জন্য আগামী বৃহস্পতিবার সচিব কমিটির সভায় উত্থাপন করা হবে। এটি অনুমোদন পেলে শিক্ষক নিয়োগের জন্য যা করণীয় সেটা করা হবে।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ২০২০ সালে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সংগীত ও শারীরিক শিক্ষা বিষয়ের শিক্ষক নিয়োগের প্রস্তাবনা তৈরি করে। প্রাথমিক শিক্ষার মান বাড়াতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়। নতুন করে ১ লাখ ৬৯ হাজার ১২৪টি শিক্ষকের পদ সৃষ্টির জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠায় গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এসব পদের ছিল মধ্যে ২ হাজার ৫৮৩টি সংগীত, ২ হাজার ৫৮৩টি শারীরিক শিক্ষা, ৯৮ হাজার ৩৩৮টি সাধারণ শিক্ষক এবং সহকারী প্রধান শিক্ষকের ৬৫ হাজার ৬২০টি পদ।

এই প্রস্তাবের মধ্যে সম্প্রতি সংগীত ও শারীরিক শিক্ষা বিষয়ের পদ অনুমোদনের সম্মতি দিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। চতুর্থ প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন-কর্মসূচির (পিডিপি-৪) আওতায় এসব শিক্ষকের বেতন-ভাতা দেওয়া হবে। এর আগে অর্থ মন্ত্রণালয় এই নিয়োগ প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে। এরপর সেটি প্রশাসনিক উন্নয়ন-সংক্রান্ত সচিব কমিটিতে পাঠানো হয়। সচিব কমিটি অনুমোদন দিলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জারি করে শিক্ষক নিয়োগ দেবে।

এদিকে বৃহস্পতিবারের সভায় সচিবালয় নির্দেশমালা ২০২৩ অনুমোদন, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো (কর্মচারী) নিয়োগ বিধিমালা-২০২৩ অনুমোদন, প্রাথমিক গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আইন অনুবিভাগ সৃজনের লক্ষ্যে মন্ত্রণালয়কে ছোট ক্যাটাগরি থেকে বড় ক্যাটাগরিতে অন্তভুক্তকরণের প্রস্তাব, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন কর্মচারী চাকরি বিধিমালা ২০১৯ সংশোধনের প্রস্তাব অনুমোদন করা হবে।

এ ছাড়াও রয়েছে রেজিস্ট্রার জেনারেলের কার্যালয়ের জন্ম ও মৃত্যুনিবন্ধন কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা-২০১৮-এর সংশোধনের প্রস্তাব, মেরিন ফিশারিজ একাডেমি, চট্টগ্রাম-এর জন্য রাজস্ব খাতে অস্থায়ীভাবে ৩১টি পদ সৃজনের প্রস্তাব। বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের জন্য রাজস্ব খাতে অস্থায়ীভাবে ৪টি পদ সৃজনের প্রস্তাবও উঠছে। সেই সঙ্গে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের নাম পরিবর্তন করে বাংলায় বন্দর, অভ্যন্তরীণ নৌপথ ও জাহাজ চলাচল মন্ত্রণালয় নামকরণের প্রস্তাব, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক (কর্মকর্তা ও কর্মচারী) চাকরি বিধিমালা ২০০৮ রহিত করে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক (কর্মকর্তা ও কর্মচারী) চাকরি বিধিমালা ২০২৩ অনুমোদনসহ ২০টি প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য আগামী বৈঠকে উপস্থাপন হতে পারে বলে জানা গেছে।

আরো সংবাদ