সদর হাসপাতালে সেবার মান বেড়েছে, কমেনি দুর্ভোগ - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-০৯-১২ ১১:৩৩:০১

সদর হাসপাতালে সেবার মান বেড়েছে, কমেনি দুর্ভোগ

সদর হাসপাতালে সেবার মান বেড়েছে, কমেনি দুর্ভোগ

বিশেষ প্রতিবেদক : অবকাঠামোগত সমস্যা, চিকিৎসক ও জনবল সঙ্কটের কারণে কাঙ্খিত চিকিৎসা সেবা দিতে পারছে না কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল। ২শ’ ৫০ শয্যার এ হাসপাতালে প্রতিদিন গড়ে প্রায় সাড়ে ৫শ’ থেকে ৬শ’ রোগী ভর্তি হচ্ছে। সমস্যার কথা স্বীকার করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা প্রদানে তাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। এই হাসপাতালটিতে অনুমোদিত রোগীর ধারণক্ষমতা ২৫০ শয্যার। কিন্তু হাসপাতালে নিয়মিত ভর্তি থাকেন প্রায় ৬’শ থেকে ৭’শ জনের মতো, যা ধারণক্ষমতার তিনগুণ বেশি।

এতে দফায় দফায় সংকটের মুখ থেকে ফিরে সেবার মান বাড়ানো হলেও এখনও কমেনি দূর-দূরান্ত থেকে আসা রোগীদের দুর্ভোগ। রয়েছে বেড সংকটও। শয্যার চেয়ে অধিক রোগী আসলেই হাসপাতালের ফ্লোরে রোগীদের স্থান দিতেও দেখা গেছে।

স¤প্রতি চিকিৎসকদের উপর হামলার অভিযোগে দফায় দফায় ধর্মঘটের পর আবারও পুরোদমে চালু হয়েছে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা। এরপর নতুনভাবে সাজানো হয় চিকিৎসা সেবার ধরণ। কিন্তু এতোকিছুর পরও দুর্ভোগ কমেনি রোগীদের। কারণ বেড সংকট, লোডশেটিংসহ নানান কারণে দুর্ভোগে পড়তে হয় রোগী ও তার স্বজনদের। আগের মত কমিশন বাণিজ্য বন্ধ হলেও কমেনি দালালদের দৌরাত্ম্য।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, ১৯৯৭ সালে কক্সবাজার জেলার সদর হাসপাতালটিকে ১০০ থেকে ২৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। ২৫ বছর পার হলেও বাড়তি অবকাঠামোর কোন জনবল নিয়োগ দেয়া হয়নি। মঞ্জুরী পদ অনুযায়ী যেখানে কর্মরত থাকার কথা ৬৯৪ জন চিকিৎসক। যেখানে সিনিয়র কনসালটেন্ট পদে ১০ জনের ৬টি পদেই শূন্য, জুনিয়র কনসালটেন্ট ১১ পদের আছে ১০ জন চিকিৎসক, মেডিকেল অফিসার ৪৫ জনের মধ্যে কর্মরত আছেন ৩৯ জন, নার্স ৫৪৭ জনের মধ্যে ১১৬ জনের পদ শূন্য, তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী ৫৭ জনের মধ্যে পদ শূন্য ৩৬ এবং চতুর্থ শ্রেণি কর্মচারী ২৪ জনের মধ্যে ৯টি পদ খালী। চক্ষু, সার্জারি, হৃদরোগের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকও আছে নেই এ রকম। এছাড়াও সংকট রয়েছে কর্মকর্তা ও কর্মচারীরও।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আরও বলছে, রোগীর চাপ সামলাতে চিকিৎসক নিয়োগ দিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কার্যালয় ও মন্ত্রণালয়ে একাধিকবার চিঠি পাঠানো হয়েছে। কিন্তু এখনও চিকিৎসকের শূন্য পদগুলোতে লোকবল নিয়োগ দেয়া হয়নি।

এব্যাপারে জেলা সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডাঃ মোমিনুর রহমান জানান, দীর্ঘদিন থেকে গুরুত্বপূর্ণ পদে চিকিৎসকের সংকট। বিষয়টি নিয়ে বেশ কয়েকবার মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হয়েছে। কিন্তু ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া যায়নি। যার কারণে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা প্রদানে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

হাসপাতালে আসন সংকটের কথা স্বীকার করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা: মোমিনুর রহমান আরও জানান, ২৫০ শয্যার হাসপাতালে রোগীর ভর্তি রয়েছে ৬ শতাধিক। তাহলে কিভাবে সঠিক চিকিৎসা দেব। আর বেড সংকটও দীর্ঘদিনের। এ বিষয়ে আমরা উচ্চ পর্যায়ে জানিয়েছি। আশা করছি খুব দ্রæত এর একটা সমাধান আসবে।

এদিকে, জনবল সংকটের কারণে ভর্তি ও আউটডোর রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। আধুনিক ও সেবার মান নিয়ে দেশের মডেল হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে এই হাসপাতালটি। কিন্তু রোগীর বাড়তি চাপে শয্যার সংকটে মেঝেতে রেখে চিকিৎসা দেওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছেন রোগীরাও। ২৫০ শয্যার এ হাসপাতালে প্রতিদিন গড়ে সাড়ে ৫শ’ থেকে ৬শ’ রোগী ভর্তি হচ্ছে।

কক্সবাজার জেলার অর্ধ কোটি মানুষের প্রধান চিকিৎসা কেন্দ্র হচ্ছে জেলা সদর হাসপাতাল। জেলাবাসীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে এ হাসপাতালে চিকিৎসা কার্যক্রম চালু করা হয়। যা পরবর্তী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালে স্বীকৃতি দেয়া হয়। সদর হাসপাতালকে ২৫০ শয্যা উন্নিত করা হলেও ১৫০ শয্যা হাসপাতালেরও জনবল নেই। এতে সেবাদানে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে রোগী ও স্বজনদের।

প্রতিদিন সকালে আউটডোরে ডাক্তার দেখাতে হাসপাতালের কাউন্টারের সামনে গাদাগাদি করে নারী-পুরুষ অপেক্ষা করে টিকেটের জন্য। টিকেট নিয়ে রোগী ও স্বজনরা ভিড় জমান নির্দিষ্ট রোগের ডাক্তারদের সামনে। দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা পর কেউ কেউ সাক্ষাৎ পান, অনেকে আবার সাক্ষাৎ না পেয়ে বাড়ি ফিরে যান। এর মধ্যে কেউ কেউ সঠিক সময় চিকিৎসা পেয়ে বেজায় খুশি। কারো কারো মুখে শোনা যায় আক্ষেপ।

রোগী ও তার স্বজনরা জানান, হাসপাতালের ৪র্থ তলা মহিলা ওয়ার্ডে সারা বছরই রোগীদের ভিড় থাকে। এতে চরম দুর্ভোগে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে। স্থান সংকুলন না হওয়ায় এক বেটে ২ মহিলাকে চিকিৎসা দিতে হয়। আবার বিছানা না পেয়ে হাসপাতালের মেঝে-বারান্দায় থাকতে হয়। ফলে সেবা দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয় চিকিৎসক ও নার্সদের।

মহেশখালী থেকে আসা রোগীর স্বজন নুরুল ইসলাম বলেন, হাসপাতালে সবসময় সিট ফাঁকা পাওয়া যায় না। তাছাড়া হাসপাতালের পরিবেশ নোংরা হওয়ায় নিজেরাই অসুস্থ বোধ করেন। অনেকে আবার বেড না পেয়ে বারান্দায় চিকিৎসা নিচ্ছেন।

মরিচ্যা পালং থেকে আসা রাজিয়া বেগম বলেন, এসেছি দীর্ঘক্ষণ হচ্ছে এখনো বেড পাইনি। অনেকে বলছে বারান্দায় থাকতে হবে। রাজিয়ার মতো মৃদ্ধ রহিমা বেগম ভর্তি হয়েছেন আরও দুইদিন আগে কিন্তু এখনও তার বেড হাসপাতালের বারান্দায়। রহিমা বেগম বলেন, ডাক্তার সময় মত আসছে না। তাদের মন চাইলে আসছে আর না চাইলে আসছে না বলে অভিযোগ তার।

জরুরি বিভাগের প্রধান ও আবাসিক মেডিকেল অফিসার আশিকুর রহমান জানান, জেলা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সেবা দেশজুড়ে প্রশংসনীয় হয়েছে। রোগী টিকেট নিয়ে একটুও বসে থাকতে হয়না। কিন্তু আউটডোরের চিকিৎসকের সংকট আছে। চিকিৎসক যারা আছেন তাদের পক্ষে সবকিছু দেখভাল করা কষ্টদায়ক। চিকিৎসকদের বাড়তি দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে। এমতাবস্থায় চিকিৎসক পদায়ন করা না হলে কাঙ্খিত সেবা থেকে বঞ্চিত হবেন রোগীরা।

কক্সবাজার সোসাইটির সভাপতি কমরেড গিয়াস উদ্দিন জানান, হাসপাতালের বিরুদ্ধে অভিযোগের কোনো শেষ নেই। হাসপাতালের ভিতর থেকে কিভাবে প্রতিদিন মোবাইল সেট চুরি হয়। এতোগুলো গার্ড দেওয়ার পরেও কেনো রোগিরা নিরাপত্তাহীনতা থাকবে? প্রতিনিয়ত কোনো না কোনো মাধ্যমে জানতে পারি হাসপাতালের নানা ভোগান্তির কথা। যদিও কক্সবাজার সদর হাসপাতালের অবকাঠামোগত বেশ উন্নতি হয়েছে। কিন্তু রোগির সেবার মান নিয়ে আর কথায় বলা যায় না। তিনি এব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের আরও আন্তরিক হয়ে কাজ করার পরার্মশ দেন।

এদিকে গত ১৩ জানুয়ারি জেলা সদর হাসপাতালকে ২৫০ থেকে ৫০০ শয্যায় উন্নীত করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। এসময় তিনি বলেন, বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী অবস্থানের কারণে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে রোগীর চাপ বেড়েছে। যে কারণে জনবল বাড়ানো, ২৫০ থেকে হাসপাতালটিকে ৫০০ শয্যায় উন্নীতকরণ, কিডনি ডায়ালাইসিস ইউনিট স্থাপনসহ হাসপাতালের নানা সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, কক্সবাজার জেলার প্রায় ২৫ লাখসহ অর্ধকোটি সাধারণ মানুষের প্রধান চিকিৎসা কেন্দ্র হচ্ছে জেলা সদর হাসপাতালটি। দীর্ঘ বছর ধরে পর্যটন শহর কক্সবাজার সদর হাসপাতালটি নানা সমস্যায় রয়েছে। ক্ষমতাসীন দলের শক্তিশালী দুর্নীতিবাজ সিন্ডিকেটটি হাসপাতালটি নিয়ন্ত্রণ করে বলে জনশ্রæতি রয়েছে। এ নিয়ে দেশের শীর্ষ স্থানীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমে একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হলেও মোটা অংকের মিশনে সবই নিভে যায়।

আরো সংবাদ