দীর্ঘ বছর ধরে দুর্নীতির ভূত তাড়াতে পারেনি স্বাস্থ্য বিভাগ - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২২ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২২-০৯-১১ ১৯:৩১:৫০

দীর্ঘ বছর ধরে দুর্নীতির ভূত তাড়াতে পারেনি স্বাস্থ্য বিভাগ

সদর হাসপাতাল থেকে দীর্ঘ বছর ধরে দুর্নীতির ভূত তাড়াতে পারেনি স্বাস্থ্য বিভাগ
সংবাদটি শেয়ার করুন

জসিম সিদ্দিকী : পর্যটন শহর কক্সবাজার জেলার প্রায় ২৪ লাখ মানুষের নির্ভরশীল একমাত্র চিকিৎসা সেবা কেন্দ্র কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল। র্দীঘ বছর ধরে সিন্ডিকেট ভিত্তিক দুর্নীতির ভূতের কাছে বারংবার হার মানছে কক্সবাজারবাসি। দৈনিক অর্ধসহ¯্রাধিক রোগির একমাত্র নির্ভরযোগ্য স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানটির ধারণক্ষমতা রয়েছে ২৫০ শয্যার। কিন্তু এই অর্ধসহ¯্রাধিক রোগীর অজুহাতে ২৫০ শয্যার জন্য বরাদ্ধকৃত ঔষধপত্রগুলোর মধ্যে নয় ছয় করে লুটেপুটে খাচ্ছে একটি চক্র।

জানাগেছে, হাসপাতালের ওয়ার্ড পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা, ঔষধে নয় ছয়, নানা অব্যবস্থাপনা, আইএনজিওদের দখল, শিক্ষানবীশ ডাক্তার নির্ভরতা, টেন্ডারবাজি, কর্মকর্তা-কর্মচারিদের অশুভ আচরণ, প্রতিবাদ করলেই নাজেহাল, অভিজ্ঞ ডাক্তার সংকট, খাবারে ব্যাপক অনিয়ম, রোগিদের তদারকির অভাব, কক্সবাজার সদর হাসপাতাল ভোগান্তির আরেক নাম ডায়রিয়া ওয়ার্ড ইত্যাদি অভিযোগে চলছে জেলার একমাত্র সরকারি হাসপাতালটি।

যদিও পর্যটন শহর কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের অবকাঠামোগত বেশ উন্নতি হলেও রোগির সেবার মান নিয়ে রয়ে গেছে বরাবরের মতো অভিযোগ। রোগিদের এই চরম ভোগান্তি কমাতে চূড়ান্ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে দাবী করেছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

রোববার (১১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখা যায়, রোগিদের তীব্র হাহাকার। সরকারিভাবে সরবরাহকৃত প্যারসিটামলই যেনো একমাত্র ভরসা। অবশ্য কিছু কিছু রোগিদের ক্ষেত্রে ব্যাথার ইনজেকশন দেওয়া হচ্ছে। এর বাহিরে কোনো ঔষধ রোগিদের দেওয়া হচ্ছে না। ফার্মেসীতে মিলছেও না প্রয়োজনীয় সব ঔষধ।

এ বিষয়ে আরও জানতে হাসপাতালের ৫ম তলার পুরুষ মেডিসিন বিভাগে গেলে দেখা যায়, শতাধিক রোগি সীটের অভাবে মেঝেতে পড়ে আছে। নেই কোনো চিকিৎসা। যেনো এক যুদ্ধবিধ্বস্ত মাঠে মানুষ ছটপট করছে! নেই কোনো ডাক্তার কিংবা শিক্ষানবীশ।

মেঝেতে পড়া থাকা আইনজীবী সহকারি ফরিদুল আলম প্রতিবেদককে জানান, ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ৩দিন ধরে হাসপাতালের মেঝেতে পড়ে আছি। এখানে কোনো ডাক্তারের দেখা মিলে না। সকাল সন্ধ্যায় কয়েকজন নার্স এসে ফাইল খোঁজে। তারপর একটি নরমাল স্যালাইন কিনে আনতে বলে, তারপর খাওয়ার জন্য একটি প্যারাসিটামল দেয়। তবে তারা কাগজে কলমে ঠিক থাকার চেষ্টা করে। কিছু বললে কর্মচারি সবাই মিলে তেড়ে আসে আক্রমণ করতে। যার কারণে আমি তাদের প্রতি অতিষ্ঠ হয়ে বাহিরের হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যাচ্ছি।

প্রতিবেদক ডেঙ্গু ওয়ার্ডের ৫ম তলার ৩ নম্বর বেডে গিয়ে রোগির নাম ঠিকানা জানতে চাইলে রোগি পরিচয় দিল তার নাম নুর হাকিম। সে রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে চিকিৎসা নিতে সদর হাসপাতালে এসেছে। অথচ ৫ থেকে ১০ মিনিট পরপর একাধিক ডাক্তার তাকে দেখতে আসে। প্রতিনিয়ত তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে।

তার জন্য আলাদা চিকিৎসা কেনো জানতে চেষ্টা করলে একাধিক সংশ্লিষ্টরা জানান রোহিঙ্গা রোগিদের চিকিৎসার জন্য আইএনজিওরা হাসপাতালে কোটি কোটি টাকা ইনভেস্ট করেছে। সেজন্য রোহিঙ্গা রোগিদের হাসপাতালে চিকিৎসার কোনো অভাব হয় না। কিন্তু স্থানীয়রা ডাক্তারের দেখা খুবই কম পায়। যদি কোনো কর্তা বাবুর রোগি হলে তাদের জন্য কেবিন, সিসিইউ ও আইসিইউসহ জামাই আদরে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

ঔষধ সরবরাহকারি কর্মচারী ষ্টোর কিপার মোস্তাকিমের ভাষ্যমতে, প্রতিটি ওয়ার্ডের জন্য সরকারিভাবে যথেষ্ট ঔষধ বরাদ্ধ দেওয়া হচ্ছে। তাহলে ওই ঔষধগুলো কোথায় যায়? সেই উত্তর খোঁজতে প্রতিবেদক বেশ কয়েকটি স্থানে অনুসন্ধান করেও সন্ধান মেলাতে পারেনি। ঘুরেফিরে একই কথা উঠে আসছে ধারণক্ষমতা যেহেতু ২৫০ শয্যার সেজন্য দৈনিক অর্ধসহ¯্রাধিক রোগির দেখভাল করার জন্য ঔষধ কোথায় থেকে আসবে?

অন্যদিকে আউটডোরের ফার্মেসীতে গিয়ে দেখা মেলে রোগিদের দীর্ঘ লাইন। তাদেরকে দেওয়া হচ্ছে প্যারাসিটামলসহ আরও কিছু নরমাল ঔষধ। সেখানেও একই অভিযোগ। আবাসিক মেডিকেল অফিসারদের জন্য অপেক্ষা আর অপেক্ষা করছে জেলার বিভিন্ন স্থান হতে আসা শতশত রোগি। তাদের অভিযোগ দুপুরেও ডাক্তার চেম্বারে আসেনা। কারন একজন অভিজ্ঞ চিকিৎসক একাধিক হাসপাতালে দায়িত্ব পালন করে বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র জানিয়েছে, একসময় হাসপাতালটির সামনে ফুলেফলে ভরা একটি বাগান ছিলো। বর্তমানে মালি সংকটে ওই বাগানটিও হারিয়ে গেছে! অভিযোগ রয়েছে, মালি বর্তমানে অঘোষিত কর্তা সেজে হাসপাতালের ভেতরে অফিস করেন। কিন্তু সরকারি বেতন নেন মালির! তাদের রয়েছে গাড়ী, বাড়ি, জায়গা ও টাকার পাহাড়। তাদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করলে প্রকৃত রহস্য বের হয়ে আসবে বলে ওই সূত্রটি দাবী করেছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, রোহিঙ্গাদের চিকিৎসার স্বার্থে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে প্রায় অর্ধশতাধিক আইএনজিও ইনভেস্ট করেছে। সেজন্য যতœসহকারে রোহিঙ্গাদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তাদের জন্য নিয়োগ দেওয়া হয়েছে আলাদা ডাক্তার ও সেবিকা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র আরও জানিয়েছে, পর্যটন শহর কক্সবাজারের একমাত্র সরকারি হাসপাতালটির ব্যবস্থাপনা কমিটিতে সদস্য হিসেবে রয়েছে একজন ট্রাক চালক। তার চৌদ্দ গোষ্ঠির জীবনে হাসপাতাল কি করে চালাতে সেটা জানা থাকার কথা নয়। তারপরেও তাকে এতো বড় হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা কমিটিতে সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে। অবশ্যই তিনিও একজন রোহিঙ্গা কেন্দ্রীক ব্যবসায়ী। বর্তমানে আঙ্গুল ফুলে কলা গাছে পরিণত হয়েছে। মূলত একটি ক্ষমতাসীন দলের প্রতাপশালী নেতা টেন্ডারবাজি করার জন্য তাকে হাসপাতালে সদস্য হিসেবে রেখে।

আচরণের ব্যাপারে শহরের পেশকার পাড়ার লাকি আক্তার জেরিন নামে এক গৃহিনী জানান, অনেক নার্সের ব্যবহার ভালো থাকলেও কিছু নার্স এতই খারাপ ব্যবহার করে যা সহ্য করার মত নয়। যদিও সচেতনতামূলক পোস্টারের মাধ্যমে হাসপাতালের বিভিন্ন জায়গায় রোগীদের সঙ্গে ভাল ব্যবহারের কথা প্রচার রয়েছে। এসব নার্সদের দেখাদেখি অনেক আয়াকেও খারাপ ব্যবহার করতে দেখা যায়।

রামু উপজেলার পেঁচারদ্বীপ থেকে আসা রোগি আব্দুল হাফেজ জানান, সম্প্রতি হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষার নিরীক্ষার জন্য নতুন মূল্য তালিকা ঝুলে দেওয়া হয়েছে। মূল্যটি সাধারণ রোগিদের জন্য অতিরিক্ত হয়েছে। সামান্য সিভিসি পরীক্ষার জন্য নেওয়া হচ্ছে ২৪০ টাকা থেকে ২৭০ টাকা। এ মূল্য কমানো উচিত। তা নাহলে রোগিরা টেষ্ট করাতে পারবে না। তিনি আরও বলেন, আমাকে ৫ টি টেষ্ট দেওয়া হয়েছে। সব টেষ্টে আমার প্রায় ১৪০০ টাকা আসছে। আমি ২ হাজার টাকা নিয়ে ঘর থেকে সরকারি হাসপাতালে আসছি। এখন আমি কি করবো বুঝতে পাচ্ছি না।

হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা শহরের টেকপাড়ার শহিদুলাহ জানান, সরকারি নাম দিয়ে এধরণের কসাইখানা খুলে বসেছে সিন্ডিকেটটি। এব্যাপারে তিনি উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে অবগত করবেন বলেও জানান।

শহরের কলাতলী থেকে চিকিৎসা নিতে আসা হাফেজ আব্দুল গফুর জানান, ২৫০ বেডের হাসপাতালে প্রায় হাজারখানিক রোগির চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে এমন অজুহাতে ঔষধ, খাবারসহ সরকারি নানান সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে স্থানীয়রা। তিনি আরও বলেন গেল ৩ দিন ধরে হাসপাতালে ভর্তি আছি এখনও দেখিনি ভাত ও নাস্তা। লাইনে দাঁড়ালে তারা বলে তোমার নাম নেই।

চকরিয়া হতে বড় ভাইকে নিয়ে হাসপাতালে আসে শিক্ষক হেফাজুল করিম। তিনি জানান, হাসপাতালটি তো এনজিওদের দখলে চলে গেছে। তার রোগি প্রচন্ড মাথা ব্যাথাসহ একাধিক রোগ নিয়ে হাসপাতালের জরুরী বিভাগ হতে ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ করে ৫ম তলার মেডিসিন বিভাগে নেওয়া হয়। তারপর শুরু হলো অপেক্ষা, নেই কোনো চিকিৎসক। অন্যদিকে শিক্ষানবীশ ডাক্তার আর নার্সদের আড্ডা চোখে পড়ার মতো। বারংবার তাগাদা দেওয়ার পরে ঘন্টাখানেক পরে শিক্ষানবীশ এক মহিলা ডাক্তার আসে। তারপর টেষ্ট দিতে দিতে সন্ধ্যায় নেমে আসে। শিক্ষক হেফাজুল করিম মনে করেন এব্যাপারে স্থানীয়দের চিন্তা করা উচিত।

মহেশখালী উপজেলার বড়মহেশখালী এলাকার আজম আলীর ছেলে নুর মোহাম্মদ জানান, হঠাৎ মাথায় আঘাত জনিত রোগে চিকিৎসা নিতে সদর হাসপাতালে আসছি। গেল ৪দিন ধরে চিকিৎসা চলছে। খাবারের ব্যাপারে প্রতিবেদক তার কাছ থেকে জানতে চাইলে নুর মোহাম্মদ বলেন, খুবই নিন্মমানের খাবার দেওয়া হয়। সকালের কলা আর রুটি দেখলে আপনারা বুঝতে পারবেন। সেজন্য হাসপাতল থেকে দেওয়া কোনো খাবার তিনি খেতে পারেন না।

এদিকে রোগীর সাথে আসা একাধিক আত্মীয়স্বজনরা অভিযোগ করে জানান, হাসপাতালে সবসময় সিট ফাঁকা পাওয়া যায় না। তাছাড়া হাসপাতালের পরিবেশ নোংরা হওয়ায় তারা নিজেরাই অসুস্থ বোধ করেন। এমনকি জরুরি বিভাগে রোগী নিয়ে আসলেও ডাক্তার কিংবা নার্সের দেখা পাওয়া যায় না। একইভাবে অবকাঠামোগত সমস্যা, চিকিৎসক ও জনবল সংকটের কথা জানালেন কর্তব্যরত নার্স ও চিকিৎসকরা।

সদর হাসপাতাল থেকে দীর্ঘ বছর ধরে দুর্নীতির ভূত তাড়াতে পারেনি স্বাস্থ্য বিভাগ

নাম প্রকাশ না করার শর্তে হাসপাতালের পাশের দোকানদার বলেন, রোগি অনুযায়ী কর্মচারির সংখ্যা খুবই কম। হাসপাতালে বহিরাগতদের আনাগোনা নিয়ে প্রতিবেদক জানতে চাইলে বাবু বলেন, নানান ধরণের লোক হাসপাতালের চারিদিকে ঘুরে এবং সুযোগ বুঝে রোগির স্বজনদের মোবাইল, টাকা ও অন্যান্যা মালামাল ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এর উৎপত্তি স্থল হচ্ছে মর্গের পাশে একটি পান সিগারেটের দোকান খোলা হয়েছে। ওই দোকানের ভিতরে বসে মাদক সেবনও করা যায়। সেখান থেকে শুরু হয় ছুরি ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা।

হাসপাতাল এলাকার বাসিন্দা রফিক আলম জানান, গেইটে গেইটে আনসার থাকলেও ভিতরে তেমন কোনো চিকিৎসা নেই। রোহিঙ্গা আসার আগে স্থানীয়রা সহজে জরুরী চিকিৎসা সেবা পেতো। এখন তো পদে পদে হয়রানী। এ বিষয়ে আরও জানতে চাইলে তিনি বলেন, হাসপাতালে আগত রোগিদের লোকেমুখে শুনি হাসপাতালের ইতিহাস।

কক্সবাজার জেলা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ইমাম সমিতির সভাপতি আলহাজ¦ সিরাজুল ইসলাম সিদ্দিকী জানান, সম্প্রতি হাসপাতালে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার অভাব দেখা গেছে। ঔষধ হরিলুট, কমিটির ব্যবস্থাপনাসহ নানান সমস্যা সমাধান নিয়ে আমাদের আরও আন্তরিক হতে হবে। তিনি এব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সকলকে আরও আন্তরিক হওয়ার পরার্মশ দেন।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল কক্সবাজার জেলা শাখার প্রভাবশালী সদস্য মোহাম্মদ আমান উল্লাহ জানান, হাসপাতালের ভোগান্তি দীর্ঘদিনের। কিন্তু স্বাস্থ্য বিভাগ হাসপাতালটি এখনও দুর্নীতিমুক্ত করতে পারেনি। এব্যাপারে তিনি জেলাবাসীর স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্য বিভাগের প্রতি জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

কক্সবাজার সোসাইটির সভাপতি কমরেড গিয়াস উদ্দিন জানান, হাসপাতালের বিরুদ্ধে অভিযোগের কোনো শেষ নেই। হাসপাতালের ভিতর থেকে কিভাবে প্রতিদিন মোবাইল সেট চুরি হয়। এতোগুলো গার্ড দেওয়ার পরেও কেনো রোগিরা নিরাপত্তাহীনতা থাকবে? প্রতিনিয়ত কোনো না কোনো মাধ্যমে জানতে পারি হাসপাতালের এ ভোগান্তির কথা। যদিও কক্সবাজার সদর হাসপাতালের অবকাঠামোগত বেশ উন্নতি হয়েছে। কিন্তু রোগির সেবার মান নিয়ে আর কথা যায় না। তিনি এব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের আরও আন্তরিক হয়ে কাজ করার পরার্মশ দেন।

এবিষয়ে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার আশিকুর রহমান জানান, আমরা রাতদিন পরিশ্রম করে রোগিদের সেবা দিয়ে যাচ্ছি। আনিত অভিযোগের ব্যাপারে তিনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করার পরার্মশ দেন। ঔষধ বরাদ্ধের বিষয়ে তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঔষধ যা বরাদ্ধ রয়েছে তা অবশ্যই রোগিদের মাঝে বন্টন করা হচ্ছে। তিনি হাসপাতালে কোনো অনিয়ম দেখছেন না বলেও প্রতিবেদককে জানান।

এ বিষয়ে আরও জানতে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের তত্বাবাবধায়ক ডাক্তার মোমিনুর রহমান এর সাথে মেবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। যার কারণে তার বক্তব্য দেওয়া সম্ভব হয়নি।

কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের ব্যবস্থপনা কমিটির সভাপতি সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি গণমাধ্যমকে জানান, জেলা পর্যায়ে দেশের শ্রেষ্ঠ হাসপাতাল হিসেবে পুরষ্কার প্রাপ্ত কক্সবাজার জেলা হাসপাতালে অতি শীঘ্রই ডাইলাইসিস সেন্টার উদ্বোধন হতে যাচ্ছে। আর এই হাসপাতালের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ থাকলে অবশ্যই খতিয়ে দেখা হবে।

উল্লেখ্য, দীর্ঘ বছর ধরে পর্যটন শহর কক্সবাজার সদর হাসপাতালটি থেকে দুর্নীতির ভূত তাড়াতে পারেনি স্বাস্থ্য বিভাগ। ওই দুর্নীতির ভূতরা সিন্ডিকেট করে সরকারি হাসপাতালটি গিলে খাচ্ছে। এ চক্রের বিরুদ্ধে কেউ কিছু করতে চাইলে তাকে হাসপাতাল থেকে বিদায় নিতে হয়। এ নিয়ে দেশের শীর্ষ মানের বিভিন্ন গণমাধ্যমে একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হলেও মোটা অংকের মিশনে সবই নিভে যায়।


সংবাদটি শেয়ার করুন
 
     
  
      

আরো সংবাদ