সমুদ্র পাড়ে মা কচ্ছপসহ ঝুঁকিতে সামুদ্রিক বিপন্ন প্রাণী - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৪-০২-২০ ০৫:১১:২৩

সমুদ্র পাড়ে মা কচ্ছপসহ ঝুঁকিতে সামুদ্রিক বিপন্ন প্রাণী

সমুদ্র পাড়ে মা কচ্ছপসহ ঝুঁকিতে সামুদ্রিক বিপন্ন প্রাণী
নিজস্ব প্রতিবেদক :  কক্সবাজার সমুদ্র উপকূলে আবারও ভেসে এল ৯৫ টি ডিম পেটে থাকা একটি মা কচ্ছপ। গতকাল সোমবার সকালে সৈকতের হিমছড়ি প্যারাসেলিং পয়েন্টে মিলেছে এই কচ্ছপটি। বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বোরি) জ্যেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. তরিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, এটিও অলিভ রিডলি মা কচ্ছপ। পেটে ৯৫ টি ডিম পাওয়া গেছে।
বোরি’র দেওয়া তথ্য মতে, জানুয়ারি থেকে সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) পর্যন্ত কক্সবাজার সমুদ্র উপকূলের সোনাদিয়া, হিমছড়ি, সোনারপাড়া, ইনানী ও টেকনাফ সৈকতে অন্তত ২৯টি মৃত কচ্ছপ পাওয়া গেছে। শুধু মাত্র ৫ দিনে সৈকতে পাওয়া গেছে ৬ টি মৃত মা কচ্ছপ। এই সময়ের মধ্যে ৩ টি মৃত ডলফিন, ১ টি মৃত পরপইস ভেসে এসেছে। এ পরিস্থিতি উদ্বেগজনক মন্তব্য করেছেন, বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. তৌহিদা রশীদ।
তিনি বলেন, কয়েকদিন ধরে ভেসে আসা মৃত সামুদ্রিক প্রাণীগুলোর নমুনা সংগ্রহ করে মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধানে সংশ্লিষ্টরা কাজ করছেন। বিষয়টি খুব গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এটা কখনও হয়নি।
এ পরিস্থিতিতে সামুদ্রিক ‘মা কচ্ছপ’ মহাবিপদে বলে মন্তব্য করেছেন সামুদ্রিক বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. তরিকুল ইসলাম। তিনি বলেছেন, নভেম্বর থেকে মার্চ পর্যন্ত সামুদ্রিক কচ্ছপের প্রজনন মৌসুম। ধারণা করা হচ্ছে, জেলেদের জালে বা অন্য কোনোভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে কচ্ছপগুলো মারা পড়ছে।
এ পরিস্থিতিতে সামুদ্রিক বিপন্ন প্রাণী ডলফিন ও পরপইস ঝুঁকিতে রয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বোরি) জ্যেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. তরিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ডলফিন-পরপইসের বাসস্থানের ক্ষতি, জল দূষণ, উপকূলীয় উন্নয়ন, অতিরিক্ত মাছ ধরা এবং এর পরিসরের মধ্যে সামুদ্রিক যানবাহনের বৃদ্ধির কারণে হুমকির সম্মুখীন। আবাসস্থলের অবক্ষয় এবং মাছ ধরার জালে  দুর্ঘটনাজনিতভাবে আটকা পড়ে আহত বা আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে তা মারা যেয়ে থাকতে পারে। ফলে এ পরিস্থিতির উন্নয়নে কাজ করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

আরো সংবাদ