সাগরপাড়ে ভয়ংকর প্রতারণায় নেমেছেন জীবন দম্পতি - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২ ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০২১-১২-২৯ ১৭:৩৮:১৪

সাগরপাড়ে ভয়ংকর প্রতারণায় নেমেছেন জীবন দম্পতি

সাগরপাড়ে ভয়ংকর প্রতারণায় নেমেছেন জীবন দম্পতি
Spread the love

বার্তা  পরিবেশক : পর্যটন রাজধানী কক্সবাজার সাগর পাড়ে ভয়ংকর প্রতারক শহিদুল মাওলা জীবন দম্পতির বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড় জমেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেজবুকে। এ নিয়ে ভুক্তভোগিরা থানা আদালতে একাধিক মামলা দায়ের করেছে। অভিযোগে জানাযায়,  কতিপয় হোটেল ম্যানেজার পদকে পুঁজি করে নানা কৌশলে একাধিক বিবাহ, বিদেশে মানুষ পাঠানো, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মোটা অংকের চাকরি, হোটেলের মালিক সেজে সাধারণ মানুষকে বোকা বানানো তাদের কাজ। আইনশৃংখলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে এ প্রতারণা কান্ডে উক্ত দম্পতি হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখ লাখ টাকা।

কিন্তু এতে কোনো প্রতিকার পাচ্ছেন না ভুক্তভোগিরা। তারা এব্যাপারে আইন-শৃংখলা বাহিনীর কাছে আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেছেন।

জানাগেছে, কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভের কলাতলী রোড়ে অবস্থিত হোটেল স্যুট সাদাফের জেনারেল ম্যানেজার শহিদুল মাওলা জীবন ও তার স্ত্রী লৎফন নাহার শিল্পী দীর্ঘ দিন ধরে পর্যটকদের টার্গেট করে ভয়াবহ প্রতারণার ফাঁদ নেমেছে। তুরস্কে চাকরি দেওয়ার নামে নিজেরা তুর্কি দূতাবাসের কর্মকর্তা সেজে নকল কন্ঠে কথা বলা থেকে শুরু করে হোটেলে বিদেশি এনজিও কর্মকর্তাদেরদের দেখিয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মোটা অংকের বেতনের চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে অগনিত মানুষের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এই দম্পতি।

শুধু তাই নয়, তুকি দূতাবাসের নামে নিজেরাই ভুয়া ইমেইল আইডি খুলে মানুষের বিশ্বস্ততা অর্জনের অপচেষ্টা করেন। যার ফলে মারাতœক প্রতারণার শিকার হয়েছেন ভুক্তভোগিরা।

না প্রকাশ না করার শতে এক ভুক্তভোগি তার অভিমত প্রকাশ করতে গিয়ে জানান, কক্সবাজারে অনেক মানুষ আছে। যারা তার প্রতারণার স্বীকার হয়েছেন। হোটেলের ২৯ লাখ টাকা মেরে জেল ও খেটেছে। কক্সবাজার হোটেল মালিক ও পর্যটকদের নিকট অকুল আবেদন এই প্রতারক থেকে সাবধান থাকুন। তার জানামতে ওই দম্পতি মাদক কারবারের সাথে জড়িত। মেজর সিনহা হত্যাকান্ডের অন্যতম আসামী

সাগরপাড়ে ভয়ংকর প্রতারণায় নেমেছেন জীবন দম্পতি

সাগরপাড়ে প্রতারণায় নেমেছেন জীবন দম্পতি- 

 

সাবেক পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলীর বন্ধুও ছিলেন এ জীবন। যার কারনে সহজে করতো মাদক কারবার।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, এই প্রতারক দম্পতি সাবেক এক এসপি’র সাথেও প্রতারণা করেছিলো। পরে ওই মামলায় নাকি জেলেও গিয়েছিল।

কক্সবাজার হোটেল মোটেল জোনের জনৈক কর্মকর্তা জানান, এই দম্পতির বিরুদ্ধে প্রতারণাসহ নানা কৌশলে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার মতো অভিযোগ তার কাছে অর্ধশতাধিক অভিযোগ রয়েছে। তার অভিযোগ সমূহ আমলে নিয়ে তাদেরকে আইনের আওতায় আনা খুবই জরুরী বলে মনে করছেন এই কর্মকর্তা। তিনি এব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

 

আরো সংবাদ