সাগরে ডাকাতি করতে গিয়ে পিটুনিতে ১০ জনের মৃত্যু - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ৭ জুন ২০২৩ ২৪শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-০৫-০৫ ১৪:৩৫:২৬

সাগরে ডাকাতি করতে গিয়ে পিটুনিতে ১০ জনের মৃত্যু

সাগরে ডাকাতি করতে গিয়ে পিটুনিতে ১০ জনের মৃত্যু

বার্তা পরিবেশক :  কক্সবাজারের নাজিরারটেক উপকূলে ট্রলার থেকে অর্ধগলিত ১০ জনের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তার গিয়াস উদ্দিন ওরফে মুনির (৩২) আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, পাঁচ বছর ধরে ট্রলারে ডাকাতির ঘটনায় তিনি জড়িত থাকলেও ১০ জনের হত্যাকাÐের ঘটনায় তিনি উপস্থিত ছিলেন না। তখন তিনি চকরিয়ার লবণ মাঠে কাজে ব্যস্ত ছিলেন। সাগরে মাছ ধরার ট্রলারে ডাকাতি করতে গিয়ে ডুবন্ত ট্রলারটির ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। ট্রলারে ডাকাতির ঘটনায় মহেশখালী পৌরসভার এক কাউন্সিলর ও এক জলদস্যু জড়িত থাকার কথা তিনি তুলে ধরেন।

বৃহস্পতিবার (৪ মে) সন্ধ্যায় গিয়াসের জবানবন্দি রেকর্ড করেন কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আসাদ উদ্দিন আসিফ। এর সত্যতা নিশ্চিত করেন কক্সবাজার সদর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, মামলায় এ পর্যন্ত ছয় আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মধ্যে সবাইকে পাঁচ ও তিন দিন করে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। গ্রেপ্তার ৪ আসামিদের মধ্যে কামাল হোসেন ওরফে বাইট্যা কামাল, আবু তৈয়ূব, ফজল কাদের ও গিয়াস উদ্দিন আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। কিন্তু জবানবন্দিতে চারজন কী বলেছেন, তা তাঁর জানা নেই। তবে রিমান্ডের সময় জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা হত্যাকাÐের বিস্তারিত তুলে ধরেন। বর্তমানে ছয় আসামি কক্সবাজার জেলা কারাগারে আছেন।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, আদালতের জবানবন্দিতে চকরিয়ার কোনাখালীর বাসিন্দা গিয়াস উদ্দিন বলেছেন, পেশায় তিনি লবণ চাষি হলেও গত ৫ বছর ধরে মাঝে মধ্যে সাগরে নেমে ট্রলারে ডাকাতি করেন। গিয়াসকে ডাকাতিতে নামিয়েছেন মহেশখালীর সোনাদিয়ার মো. সুমন ডাকাত।

এর আগে কামাল হোসেন ওরফে বাইট্যা কামাল আদালতে দেওয়া ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে বলেছেন, ঘটনার সময় তিনি কক্সবাজার শহরে ছিলেন। তবে ট্রলারের মাঝি-মাল্লাদের সঙ্গে তাঁর কয়েক দফার কথায় নিশ্চিত হয়েছেন যে ১০ জনের ট্রলারটি সাগরে ডাকাতি করতে নেমেছিল। ডাকাতির একপর্যায়ে কয়েকটি ট্রলারের জেলেরা ১০ জনকে জিম্মি করে প্রথমে গণপিটুনি দেন। এরপর গুম করার জন্য লাশগুলো বরফ রাখার কক্ষে আটকে রেখে ট্রলারটি সাগরে ঢুবিয়ে দেওয়া হয়।

মামলার অপর দুই আসামি (ট্রলারের মাঝি) আবু তৈয়ূব ও ফজল কাদের আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে বলেন, ঘটনাটি তাঁদের চোখের সামনে ঘটলেও এর সঙ্গে তাঁরা জড়িত ছিলেন না।

গত ২৩ এপ্রিল বিকেলে কক্সবাজার শহরের নাজিরারটেক উপকূলে ডুবন্ত একটি মাছ ধরার ট্রলার থেকে ১০ জনের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস। ২৫ এপ্রিল কক্সবাজার সদর থানায় এজাহার নামীয় ৪ জনসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৫০ থেকে ৬০ জনকে আসামি করে মামলা করেন ডুবন্ত ট্রলারের মালিক ও মহেশখালীর হোয়ানক ইউনিয়নের বাসিন্দা নিহত সামশুল আলমের স্ত্রী রোকিয়া আকতার।

মামলার এজাহারে বলা হয়, আসামিদের ৪টি ট্রলারের ৫০ থেকে ৬০ জন লোক মিলে সামশুলের ট্রলারটি আটকে পরবর্তী সময়ে সামশুলসহ অন্যদের গলায় রশি পেঁচিয়ে, হাত পা রশি ও জাল দিয়ে বেঁধে মারধর করে মাছ রাখার হিমাগারের ভেতর আটকে রাখেন এবং ওপর থেকে ঢাকনায় পেরেক মেরে লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে ট্রলারের তলা ফুটো করে দেন।

আরো সংবাদ