সাসটেইনেবল এন্টারপ্রাইজ প্রকল্পের সমাপনী কর্মশালা অনুষ্ঠিত - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-১১-২৯ ১২:৫১:২৭

সাসটেইনেবল এন্টারপ্রাইজ প্রকল্পের সমাপনী কর্মশালা অনুষ্ঠিত

সাসটেইনেবল এন্টারপ্রাইজ প্রকল্পের সমাপনী কর্মশালা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব  প্রতিবেদক :  কক্সবাজারে কোস্ট ফাউন্ডেশন এর সাসটেইনেবল এন্টারপ্রাইজ প্রজেক্ট (এসইপি) এর আওতায় “উদ্ভাবন ও প্রযুক্তির মাধ্যমে শুঁটকি মাছ প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্পের প্রসার” শীর্ষক উপ-প্রকল্পের সমাপনী উপলক্ষে কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুঁটকি সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তাদের নিয়ে বুধবার (২৯ নভেম্বর) সকালে কক্সবাজার জেলা পরিষদের কনফারেন্স রুমে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় টেকনিক্যাল অফিসার মো. শাহজাহানের সঞ্চালনায় এসইপি প্রকল্প ব্যবস্থাপক তানজিরা খাতুনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. বদরুজ্জামান, বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট এর মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো.শফিকুর রহমান, জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ড. মো. সাহাব উদ্দিন, জেলা খাদ্য নিরাপত্তা কর্মকর্তা মো. নাজমুল ইসলাম, বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা কেন্দ্র, কক্সবাজার এর সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. তরিকুল ইসলাম, কক্সবাজার সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা তারাপদ চৌহান, সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা-বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট মো. রায়হান হোসাইন, কক্সবাজার পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এস.আই.এম. আকতার কামাল আজাদ এবং পরিবেশ অধিদপ্তরের সিনিয়র কেমিষ্ট মো. আবদুস সালাম।

বিশ^ব্যাংক ও পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর আর্থিক ও কারিগরি সহায়তায় ২০২১ সালের জুন মাস থেকে প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু হয় এবং প্রকল্পটি শেষ হবে ২০২৪ সালের জানুয়ারীতে। কক্সবাজার সদরের নাজিরারটেক, খুরুশকুল ও চৌফলদন্ডিতে প্রকল্পের কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

শুঁটকি প্রক্রিয়াজাতকরণে নিয়োজিত শ্রমিকদের জন্য নাজিরারটেক ও চৌফলদন্ডিতে ১০টি পাবলিক টিউবওয়েল, ০৫টি পাবলিক টয়লেট, শুঁটকির অব্যবহৃত অংশ ও শুঁটকির বর্জ্য থেকে ফিশ ফিড উৎপাদনের জন্য ২টি জৈব বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কেন্দ্র, ও কমন সার্ভিস লোনের মাধ্যমে শুঁটকি সংরক্ষণের জন্য একটি কনটেইনার ভিত্তিক কোল্ড স্টোরেজ স্থাপন করা হয়েছে। নিরাপদ শুটকি উৎপাদনে আধুনিক প্রযুক্তির সুবিধাভোগের জন্য ৩৭টি ফিশ ড্রায়ার ও গ্রীন মাঁচা টেকনোলজি, ৮টি কুল ড্রায়ার টেকনোলজি স্থাপন করা হয়েছে। শুঁটকি কেন্দ্রিক ইকো-ট্যুরিজম ফ্যাসিলিটিতে পর্যটকদের পাশাপাশি স্থানীয়রা বিনোদন ও শুঁটকির রেসিপি উপভোগের সুযোগ রয়েছে। শুঁটকি মহালে কর্মরত মায়েদের শিশুদের দুগ্ধপান ও শিশুরা নিরাপদে খেলাধুলা করে সময় কাটানোর জন্য একটি বিশ্রামাগার ও মাতৃ দুগ্ধপান কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়াও, সমুদ্রে মাছ ধরার ক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত সহায়তার জন্য ৫টি ফিশ ফাইন্ডার ও সোনার টেকনোলজি স্থাপন করা হয়েছে। মাল্টিমিডিয়া প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে প্রকল্পের এসব কর্মকান্ড সম্পর্কে অবগত করেন রিপোর্টিং ও ডকুমেন্টেশন অফিসার।

অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিগণ কোস্ট ফাউন্ডেশন এর শুঁটকি সেক্টর ও শুঁটকি খাতে কর্মরত শ্রমিক, উদ্যোক্তাদের উন্নয়নে অবদান সম্পর্কে তুলে ধরেন। পাশাপাশি শুঁটকির স্যাম্পল ল্যাব টেস্ট, উন্নতমানের প্যাকেজিং, নিরাপদ শুঁটকি উৎপাদনে প্রযুক্তির ব্যবহার, ফিশ ফাইন্ডার ও সোনার টেকনোলজির গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করেন।

প্রকল্প সমাপনী কর্মশালায় উদ্যোক্তাদের মধ্যে আজিজ উদ্দিন, মো. আমান উল্লাহ সওদাগর, আতাউর রহমান কাইছার, লিটন দেব নাথ, নাজমা আকতার রেশমি, মো. ইসহাক এসইপি প্রকল্পের বিভিন্ন কার্যক্রম ও এর সুফল নিয়ে মতামত প্রকাশ করেন। শুঁটকি উদ্যোক্তা জিহাদ হোসেন, আতাউর রহমান কাইছারসহ ৫জন উদ্যোক্তাদের মধ্যে শুঁটকির স্যাম্পল ল্যাব টেস্টের সার্টিফিকেট অতিথিরা প্রদান করার মাধ্যমে প্রকল্প সমাপনী কর্মশালা শেষ করা হয়।

আরো সংবাদ