সীমান্তের ওপারে আবারও ভারী গোলাবর্ষনের শব্দ - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২৪-০৩-১৯ ২০:০২:০২

সীমান্তের ওপারে আবারও ভারী গোলাবর্ষনের শব্দ

সীমান্তের ওপারে আবারও ভারী গোলাবর্ষনের শব্দ
নিউজ ডেস্ক : বেশ কয়েকদিন শান্ত থাকার পর মিয়ানমার অভ্যন্তরে সংঘাতে গোলাগুলি ও ভারী গোলাবর্ষণের শব্দে আবারও কেঁপে ওঠলো কক্সবাজারে টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের চৌধুরী পাড়া এবং সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীরদ্বীপ সীমান্ত। অপরদিকে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তের বাইশফাঁড়ি-তুইঙ্গা ঝিরি সীমান্তের ওপারে ব্যাপক গোলাগুলির শব্দে কেঁপে উঠেছে এপারের গ্রাম।
জনপ্রতিনিধিসহ স্থানীয়রা জানিয়েছেন, টেকনাফের হ্নীলার চৌধুরী পাড়া ও সাবরাংয়ের শাহপরীরদ্বীপ সীমান্তের ওপারে থেমে থেমে গোলাগুলির পাশাপাশি অন্তত ২০ থেকে ৩০ টি মর্টারশেল বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে। রাখাইন রাজ্যের মংডু শহরের উত্তরে নাকপুরা এলাকা এবং পূর্বে ধনখালী, হাসুরাতা, নাইক্ষ্যংদিয়া, গর্জনদিয়া ও সংক্ষদাবিল এলাকায় সংঘাতের কারণে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। তবে সোমবার সকাল ১১ টার পর থেকে বিস্ফোরণের শব্দ কমে গেলেও মাঝে মধ্যে ঘন্টাখানেক পর পর গোলাগুলির শব্দ ভেসে আসছে।
হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী বলেন, দেড় মাসের বেশি সময় ধরে মিয়ানমারের রাখাইনে সশস্ত্র বাহিনীর সাথে দেশটির সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান আর্মি (এএ) সংঘাত চলছে। উভয় পক্ষে গোলাগুলি, মর্টার শেল, গ্রেনেড বোমা নিক্ষেপের ঘটনা ঘটছে। যে কারণে এর প্রভাব এসে পড়ছে এপারে।  রবিবার রাতে হঠাৎ একসঙ্গে প্রায় ২০টি মর্টার শেলের বিস্ফোরণে সীমান্তের লোকজন একটু আতংকিত হয়ে পড়ে বলে জানান এই জনপ্রতিনিধি।
টেকনাফ পৌরসভার প্যানেল মেয়র মুজিবুর রহমান বলেন, রাতের বেলায় বিকট শব্দের মর্টার শেলের বিস্ফোরণে কেঁপে উঠে টেকনাফ পৌরসভার জালিয়াপাড়া, চৌধুরীপাড়া, কুলালপাড়া, ডেইলপাড়া, হাঙ্গারডেইলসহ অন্তত ১৩টি গ্রাম। এতে লোকজনের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।
সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীরদ্বীপ জেটিঘাটের ইজারাদারের টোল আদায়কারি মোহাম্মদ ছিদ্দিক বলেন, সোমবার ভোর রাতে সেহেরীর সময় নাফ নদীর ওপারে মিয়ানমার অভ্যন্তর থেকে বেশ কয়েকটি গোলাগুলি ও ভারী গোলাবর্ষণের শব্দ শুনতে পেয়েছিলেন। সকাল থেকে ভারী মর্টারশেল বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পান। এছাড়া এখনো মাঝে মাঝে গোলাগুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে। এতে নাফ নদীতে মাছ ধরতে যাওয়া জেলেরা আতংকে রয়েছেন।
বিজিবির টেকনাফ ২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, ওপারে সংঘাতের কারণে মাঝে মাঝে এপারে গোলাগুলির শব্দ ভেসে আসছে। তবে রাখাইনের পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণে রেখেছে বিজিবি। বিশেষ করে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে নাফ নদী ও সীমান্তে বিজিবির টহল বাড়ানো হয়েছে।
এদিকে নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তের বাইশফাঁড়ি-তুইঙ্গা ঝিরি সীমান্ত এলাকার বিপরীতে ওপারে নারায়ন সং সেনা ক্যাম্পটি দখলে নিতে ব্যাপক গোলাগুলির শব্দে কেঁপে উঠেছে সীমান্ত সড়কের আশপাশ এলাকা। এ ঘটনা ওপরের সাহেব বাজার ও ফকিরা বাজার পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে পুরো এলাকায়।
এদিকে প্রচন্ড গোলাগুলির এ শব্দ পুরো বাংলাদেশ- মিয়ানমার সীমান্তবর্তী সীমান্ত সড়কটি কেঁপে উঠেছে সোমবার বিকেলে। মর্টার শেল ও বিমান হামলায় থরথর করে কাপঁতে দেখে পালিয়ে  নিরাপদে আশ্রয় নিয়েছে ৩৯  নম্বর পিলার এলাকায় সড়কে কাজের শ্রমিকরাও। তারা দীর্ঘ দিন এ সড়কে শ্রমিক হিসেবে কাজ করে। তাদের মাঝি গুরা মিয়া জানান, গোলাগুলি বন্ধ হলে ২/১ দিন পর আবার কাজে ফিরবে তারা।
অপর শ্রমিক আবদুল কাদের জানান, এতো বড় গোলার টানা আওয়াজ তিনি আর কখনও শুনেননি। আধাঘন্টায় ২৫ টি মর্টার শেলের আওয়াজে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়। এছাড়া সন্ধ্যার পরও ভারী অস্ত্রের গোলার আওয়াজ শুনা যাচ্ছিলো এ পয়েন্টে।
নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল আবছার ইমন বলেন, সীমান্তের যে সমস্যা তা নিয়ে সকলে তটস্থ। সীমান্তে বিজিবি রয়েছে। সব দেখভাল করছেন। সীমান্তের এপারে লোকালয়ে পরিষদের অধিনস্থ মেম্বার, চৌকিদার ও দফাদারদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে সব বিষয়ে সজাগ থাকতে।
নাইক্ষ্যংছড়ি  উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ জাকারিয়া জানান, সীমান্তের বিষয়  নিয়ে প্রশাসন সার্বক্ষণিক নজর রাখছে। তিনি ১৭ মার্চ বিকেলে সীমান্তের কাছাকাছি কয়েকটি গ্রাম ঘুরে দেখেছেন। মানুষ কিছুটা তটস্থ থাকলেও তাদের স্বাভাবিক চলাচলে পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।
বান্দরবান জেলা প্রশাসক মো: মুজাহিদ উদ্দিন পালিয়ে আসা ১৭৭ জান্তা বাহিনীর সদস্যদের বিষয়ে বলেন, মন্ত্রনালয় থেকে অল্প দিনের মধ্যে হয়তো তাদের বিষয়ে নির্দেশনা আসবে, তখন তাদের ফেরৎ দেয়ার কাজ শুরু হরু হবে।

আরো সংবাদ