সীমান্তের ওপারে তুমুল যুদ্ধ, সতর্ক অবস্থায় বিজিবি - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২৪-০১-২৩ ১৩:১৯:৫৬

সীমান্তের ওপারে তুমুল যুদ্ধ, সতর্ক অবস্থায় বিজিবি

টানা বিস্ফোরণে কাঁপছে এপারের সীমান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক :  তুমব্রু সীমান্তের ওপারে ২ বিদ্রোহী গ্রুপের মধ্যে তুমুল যুদ্ধ চলেছে ৭ ঘন্টাব্যাপী। যা থেকে গুলির খোসা এসে পড়লো এপারের কয়েকটি গ্রামে। সে সময় এ সব গ্রামের লোকজন আশ্রয় নেন নিরাপদ আশ্রয়ে। আর এসে পড়া গোলার খোসা এখন পথে পথে। যাতে আতংকে কৃষক, ছাত্র, শিক্ষক থেকে সকলে।

আজ মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) সকাল থেকে থেমে থেমে নাইক্ষ্যংছড়ি ও উখিয়া সীমান্ত এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে ।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী তুমব্রু মধ্যমপাড়ার সরওয়ার কামাল, হেডম্যান পাড়ার পাইনছা প্রু তংচঙ্গা, আলী আকবর ও উখিয়ার পানখালী সীমান্তের রফিক মাহমুদ জানান, তারা এখন বড় অসহায় পড়েছে। গেল সোমবার সকাল ৬ টা থেকে ৭ ঘন্টাব্যাপী গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। আজ সকাল থেকেও আবার শুরু হয়েছে। তাও তাদের কানের উপর তবে মিয়ানমার অংশে।

তারা জেনেছেন, মিয়ানমার দু’বিদ্রোহী গ্রুপ আরকান আর্মি ও আরএসও’র মধ্যে চলেছে তুমুল আধিপত্যের এ যুদ্ধ। তারা সীমান্তের চৌকি দখলের প্রতিযোগীতায় মেতেছে। সে গোলাগুলি থেকে বেশ গুলি এসে পড়ে তাদের বাড়ি-ঘরে-উঠানে-মাঠে-ঘাটে ।

তারা আরও জানান, গেল সোমবার সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে গোলাগুলির সময় তার বাড়িতে এসে পড়ে ২টি একে-৪৭ রাইফেলের গুলি। প্রথম গুলি এসে পড়ার ২ মিনিটের মাথায় এসে পড়ে আরেকটি গুলি। চরম আতংকে ছেলে সন্তান নিয়ে কোনমতে নিরাপদ আশ্রয়ে অবস্থান করেন।

হেডম্যান পাড়ার পাইনছা প্রু তংচঙ্গাও অনুরুপ কথা বলেন এ প্রতিবেদকের কাছে। তার গ্রামের কয়েক জন পুরুষ ছাড়া সবাই নিরাপদে চলে গেছে সারা দিন, সন্ধ্যায় আবার ফিরে এসেছে বাড়িতে। এভাবে অনেকেই এ পথ অবলম্বন করেন তারা। তার ধারণা, প্রাণে বাঁচতেই তাদের এ সিদ্ধান্ত বলে জানান তিনি।

স্কুল শিক্ষক ছৈয়দুর রহমান হীরা জানান, তিনি সীমান্তের একটি স্কুলের শিক্ষক। তার স্কুল এলাকায় সারা দিন গোলাগুলির আওয়াজ। ভয়ে শিশুরা তটস্থ। বৃষ্টির মতো গোলাগুলি। ঝুঁকি নিয়ে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা স্কুলে আসে। এভাবে আর কত দিন চলবে? তিনি এসবের প্রতিকার চান।

সীমান্তের একাধিক বাসিন্দা জানান, ৩৪ থেকে ৩৬ নম্বর সীমান্ত পিলার এলাকা দিয়ে গেল সোমবার ২২ জানুয়ারি ভোর ৬টা থেকে দুপুর ১২টা পযর্ন্ত ৭ঘন্টা পযর্ন্ত মিয়ানমারের সামান্য ভিতর থেকে হাজার হাজার রাউন্ড গোলাগুলির শব্দ এসে কাঁপিয়ে তুলে দুই সীমান্ত পিলার এলাকা। আজ সকালে আবারও শুরু হয়েছে। এতে সব কিছুতে অসুবিধা হচ্ছে। তারা বলেন মোবাইল নেটওয়ার্ক না থাকায় কোথাও এ ঘটনা তৎক্ষনাৎ জানানো সম্ভব হচ্ছে না। সমস্যার যাতাকলে তারা এখন দারুণ কষ্টে রয়েছেন।

এ বিষয়ে এ সীমান্তে দায়িত্বরত ৩৪ বিজিবির অধিনায়ক লে: কর্ণেল সাইফুল ইসলাম চৌধুরী ও ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও মোবাইর নেটওয়ার্ক না থাকায় তাদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

বান্দরবান জেলা প্রশাসক শাহ মোজাহিদ উদ্দিন বলেন, গোলাগুলিসহ অন্যান্য খবর শুনেছি। উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বিষয়টি নিয়ে খোঁজখবর নিতে বলা হয়েছে । সীমান্তে বিজিবি সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।

আরো সংবাদ