সীমান্তে অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় আরও চার লাখ রোহিঙ্গা - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৪-০২-০৩ ১৯:৫৪:১৮

সীমান্তে অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় আরও চার লাখ রোহিঙ্গা

ফিরলো মায়ানমারের ৩৩০ নাগরিক, ৭ বছরেও ফিরতে পারল না রোহিঙ্গারা

নিউজ ডেস্ক :  এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে আরাকান আর্মির সঙ্গে সেনাবাহিনীর ভয়ঙ্কর সংঘাতে অস্থির হয়ে উঠেছে বাংলাদেশ সীমান্ত। এই যুদ্ধের অজুহাতে চার লাখের বেশি রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশের দিকে ঠেলে দেওয়ার চক্রান্ত করছে জান্তা সরকার। মংডু-বুচিদং এলাকা থেকে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ সীমান্তে এনে রাখা হয়েছে বলেও তথ্য রয়েছে।

মিয়ানমারে বিদ্রোহীদের সঙ্গে সেনাবাহিনীর সংঘাতে চ্যালেঞ্জে পড়েছে বাংলাদেশ। রাখাইনে জান্তা সরকারের কাছে ব্যর্থ হলে যুদ্ধরত আরাকান আর্মির সশস্ত্র সদস্যদের বাংলাদেশমুখী হওয়ার শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে। পাশাপাশি আরও চার লাখ রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের আতঙ্কও রয়েছে। আসন্ন পরিস্থিতে এড়াতে বিজিবি এবং কোস্ট গার্ড সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

জানা যায়, মিয়ানমারের শান রাজ্যে জান্তা সরকারের সঙ্গে শান লিবারেশন আর্মির দু’বছর ধরে চলা সংঘাতে এখন শান নর্থ রাজ্যে তাং ওয়া আর্মি, কাচিন রাজ্যে কোচিন ইন্ডিপেন্ডন্ট আর্মি, ইয়াঙ্গুগুনে কারেন্ট ন্যাশনাল ডিফেন্স আর্মি যুক্ত হয়েছে।

বাকি গ্রæপগুলোর মতোই স্বতন্ত্র অঞ্চলের দাবিতে নতুন করে যুদ্ধ শুরু করেছে রাখাইন রাজ্যের আরাকান আর্মি। সবশেষ কোনো বিদ্রোহী গ্রæপের সঙ্গে টিকতে না পেরে পিছু হটছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী।

এনিয়ে রবিবার (৪ ফেব্রæয়ারি) সকালে উখিয়া পালংখালী ইউপি চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, গেল শুক্রবার এবং শনিবার কোনো গোলাগুলির শব্দ শোনা যায়নি। তবে কয়েকদিন আগে শোনা গিয়েছিল। ওপারে গোলাগুলি হলে এপাড়ের মানুষের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়।

ঘুমধুম ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ বলেন, শনিবার কোনো গোলাগুলির শব্দ শুনা যায়নি। কিছুদিন আগে মিয়ানমার থেকে মর্টারশেল এসে পড়েছিল। যার কারণে স্থানীয় লোকজন আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। তখন কয়েকটি বিদ্যালয় বন্ধ রাখা হয়েছিল।

টেকনাফ কোস্টগার্ডের স্টেশন কমান্ডার এইচ এম লুৎফুল লাহিল মাজিদ বলেন, যুদ্ধ পরিস্থিতিতে সীমান্তে অনেকটা উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো সময় পরিস্থিতি বদলে যেতে পারে। রোহিঙ্গাদের নতুন করে অনুপ্রবেশের খবরও রয়েছে আমাদের কাছে। তবে এসব কিছুতে বাংলাদেশ যেন ভুক্তভোগী না হয় সেদিকে আমাদের নজরদারি রয়েছে সবদিক থেকে। নিরাপত্তায় আমরা কোনো ছাড় দিতে রাজি নই।

যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় সীমান্ত রক্ষী বিজিবি-উপকূল রক্ষী কোস্টগার্ড এবং ক্যাম্পভিত্তিক নিরাপত্তায় পুলিশ ও আমর্ড ব্যাটালিয়ন সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

ক্যাম্পে নিয়োজিত ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) এর অধিনায়ক (অতিরিক্ত ডিআইজি) মোহাম্মদ ইকবাল বলেন, মিয়ানমারের ভেতরের পরিস্থিতি নিয়ে ক্যাম্পে অবস্থান করা রোহিঙ্গাদের যাতে কোনো প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি না হয় সেই বিষয়টি আমরা খেয়াল রাখছি। পাশাপাশি প্রতিটি চেকপোস্টে আমাদের কঠোর নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। নতুন করে আর কোনো রোহিঙ্গাকে ক্যাম্পে প্রবেশ করানো হবে না।

শরণার্থী কমিশন বলছে, নতুন করে যেকোনো অনুপ্রবেশ ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে রয়েছে সরকার। শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসান কমিশনার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, আরও রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের আশঙ্কা রয়েছে। তবে আমাদের বর্ডার গার্ড (বিজিবি) অত্যন্ত সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে আরাকান আর্মির মতো রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের অ্যালায়েন্স সংগঠন আরসাও সংঘাতে জড়িয়েছিল। কিন্তু মিয়ানমার সেনা চৌকিতে অতর্কিত হামলার পর মাত্র একদিনেই পরাজয় স্বীকার করে নেয় আরসা। আর তার ফলাফল হিসাবে ৮ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে চলে আসতে বাধ্য হয়।

আরো সংবাদ