সীমান্তে ঢুকে পড়ল মায়ানমার বাহিনীর আরও ৯ সদস্য - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৯ মে ২০২৪ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২৪-০৪-১৪ ১৮:৫৯:৫২

সীমান্তে ঢুকে পড়ল মায়ানমার বাহিনীর আরও ৯ সদস্য

মায়ানমারের ২৮৫ জন সেনা ফেরত যাবে, ফিরবে ১৫০ জন বাংলাদেশী

নিজস্ব প্রতিবেদক :  মায়ানমারে চলমান গৃহযুদ্ধের জের ধরে কক্সবাজার টেকনাফের কয়েকটি সীমান্ত দিয়ে মায়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) ৯ সদস্য বাংলাদেশে ঢুকে পড়েছে। অস্ত্র জমা নিয়ে বিজিবি তাদের হেফাজতে নিয়েছে।

রোববার (১৪ এপ্রিল) সকালে টেকনাফের কয়েকটি সীমান্ত দিয়ে এসব বিজিপি সদস্য পালিয়ে আসে বলে নিশ্চিত করেছেন টেকনাফ ২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. মহিউদ্দিন আহমেদ।

তবে ‍বিজিবির দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা বলেছেন, টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের ঝিমংখালী ও খারাংখালী সীমান্ত দিয়ে সশস্ত্র ৯ জন বিজিপি সদস্য পালিয়ে আসে। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন আহত রয়েছে।

অস্ত্র জমা নিয়ে এ ৯ জনকে প্রথমে হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। ওখান থেকে আহতদের বিজিবির নিজস্ব একটি অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সীমান্তের ওপারে মায়ানমারের রাখাইন রাজ্যে জান্তা বাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহী আরাকান আর্মির চলমান সংঘাত ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। গেলো সপ্তাহব্যাপী মায়ানমার সীমান্ত থেকে ভেসে আসা গোলাগুলি ও মর্টার শেল বিস্ফোরণের বিকট শব্দে আতঙ্কে রয়েছে সীমান্তে বসবাসকারিরা। এ পরিস্থিতিতে মায়ানমারের আরও ৯ বিজিপি সদস্য বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে।

এদিকে, সংঘাতের কারণে মায়ানমারের বেশ কিছু বাহিনীর সদস্য কয়েক দফায় বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন।

সর্বশেষ গত ৩০ মার্চ মায়ানমার সেনাবাহিনীর ৩ জন সদস্য নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেন। এর আগে ১১ মার্চ আশ্রয় নেন আরও ১৭৭ জন বিজিপি ও সেনাসদস্য। তারা সবাই নাইক্ষ্যংছড়ি সদরে ১১ বিজিবি (বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ) হেফাজতে রয়েছেন।

এর আগে গত ২ ফেব্রুয়ারি রাত থেকে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সীমান্তের ওপারে আরাকান আর্মির সঙ্গে মায়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির সংঘর্ষ শুরু হয়। এর জের ধরে ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাংলাদেশে পালিয়ে আসেন বিজিপিসহ ৩৩০ জন।

যার মধ্যে ৩০২ জন বিজিপি সদস্য, ৪ জন বিজিপি পরিবারের সদস্য, ২ জন সেনা সদস্য, ১৮ জন ইমিগ্রেশন সদস্য ও ৪ জন বেসামরিক নাগরিক ছিলেন। এদের ১৫ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে ফেরত পাঠানো হয়।

আরো সংবাদ