সেই সার্ভেযারের সহকারি মিজান আবারও এলএ শাখায়! - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২২ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২২-১১-১৯ ১৯:১৮:৪৫

সেই সার্ভেযারের সহকারি মিজান আবারও এলএ শাখায়!

সেই সার্ভেযারের সহকারি মিজান আবারও এলএ শাখায়!
সংবাদটি শেয়ার করুন

নিজস্ব  প্রতিবেদক :  কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখার সার্ভেয়ার আতিকুল ইসলাম ঘুষের টাকাসহ ঢাকায় আটকের পর গা ঢাকা দিয়েছিলেন তার বিশ^স্ত দালাল মিজান। কিছুদিন যেতে না যেতে আবারও এলএ শাখায় দালালি শুরু করেছেন। ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় তিনি আবারও ফাইল নিয়ে খুবই ব্যস্ত সময় কাটচ্ছেন বলে নিজেই দাবী করেছেন।

মহেশখালীতে আতিকুলের কমিশন বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত দালাল চক্রের সাতজনের নাম এখনও স্থানীয় মানুষের মুখে মুখে। তাঁরা হলেন ঈদগাঁও এলাকার মোহাম্মদ মিজান (কারাগারে থাকা সার্ভেয়ার আতিকের বিশ^স্তজন), ধলঘাটার বাসিন্দা আহমদ উল্লাহ, কুতুবউদ্দিন ও তাজ উদ্দিন, মাতারবাড়ী ইউনিয়নের আশেক উল্লাহ, উখিয়ার মৌলভি আবুল বশর ও মোহাম্মদ জাহেদ। তাঁরা সবাই সার্ভেয়ার আতিক আটক হওয়ার পর গা ঢাকা দিয়েছিলেন। বর্তমানে তারা সবাই এলএ শাখায় দালালি করছেন বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেন।

এদিকে, অভিযোগের ব্যাপারে মিজান জানান, দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় তিনি কমিশন ভিত্তিক জমির ফাইল নিয়ে কাজ করছেন। কারাগারে থাকা সার্ভেয়ার আতিকুল ইসলামের সাথে তার সর্ম্পক ছিলো কিন্তু আতিকের কোনো টাকা তার কাছে নেই। এ নিয়ে তিনি দুর্নীতি দমন কমিশনের নজরধারিতেও আছেন বলে জানান।

সম্প্রতি আতিকের স্বজনরা কক্সবাজার এসে মিজানের সাথে যোগাযোগ করলে মিজান রহস্যজনক কারনে তাদের সাথে দেখাও করেননি। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দালাল পাড়ায় মিশ্রপ্রতিক্রিয়া দেখা যায়।

অনেকেই বলছে, সার্ভেয়ার আতিকের বিপুল পরিমাণ টাকা দালাল মিজানের কাছে জমা ছিলো। এতো বড় কেলেংকারির পরও মিজান কিভাবে এলও শাখায় দালালি করে তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে চলছে আলোচনা সমালোচনা। তারা বলছে তার অদৃশ্য শক্তির সন্ধান কোথায় তা তাদের জানা নেই।

খোদ এলএ শাখার কয়েকজন কর্মচারি জানান, জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় মিজান প্রায় সময় জমির ফাইল নিয়ে আসেন। তারা এ বিষয়ে আর কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

উল্লেখ্য, ১ জুলাই কক্সবাজার থেকে ব্যাগে ভরে ২৩ লাখ ৬৩ হাজার ৯০০ টাকা নিয়ে ঢাকায় পাড়ি দিতে গিয়ে আটক হন সার্ভেয়ার আতিকুর রহমান। কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দরের একাংশ গড়ে উঠছে ধলঘাটা ইউনিয়নে।

এ সময় আতিক গড়ে তোলে ছিলো শক্তিশালী দালাল চক্র। বন্দরের জন্য অধিগ্রহণকৃত ৩১৫ একর জমির একরপ্রতি ক্ষতিপূরণের টাকা নির্ধারণ করা হয় ৫৫ লাখ টাকা করে। কিন্তু ক্ষতিপূরণের চেক নিতে গিয়ে জমির মালিকদের দালালের মাধ্যমে সার্ভেয়ারকে কমিশন দিতে হতো ২০-৩০ শতাংশ করে। তখন কমিশন বাণিজ্যের কথা এলএ অফিসসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে জানিয়েও প্রতিকার পাননি বলে দাবি করেন ক্ষতিগ্রস্থরা।


সংবাদটি শেয়ার করুন
 
 0   
  
      

আরো সংবাদ