সেন্টমার্টিন থেকে ফেরত আসা যাত্রীদের ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২২-১২-২১ ১৪:২৪:৫৮

সেন্টমার্টিন থেকে ফেরত আসা যাত্রীদের ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া

সেন্টমার্টিন থেকে ফেরত আসা যাত্রীদের ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া

নিজস্ব  প্রতিবেদক :  প্রায় ১৫ ঘন্টার পর সেন্টমার্টিন থেকে কক্সবাজারে ফিরেছে পর্যটকবাহী জাহাজ বে ওয়ানের ১৩০০ যাত্রী। সেন্টমার্টিন থেকে মঙ্গলবার বিকেল ৩ টায় কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে জাহাজটি। রাত ৯ টার দিকে গভীর সমুদ্রে জাহাজটি আটকে যায়।

বুধবার (২১ ডিসেম্বর) ভোর ৫ টার কিছু পর কক্সবাজার শহরের বিআইডবিøউ টি এ ঘাটে আসে বে ওয়ান থেকে পর্যটকদের স্থানান্তরিত হওয়া বার আউলিয়া জাহাজটি। ফেরত আসা যাত্রীরা এসময় ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

বিশেষ করে নারী পর্যটকেরা জানান, ছোটো বাচ্চা আর বয়স্ক মানুষের ভোগান্তি ছিলো চরমে। অনেকে বসার জায়গা না পাওয়ায় ১৫ ঘন্টা দাড়িয়ে ফেরত এসেছেন বলে অভিযোগ করেছেন। কোলকাতা থেকে আসা চিকিৎসক দম্পতি জানান, জাহাজ কর্তপক্ষের অব্যবস্থাপনা আর অসহযোগিতা ছিলো। জাহাজের ১৫ শতাংশ যাত্রীকে খাবার দেয়া হয়েছে।

কোলকাতার এ চিকিৎসক দম্পতি বলেন, আগের দিন ভোর ৫ টায় তারা ঘাটে আসে সেন্টমার্টিন যাওয়ার জন্য আর পরদিন ভোর ৫ টায় ফিরেছে, সেন্টমার্টিন দেখার সুযোগও হলো না, মাত্র ৪৫ মিনিট দ্বীপে অবস্থান করার সুযোগ হয়েছিলো।

ঢাকা থেকে আসা আরেক দম্পতি জানান, সমুদ্র উত্তাল ছিলো, এসময় বারবার বলার পরও কর্তৃপক্ষ লাইফ জ্যাকেট সরবরাহ করেনি। সেই সাথে তিনটি আলু সিংগারার দাম রাখা হয়েছে ১০০ টাকা, খিচুড়ির দাম রাখা হয়েছে ২৫০ টাকা।

আরেক পর্যটক জানান, তিনি সাড়ে ৭ হাজার টাকা দিয়ে টিকেট কিনেছেন কেবিনের, তাকে খাবারও দেয়া হয়নি। তার স্ত্রী জানান, বাচ্চাদের নিয়ে রাতভর সমুদ্রে ভয়ংকর এক অভিজ্ঞতা হলো।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাওয়া হলে কর্ণফুলী ক্রজ লাইনের কর্মকর্তা আব্দুল কাইয়ুম জানান, জোয়ার ভাটাজনিত কারনে কক্সবাজার থেকে বার আউলিয়া জাহাজে করে গভীর সমুদ্র থেকে কক্সবাজার ঘাটে যাত্রীদের ফেরত আনতে সময় লেগেছে। এতে কোনো যান্ত্রিক ত্রæটি ছিলোনা বলে তিনি দাবী করেন।

খাবার সকল যাত্রী না পাওয়া নিয়ে জানতে চাইলে এ কর্মকর্তা বলেন, সবাইকে খাবার দেয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। খাবারের অতিরিক্ত দাম নেওয়া নিয়ে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জাহাজের খাবারের দোকান কর্তৃপক্ষ অন্যজনকে ভাড়া দিয়েছে, এখানে জাহাজ কর্তৃপক্ষের কোনো হাত নেই।

তিনি জানান, এটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা, দূর্ঘটনা নয়, সকল যাত্রী নিরাপদে ফিরেছে এবং এরকম আর সমস্যা হবে না বলেও তিনি জানান।

কক্সবাজার থেকে প্রতিদিন দুটো জাহাজ সেন্টমাটিন যাতায়াত করে পর্যটকদের নিয়ে। তবে প্রায়শ জাহাজ পৌঁছাতে দেরীসহ নানান অভিযোগ শোনা যায় পর্যটকদের কাছ থেকে।

এদিকে সকাল সাড়ে ৭ টা নাগাদ কর্নফুলী জাহাজ এবং সকাল ৮টা নাগাদ বে ওয়ান সময় ক্রুজ সেন্টমাটিনের উদ্দেশ্যে কক্সবাজার থেকে রওনা করেছে বলে জানা গেছে।

যাত্রীদের দুর্ভোগের কথা স্বীকার করে সি ক্রুজ অপারেটর ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (স্কোয়াব) এর সাধারণ সম্পাদক ও কর্ণফুলী এক্সপ্রেসের কক্সবাজারের ব্যবস্থাপক হোসাইনুল ইসলাম বাহাদুর বলেন, বেশকিছু দিন ধরে এফবি কর্ণফুলী এক্সপ্রেসে যান্ত্রিক ত্রæটি দেখা দেয়। এ কারণে কর্ণফুলী জাহাজটি মেরামতের জন্য চট্টগ্রামে পাঠানো হয়। ফলে সেন্টমার্টিনে জাহাজের টিকেট বিক্রি বন্ধ রাখা হয়।

কিন্তু, ট্যুর অপারেটর ওনার্স এসোসিয়েশন অফ কক্সবাজার (টুয়াক) এর সদস্যরা চট্টগ্রাম থেকে সেন্টমার্টিনগামী জাহাজ টিকেট চালু রাখে। তাদেরকে টিকেটের টাকা যাত্রীদের ফেরত দিতে বললেও তারা কথা শুনেনি। যার কারণে, চট্টগ্রামে থেকে সেন্টমার্টিনগামী জাহাজ বে-ওয়ানের মাধ্যমে যাত্রীদের কক্সবাজারে আনা হয়েছে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান বলেন, কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে একটি জাহাজের অনুমতি আছে। রাতভর পর্যটকরা সমুদ্রে থাকার বিষয়টি জানা নেই। আর অতিরিক্ত যাত্রী নিলে কর্ণফুলী এক্সপ্রেসের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, টেকনাফ থেকে সেন্টমাটিন নৌরুটের কিছু অংশে নাব্যতা সংকটের কারণে জাহাজ চলাচল এ বছর বন্ধ রয়েছে।

আরো সংবাদ