সেপ্টেম্বর ও নভেম্বরে ক্রসফায়ারে ৬ কারবারি নিহত - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২ ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০২১-১২-০৫ ১১:৫৩:২৫

সেপ্টেম্বর ও নভেম্বরে ক্রসফায়ারে ৬ কারবারি নিহত

চকরিয়ায় র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে দুই ডাকাত নিহত
Spread the love

নিজস্ব  প্রতিবেদক  : কক্সবাজারে বন্দুকযুদ্ধে নিহতের সংখ্যার পাশাপাশি মাদক কারবার কমছে না। এ নিয়ে চলিত বছরের সেপ্টেম্বর ও নভেম্বরেই অন্তত ৬ জন নিহত হয়েছেন। মানবাধিকারকর্মী ও বিশেষজ্ঞদের মতে সরকারের নীতি নির্ধারকদের মধ্যে ক্রসফায়ারের পক্ষে এক ধরনের অবস্থান আছে। যে কারণে এমন ঘটনা বন্ধ হচ্ছে না।

সর্বশেষ শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) ভোরে টেকনাফে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা ডাকাত কেফায়েত উল্লাহ ও কোরবান আলী প্রকাশ আঙ্গুল কাটা শফিক নিহত হয়েছে। টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের দমদমিয়া পাহাড়ি এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে ২০ হাজার ইয়াবা, বিদেশি পিস্তল ও গুলি উদ্ধার করেছে র‌্যাব। র‌্যাবের দাবি, নিহত কেফায়েত উল্লাহ ও কোরবান আলী প্রকাশ আঙ্গুল কাটা শফিক চিহ্নিত ডাকাত ও মাদক কারবারি। তাদের বিরুদ্ধে মাদক ও অস্ত্র আইনে একাধিক মামলা রয়েছে।

২১ নভেম্বর ভোররাতে কক্সবাজারের উখিয়ায় বন্দুকযুদ্ধে র‌্যাবের হাতে নিহত হয়েছেন উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নের বালুখালী জমিদার পাড়ার মৃত সৈয়দ আলমের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (৩৫)। যাকে মাদক কারবারি বলছে র‌্যাব। তাঁর বিরুদ্ধে মাদকসহ ছয়টি মামলা আছে।

অপরদিকে ১৩ নভেম্বর ভোরে কক্সবাজারের টেকনাফে বন্দুকযুদ্ধে ২৫ বছরের এক যুবক নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। তাঁর নাম-পরিচয় জানা যায়নি। বিজিবির দাবি, নিহত যুবক ইয়াবা কারবারি। ঘটনাস্থল থেকে ১ লাখ ইয়াবা, একটি এলজি উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় বিজিবির দুই সদস্য আহত হয়েছেন।

রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যদের সঙ্গে পৃথক বন্দুকযুদ্ধে দুই ইয়াবা কারবারি নিহত হয়েছে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে ৩ লাখ ৯০ হাজার ইয়াবা ও ২টি বন্দুকসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। ওইদিন ভোররাত আনুমানিক ৪টার দিকে কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের তুলাতলী জলিলের গোদা ও টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের দমদমিয়া ন্যাচারপার্ক ডাবল জোড়া এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

ঘটনাস্থল তল্লাশী চালিয়ে ৫০ হাজার ইয়াবা ও এক নলা একটি বন্দুক উদ্ধার করে। পরে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ইউনিয়নের ডেইলপাড়া এলাকার সৈয়দ নুরের ছেলে শাহাজাহান(২৭)কে উদ্ধার করে উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার বিরুদ্ধে মাদক ও ডাকাতির অভিযোগে ১০টিরও অধিক মামলা রয়েছে।

এদিকে, টেকনাফ ২নং বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান জানিয়েছেন, গোপন সংবাদে জানা যায় যে মিয়ানমার থেকে নৌকাযোগে নাফনদী সীমান্ত দিয়ে ইয়াবার একটি বড় চালান আসবে। এ খবরের ভিত্তিতে বিজিবির সদস্যরা আগে থেকে ওই এলাকায় উৎপেতে থাকে। পরবর্তীতে নৌকাটি বাংলাদেশের জলসীমানায় প্রবেশেকালে কয়েকজন মাদক পাচারকারিকে দেখতে পায় বিজিবি। এ সময় বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি করতে থাকে পাচারকারিরা। আত্মরক্ষার্থে বিজিবি সদস্যরাও গুলি চালায়।

এক পর্যায়ে একজন গুলিবিদ্ধ হয়ে পড়ে তার মৃত্যু হয়। পরে নাফনদীর পাড়ে কেওড়া বাগানের ঘটনাস্থলে তল্লাশি চালিয়ে ৩ লাখ ৪০ হাজার ইয়াবা ও একটি বন্দুক ও একটি দারালো কিরিচ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান ফয়সল হাসান। নিহত যুবকের পরিচয় নিশ্চিত হতে পারেনি বিজিবি। এ ব্যাপারে টেকনাফ থানায় সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা দায়ের করেছে বিজিবি।

উল্লেখ্য, কক্সবাজারসহ রোহিঙ্গা ক্যাম্পজুড়ে বেড়েই চলেছে অপহরণ ও মাদক কারবার। এসব দমনে সচেষ্ট রয়েছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তারপরও প্রতিদিনই ঘটছে এমন ঘটনা। বেড়েছে মাদক কারবারিদের দৌরাত্ম্য। এদিকে দিন দিন যেন শক্তিশালী হচ্ছে মাদকের নেটওয়ার্ক। চলছে অভিযান, তবু থামছে না কারবার।

আরো সংবাদ