কক্সবাজার সৈকতে বিলীন হচ্ছে ঐতিহ্যের ঝাউবন - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৭-২৪ ১০:৩০:৪৩

কক্সবাজার সৈকতে বিলীন হচ্ছে ঐতিহ্যের ঝাউবন

সৈকতে বিলীন হচ্ছে ঐতিহ্যের ঝাউবন
Spread the love

বিশেষ প্রতিবেদক  : কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সৌন্দর্য বর্ধনকারী সবুজ বেষ্টনী ঝাউ বাগান সমুদ্র গর্ভে হারিয়ে যাচ্ছে। এ নগরীর সৌন্দর্য বর্ধনকারী ঝাউবন এখন হুমকির মুখে পড়েছে। এতে সমুদ্র সৈকত সৌন্দর্য হারাচ্ছে, হারিয়ে যাচ্ছে জীববৈচিত্র,পরিবেশ সংকটের মুখে পড়ছে পর্যটন নগরী কক্সবাজার।

এদিকে টানা কয়েকদিনের ভারী বর্ষণের কারণে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বেড়ে যাওয়া ও ঢেউয়ের ধাক্কায় ভাঙছে বালিয়াড়ি। আর সমুদ্র গর্ভে হারিয়ে যাচ্ছে ঝাউবন। বর্ষা মৌসুমে সমুদ্রের ভয়াবহ ঢেউ আছড়ে পড়ে উপকূলে।

এতে ঢেউয়ের আঘাতে ভাঙছে বালিয়াড়ি, উপচে পড়ছে সৈকতের ঝাঁউগাছ ও ভেঙে তছনছ হচ্ছে সৈকত সড়ক। সমুদ্রের ঢেউয়ের ধাক্কায় গেল কয়েক বছর ধরে প্রতি বর্ষা মৌসুমে সৈকতের বালিয়াড়ী ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারণ করে। ভাঙ্গনে বিলীন হয়েছে প্রায় ৩ শত হেক্টর ঝাউ বাগান।

জানাগেছে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে ১৯৭২-৭৩ সালে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের বালিয়াড়িতে ঝাউবন গড়ে তোলা হয়। এ সময় বালিয়াড়ির প্রায় ৫শ হেক্টর জায়গায় লাগানো হয় সাড়ে ১২ লাখেরও বেশি ঝাউগাছ। পরে বাগানের আয়তন আরও বাড়ে। এই সবুজ বেষ্টনী সমুদ্র সৈকতের সৌন্দর্য বাড়ানোর পাশাপাশি প্রাকৃতিক দুর্যোগে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকেও রক্ষা করে।

সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বেড়ে যাওয়ায় বর্ষা মৌসুমে সাগরের ঢেউয়ের ধাক্কায় ভাঙছে বালিয়াড়ি ও সড়ক। গেল কয়েক বছরে প্রায় ৩ শ হেক্টর বাগানের প্রায় ৬ লাখের বেশি ঝাউ গাছ সমুদ্র গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। তাই স্থানীয়রা দ্রæত সময়ের মধ্যে শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ ও সৈকতের বালিয়াড়িতে শেকড়যুক্ত গাছ রোপণের দাবি জানান।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষাকারী এ সবুজ বেষ্টনী রক্ষায় এরই মধ্যে নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন, কক্সবাজারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্বামী। তিনি আরও জানান, সরকারের উচ্চ পর্যায়ে কক্সবাজারের ঝাউবন রক্ষায় আলোচনা হয়েছে। খুব শিগগিরই ঝাউবন রক্ষায় একটি বাঁধ নির্মাণেরও পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। যা দ্রæত বাস্তবায়ন করবে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

কক্সবাজার শহরের নুনিয়ারছড়ার বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম জানান, সৈকতের ঝাউবাগান প্রতি বছরে জোয়ারের তোড়ে ভেসে যায়। চলতি বর্ষায় জোয়ারের পানি আরও বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। জোয়ারের পানিতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হচ্ছে ঝাউবনের।

সৈকত এলাকার নাসির সিকদার জানান, সৈকতে সামুদ্রিক জোয়ারের পানির তোড়ে যে হারে ঝাউগাছ বিলীন হচ্ছে, সেই হারে নতুন বনায়ন হচ্ছে না। তিনি কক্সবাজার শহরটি রক্ষার জন্য এবং পর্যটন শহরের সৌন্দর্য রক্ষার স্বার্থে সৈকতে নতুন করে ঝাউ গাছ লাগানোর দাবি জানিয়েছেন।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মামুনুর রশিদ জানান, ‘বঙ্গবন্ধুর রোপণকৃত ঝাউবন রক্ষায় কাজ চলছে। কিভাবে ঝাউবন রক্ষা করা যায় সে ব্যাপারে আমরা আলোচনা করছি। যেহেতু এটা কক্সবাজারের ঐতিহ্য, তা রক্ষা করা অবশ্যই প্রয়োজন। তিনি আরও জানান, ভাঙ্গন রোধের পাশাপাশি ঝাউ বাগান সৃজন করে প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, ঝাউবন ক্রমশ বিলীন হয়ে যাওয়ায় একদিকে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত যেমন সৌন্দর্য হারাচ্ছে, অন্যদিকে পরিবেশ বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে পর্যটন শহর কক্সবাজার। গত কয়েক বছরে বিলীন হয়ে গেছে ৬ লাখেরও বেশি ঝাউ গাছ।

আরো সংবাদ