সৈকতে ভেসে আসা তিমি ২টির দেহ ফুতে ফেলা হয়েছে - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৬ মে ২০২১ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৪-১০ ১১:১৪:৪৬

সৈকতে ভেসে আসা তিমি ২টির দেহ ফুতে ফেলা হয়েছে

তিমির দেহ পুতে ফেলা হয়েছে,হিমছড়ি সৈকতে ফের ভেসে এলো ৪২ ফুট লম্বা তিমির দেহ

বিশেষ প্রতিবেদক : কক্সবাজারের রামু উপজেলার হিমছড়ি সমুদ্র সৈকতে ভেসে এসেছে আরও একটি বিশালাকার মৃত তিমি। শনিবার (১০ এপ্রিল) সকাল ৯টার দিকে হিমছড়ি বড় ঝর্ণার দক্ষিণের সমুদ্র সৈকতে এ মৃত তিমিটি পানিতে ভেসে বালিয়াড়িতে আটকে পড়ে। এনিয়ে গত ২দিনে দুইটি মৃত তিমি ভেসে আসে। ভেসে আসা এ দুটি তিমির শরীরে পঁচন ধরেছে এবং প্রায় গলিত। তিমিটির দৈর্ঘ্য ৪২ ফুট ও প্রস্থ ১৪ ফুট।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে হিমছড়ি সৈকতে ভেসে আসা বিরল প্রজাতির নীল তিমি ২টির নমুনা সংগ্রহ করে মাটিতে ফুতে ফেলা হয়েছে। শনিবার (১০ এপ্রিল) বিকালে জেলা প্রশাসনের নিদের্শে রামু প্রশাসনের তত্বাবধানে মৃত তিমি ২টি মাটিতে পুতে ফেলা হয়। এতে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন মীর আক্তার হোসেন লিমিটেড ও তাজ ট্রেডিং নামের দুই প্রতিষ্ঠান।

কক্সবাজার সমুদ্র সম্পদ রক্ষা আন্দোলনের সমন্বয়ক মফিজুর রহমান মফিজ কক্সবাজার কন্ঠকে জানিয়েছেন, ২টি কারণে তিমি মাছ মারা যায়। প্রথমত, বয়সকাল পার হলে তিমি আত্মহত্যা করে থাকে। দ্বিতীয়ত, বঙ্গোপসাগরে জাহাজ চলাচলের সময় আঘাতের কারণে তিমি দুটি মারা যেতে পারে। তিমিটি দৈর্ঘ্য ৪২ ফুট ও প্রস্থ ১৪ ফুট এবং
ওজন আনুমানিক আড়াই টনের মতো হবে।

এদিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগের কর্মকর্তা হুমাযুুন কবির। ওই সময় তিনি জানিয়েছেন, পরপর দুটি মৃত তিমি সাগর থেকে ভেসে এসেছে। ভেসে আসা তিমি দুটির নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। নমুন পরীক্ষার পর জানা যাবে কিভাবে তিমি দুটি মারা গেছে। তবে প্রাথমিকভাবে আমরা ধারণা করতে পারি তিমি দুটি বয়স্ক জনিত কারণে মারা যেতে পারে এবং ১০ থেকে ১২দিন আগে এই তিমি দুটির মৃত্যু হতে পারে।

হুমায়ুন কবির জানান, দুর্গদ্ধ এড়াতে শুক্রবার সাগর পাড়ে আটকে থাকা তিমিটি উদ্ধার করে মাটিতে পুতে ফেলা হয়েছে। এটিরও একইভাবে মাটিতে পুতে ফেলা হয়েছে। তবে ২ মাস পর তিমি দুটির কঙ্গাল সংগ্রহ করা হবে। এটি বিভিন্ন মিউজিয়ামে এবং পরবর্তীতে গবেষনার কাজে আসবে। তিমিটির দৈর্ঘ্য ৪২ ফুট ও প্রস্থ ১৪ ফুট।

কক্সবাজার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এসএম খালেকুজ্জামান কক্সবাজার কন্ঠকে জানিয়েছেন, জোয়ারের পানিতে এই পর্যন্ত দুইদিনে দুটি মৃত তিমি মাছ ভেসে এলো। এ কারণে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের সমন্বয়ে যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে এখনও জানা সম্ভব নয়। ময়না তদন্তের পরই বিস্তারিত বলা সম্ভব বলেও তিনি জানান।

কক্সবাজার মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো: আশরাফুল হক কক্সবাজার কন্ঠকে জানিয়েছেন, সাগরে তিমি কয়েক প্রকার রয়েছে। কিন্তু, ভেসে আসা এই দুটি তিমি আসলে কোন প্রকার সেটিও চিহ্নিত করা যাচ্ছে না। এটি নমুনা সংগ্রহ করে ব্যাপক গবেষনার প্রয়োজন রয়েছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আমিন আল পারভেজ কক্সবাজার কন্ঠকে জানিয়েছেন, জোয়ারের পানিতে ভেসে আসা প্রথম তিমিটি রাতে মাটি চাপা দিয়ে পুতে ফেলা হয়েছে। একইভাবে শেষের তিমিটিও নমুনা সংগ্রহের পর মাটিতে পুতে ফেলা হয়েছে।

এদিকে বিশাল আকার মৃত তিমি ভেসে আসার খবরে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসন, স্থানীয় বন বিভাগ ও ও জেলা মৎস্য অধিদপ্তরসহ বিভিন্ন পরিবেশবাদী সংগঠনের একাধিক টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে কি কারণে কিভাবে মাছগুলো মারা যাচ্ছে সে বিষয়ে বিস্তারিত কেউ মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

উল্লেখ্য, শুক্রবার বেলা ১১ টার দিকে কক্সবাজারের হিমছড়ি সমুদ্র সৈকতে বিশালাকার তিমি মাছটি বালিয়াড়িতে আটকা পড়ে। একইভাবে শনিবার সকালে আরও একটি তিমি মাছ ভেসে সৈকতে বালিরচরে আটকে পড়ে।

আরো সংবাদ