সৈকত পাড়ে পর্যটকের ভিড় : মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৯-০৪ ০৯:০৭:০৭

সৈকত পাড়ে পর্যটকের ভিড় : মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি

সৈকত পাড়ে পর্যটকের ভিড় : মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি
Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদক :  কোভিড-১৯ এর দ্বিতীয় ঢেউয়ের পর কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত উন্মুক্ত করে দেওয়ার পর বাড়ছে পর্যটকের ভিড়। বিশেষ করে সাপ্তাহিক ছুটির দিনে পর্যটকের আগমন বাড়ছে কয়েকগুণ। তবে কোথাও নেই স্বাস্থ্য বিধির বালাই। পর্যটক থেকে শুরু করে সৈকতের ব্যবসায়ীরা মানছে না বিধি-নিষেধ।

করোনা মহামারিতে প্রায় ৫ মাস পর্যটক শূন্য ছিল সৈকত নগরী কক্সবাজার। তবে বিধি-নিষেধ দিয়ে সকল পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেয়ার পর স্বরূপে ফিরছে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত।

প্রতিদিন বাড়ছে পর্যটকের আগমন। বিশেষ করে সাপ্তাহিক ছুটির দিনে পর্যটকের আগমন বাড়ছে কয়েকগুণ। সবাই আনন্দ আর হৈ-হুল্লোড়ে মেতে উঠছেন সাগর পাড়ে।

শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর ) দুপুরে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত তীরে দেখা যায় পর্যটকের ভিড়। এতে কোথাও নেই স্বাস্থ্য বিধির বালাই। অন্যদিকে শহরের প্রধান প্রধান সড়কে থমকে আছে যানজট। যেনো ভিড় আর ভিড়। কোথাও নেই স্বাস্থ্য বিধি মানার লক্ষণ।

ঢাকা হতে আগত পর্যটক খালেদ সাইফুল্লাহ বলেন, আশা করিনি কক্সবাজার সৈকতে এতো মানুষ আসবে। মনে করেছিলাম অল্প মানুষ আসবে। এখন সৈকতে অনেক মানুষ। যেটা কল্পনা বাইরে। যদি মানুষ কম হতো, তাহলে ঘোরাঘুরিতে একটু মজা পেতাম। কিন্তু মানুষ বেশি হওয়াতে বেশি ঘোরাফেরা করা যায়নি।

সোহেল নামের আরেক পর্যটক বলেন, অনেকদিন লকডাউনের কারণে কোথাও যাওয়া হয়নি। এখন লকডাউনের সময় পার করে সৈকতে ঘুরতে এসে বেশ ভালো লাগছে। তবে সবাই একটু সচেতন হলে আরও ভালো হতো।

এদিকে সৈকতের প্রবেশদ্বারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে চলছে করোনার স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে মাইকিং। তবে আগত পর্যটকরা মানছেন না সেই নির্দেশনা। ব্যবহার করছেন না মাস্ক। সৈকতের বালিয়াড়িতেও একই অবস্থা। পর্যটক থেকে শুরু করে সৈকতের ব্যবসায়ীরা স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদাসীন।
তবে পর্যটক আগমন বাড়ায় স্বস্তিতে হোটেল মোটেল, রিসোর্ট ও গেস্ট হাউস মালিকরা। তারা বলছেন সরকারি নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনেই তারা হোটেল পরিচালনা করছেন।

হোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের মুখপাত্র আবু তালেব শাহ বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দিতে দীর্ঘ ৫ মাস কক্সবাজারের সকল পর্যটন কেন্দ্র বন্ধ ছিল। তবে ১৯ আগস্ট হতে সমুদ্র সৈকতসহ সকল পর্যটন কেন্দ্র পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত হয়। তিনি আরও বলেন, সরকারি নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে হোটেল মোটেল পরিচালনা করা হচ্ছে।

আরো সংবাদ