সোনার পাড়ায় স্থানীয় প্রশাসনের সাথে জনতার হামলা! - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৬ মে ২০২১ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৫-০২ ১৩:১২:৪৩

সোনার পাড়ায় স্থানীয় প্রশাসনের সাথে জনতার হামলা!

সোনার পাড়ার ঘটনায় ৩ মামলা, আসামী ১৩৮ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজারের উখিয়ার সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে মাঠে সরকারি ভবণ নির্মাণকে কেন্দ্র করে একদল উশৃংখল জনতা শিক্ষক ও উপজেলা প্রশাসনের উপর হামলা চালিয়েছে। এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) গাড়ীতে ভাংচুর চালায়। এ ঘটনায় ৩ জন স্কুল শিক্ষকসহ ৫ জন আহত হয়েছে। পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে ২ জনকে আটক করেছে। রোববার (২ মে) বেলা ৩টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটে। ঘটনার পর থেকে পরিস্থিতি থমথমে বিরাজ করলেও বর্তমানে প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে স্বাভাবিক রয়েছে। বিকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মামুনুর রশিদ ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উখিয়া উপজেলার সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের স্কুল মাঠে সরকারি ভবন নির্মাণ করার জন্য সংশ্লিষ্ঠ ইঞ্জিনিয়ারসহ স্কুলের শিক্ষকরা উপস্থিত হয়ে খুঁটি স্থাপনের সময় আবু ছৈয়দ ফজলী ও মোহাম্মদ হোসনের নেতৃত্বে একদল উশৃংখল জনতা স্কুল শিক্ষকদের উপর হামলা চালায়৷

এতে বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মিলন বড়ুয়া, সহকারি শিক্ষক বাবুল ও শামশুল আলম ভুলু গুরুতর আহত হয়। তাদেরকে উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া স্থানীয় জনতা স্কুলের তালা, সিসি ক্যামরা, দরজা, জানালা ভাংচুর করে।
পরে খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উখিয়া সহকারি কমিশনার (ভূমি) ঘটনাস্থলে পৌঁছলে সংঘবদ্ধ জনতা দুই কর্মকর্তার গাড়ীতে ইট-পাটকেল ছুড়ে সরকারি গাড়ীর গ্লাস ভাংচুর করে। পুলিশ ফাঁকা টিয়ারসেল নিক্ষেপ করলে উশৃংখল জনতা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। ওই সময় দেলোয়ার ও হাসিনা বেগম নামে ২ জন আহত হয়। তাদেরকেও উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে৷

পুলিশ এ ঘটনায় অভিযান চালিয়ে আবু ছৈয়দ ফজলি ও মোহাম্মদ কালু নামে ২ জনকে আটক করে ৷ শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত উখিয়া-টেকনাফের সহকারি পুলিশ সুপার শাকিল আহমেদ ও থানার ওসি আহাম্মদ সঞ্জুর মোরশেদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত রয়েছেন এবং পুলিশি অভিযান অব্যাহত রেখেছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে উখিয়া থানার ওসি আহমেদ সঞ্জুর মোর্শেদ জানান, সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি নতুন ভবন নির্মাণকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় লোকজনের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিলো। এর মধ্যে প্রশাসনিক জটিলতা সম্পন্ন করে রোববার ওই ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করতে যান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন আহমেদ ও সহকারী কমিশনার (ভূমি)।

কিন্তু ওই সময় বিরোধীতাকারী লোকজন ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের বাঁধা দেন। তারা উত্তেজিত হয়ে নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর গাড়ি ভাংচুর করেছে। এর মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে ঘটনা নিয়ন্ত্রণের জন্য পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এসময় পুলিশ ও এলাকাবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ সৃষ্টি হয়।
স্থানীয় লোকজন দাবি করেন, পুলিশের ছোঁড়া শর্টগানের গুলিতে মহিলাসহ স্থানীয় ৩ জন গুলিবিদ্ধ হয়। এছাড়া আহত হয় আরও অন্তত ১৫ জনের বেশি।
এবিষয়ে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিজাম উদ্দিনের আহমদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনাস্থলে ব্যস্ত থাকায় কথা বলা সম্ভব হয়নি৷
পরে সহকারি কমিশনার (ভূমি) আমিমুল এহসান খানের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলার মাঠে সরকারি স্কুল ভবন নির্মাণকে কেন্দ্র করে শিক্ষকদের উপর হামলা চালায় কিছু দুষ্কৃতিকারী। খবর পেয়ে আমি এবং ইউএনও ঘটনাস্থলে গেলে তারা অতর্কিতভাবে আমাদের গাড়ীতে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে আমার গাড়ীর দুই সাইডের গ্লাস এবং ইউএনও গাড়ীর সাইডে ও পেছনের গ্লাস ভেঙ্গে যায়। এ ঘটনায় ২ জনকে আটক করা হয়েছে।

আরো সংবাদ