স্বামী থাকতে ১৩ বছর ধরে বিধবা ভাতা! - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ১৯ জুন ২০২১ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৫-০৫ ১১:৩৩:২৮

স্বামী থাকতে ১৩ বছর ধরে বিধবা ভাতা!

স্বামী থাকতে ১৩ বছর ধরে বিধবা ভাতা!
Spread the love

মো. আরফাত হোসাইন : স্বামী-সন্তান সবই আছে। তবুও তাকে দেয়া হচ্ছে বছরের পর বছর বিধবা ভাতা। বিধবা না হয়ে ২০০৮ সাল থেকে নিয়মিত ভাতা গ্রহণকারী এই নারীর নাম হালিমা বেগম। তিনি রাউজানের গহিরা ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের কোতোয়ালীঘোনা গ্রামের খুলন মিয়া মাস্টার বাড়ির বেদারুল ইসলামের স্ত্রী।

গহিরা ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত ভাতাভোগী বিধবা নারীদের তালিকায় ১২ নং ক্রমিকে উপকারভোগীর আইডি নং ০২১৫০০৩০৯৭৭ এ হালিমার নাম রয়েছে। তালিকায় তার মায়ের নাম ছকিনা খাতুন ও বাবার নাম লেখা আছে মফজ্জল আহমদ। জন্মের সাল ১৯৭২।

স্থানীয়রা জানায়, হালিমা স্বামীসহ প্রবাসী সন্তানকে নিয়ে মোটামুটি সুখের সংসারে থাকলেও বিধবা ভাতার তালিকায় স্বামীকে মৃত দেখিয়ে বছরের পর বছর সরকারি ভাতা গ্রহণ করে আসছেন। অথচ গ্রামের অনেকেই আছেন যারা বিধবা, বয়স্ক ভাতা পাওয়ার আশায় মাসের পর মাস মেম্বার-চেয়ারম্যানের ঘরে ধর্ণা দিলেও ভাতা পাচ্ছেন না। জনপ্রতিনিধিদের দেব, দিচ্ছি এই আশ্বাসে তারা ঘরে ফিরছেন।

গহিরা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের একজন বাসিন্দা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, গত ২০১৯ সালে জরিয়া বেগমের স্বামী মারা যান। এই নারীকে বিধবা ভাতার তালিকাভূক্ত করার জন্য মেম্বারকে অনুরোধ করা হয়েছিল। কিন্তু এখন পর্যন্ত কাজ হয়নি।

এ বিষয়ে স্থানীয় মেম্বার আয়ুব খানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, হালিমার স্বামী থাকলেও বিএনপি সরকারের আমল থেকে তিনি ভাতা পাচ্ছেন। সেই সময়ে বিএনপি’র নেতৃবৃন্দ তাকে তালিকাভুক্ত করেছেন। এই ঘটনায় আমার দায় নেই।

গহিরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আবসার বাশি বলেন, হালিমার স্বামী যে জীবিত আছেন তা আমি জানতাম না। মেম্বারের (ইউপি সদস্য) সাথে আলাপ করে জেনেছি বিএনপি’র আমল থেকে হালিমা ভাতা পেয়ে আসছেন।

জানতে চাইলে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য নিশ্চিত হলে ওই ভাতাভোগীর নাম বাদ দেওয়া হবে।’

আরো সংবাদ