স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে শুঁটকি মাছ উৎপাদনের বিকল্প নেই - কক্সবাজার কন্ঠ

মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট ২০২২ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২২-০৬-৩০ ১৩:০৪:৫৩

স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে শুঁটকি মাছ উৎপাদনের বিকল্প নেই

স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে শুঁটকি মাছ উৎপাদনের বিকল্প নেই
শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : পিকেএসএফ এর সহায়তায় কোস্ট ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে এসইপি প্রকল্পের আয়োজনে প্রোডাক্ট সার্টিফিকেশন বিষয়ক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (২৯ জুন) সকালে কক্সবাজার শ্রিম্প এন্ড হ্যাচারি এসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ (সেব) হলরুমে আয়োজিত এ কর্মশালায় বিভিন্ন দিক-নিদের্শনামূলক আলোচনা করেন বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের কক্সবাজার কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শফিকুর রহমান। উক্ত কর্মশালায় আরও আলোচনা করেন, চীফ সায়েন্টিফিক কর্মকর্তা (বিএফআরআই), ফারজিয়া হক, কক্সবাজার সদর খাদ্য নিরাপত্তা কর্মকর্তা, জহর লাল পাল।

এতে আলোচকগণ স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে শুঁটকি মাছ উৎপাদনের নিয়মাবলী সম্পর্কে জ্ঞান প্রদান, ঘাট-হাট থেকে মাছ কেনার করণীয় বিষয় সম্পর্কে জানানো, মাছ সংগ্রহের পরবর্তী বিষয়সমূহ তুলে ধরা,
শুঁটকি মাছের অর্থনৈতিক গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা বোঝানো, নিরাপদ ও প্রযুক্তিনির্ভর উপায়ে শুঁটকি উৎপাদনের সুফল সম্পর্কে ধারণা দেন। পাশাপাশি, ভোক্তার চাহিদা মেটাতে স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে শুঁটকি উৎপাদনের জন্য মাঠ পর্যায়ে উদ্ভাবিত নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার সম্পর্কেও সকলকে জানানো হয়।

এছাড়াও,স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে শুঁটকি উৎপাদনের জন্য উদ্ভাবিত নতুন প্রযুক্তি মাঠ পর্যায়ে ব্যবহারের মাধ্যমে দরিদ্র শুঁটকি উৎপাদনকারী জনগণের আয় বৃদ্ধি করে দেশের অর্থনীতি ও খাদ্য নিরাপত্তার ঝুঁকি হ্রাস করা, এবং উচ্চ গুণগতমান সম্পন্ন শুঁটকি মাছ ও মাছের পণ্য বিপণনের জন্য প্রোডাক্ট সার্টিফিকেশন করানোও এই প্রশিক্ষণের অন্যতম একটি উদ্দেশ্য।

আলোচনাকগণ আরও বলেন, পুষ্টিমানসমৃদ্ধ নানান সুস্বাদু খাবারের খাদ্যতালিকায় শুঁটকি মাছ একটি জনপ্রিয় খাবার। মানুষের নিয়মিত খাদ্যচাহিদা মেটাতে শুঁটকি মাছ একটি অন্যতম পরিবেশনা। শুঁটকি মাছে ৬৫-৭০% আমিষ ও ১৫-২০% চর্বি জাতীয় পদার্থ থাকে। বছরে প্রায় ৫.৪৬ লক্ষ মেট্রিক টন মাছ আহরিত হয় সমুদ্র থেকে যার ২০% শুঁটকি হিসাবে প্রক্রিয়াজাতকরণ করা হয়। সমুদ্র হতে প্রাপ্ত ৮-১০ প্রজাতির মাছ বাণিজ্যিকভাবে শুঁটকি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়, যেমন- লাক্ষ্যা, রুপচাঁদা, লইট্টা ইত্যাদি। প্রজাতিভেদে এক কেজি শুঁটকি মাছ তৈরিতে প্রায় ৩-৪ কেজি কাঁচা মাছের প্রয়োজন পড়ে।

পাশাপাশি, উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহার প্রসঙ্গে আলোচকগণ বলেন, মাচা ও ফিশ ড্রায়ার হলো আধুনিক পদ্ধতিতে শুঁটকি মাছ উৎপাদনের প্রক্রিয়া। এর ব্যবহার নতুন করে সকলকে আয়ত্তে করতে হবে। প্রয়োজন হলে অভিজ্ঞ লোকদের সাহায্য নিয়ে কাজ করতে হবে। ফিশ ড্রায়ারে সকল ধরণের মাছ শুকানো যায় এবং ২৪ ঘন্টা ব্যবহার করা যায়। তাই প্রত্যেক শুঁটকি উৎপাদনকারীর নিজ নিজ মাচা ও ড্রায়ারের ব্যবহার আরম্ভ করা জরুরি বলে বলা হয়।

ওয়ার্কসপ পরিচালনা করেন এসইপির টেকনিক্যাল অফিসার, মো. সাথীল তালুকদার। প্রকল্প ম্যানেজার তানজিরা খাতুনের স্বাগত বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে শুরু হওয়া কর্মশালায় সাথীল তালুকদার প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্য ও প্রশিক্ষণকালীন নিয়ম-শৃঙ্খলা সম্পর্কে প্রশিক্ষণার্থীদের অবহিত করেন। এছাড়াও, প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারীদেরকে উপকূলীয় গ্রামগুলোতে প্রচলিত মৎস্য ও শুটকি উৎপাদনের ক্রিয়াকলাপ, প্রক্রিয়াজাতকরণ ও বিপণন সম্পর্কে একটি সংক্ষিপ্ত বর্ণনা দেয়া হয়।

উক্ত আয়োজনে প্রকল্প বাস্তবায়নকারী ৪ সদস্য, কক্সবাজার সদরের বিভিন্ন মার্কেটের শুটকি বিক্রেতা, নারী উদ্যোক্তাসহ এসইপি প্রকল্পের সহায়তায় অনলাইন এবং অফলাইনে শুঁটকি ব্যবসা পরিচালনাকারীগণ উপস্থিত ছিলেন।


শেয়ার করুন

আরো সংবাদ