হংকং স্পা সেলুনে অভিযান, দফারফায় পন্ড - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২২ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৫-০৮-২২ ১৫:২৭:১২

হংকং স্পা সেলুনে অভিযান, দফারফায় পন্ড

সংবাদটি শেয়ার করুন

Cox's Pic (1)

বিশেষ প্রতিবেদক:

কক্সবাজার কলাতলীতে দীর্ঘদিন যাবত হংকং সেলুন এন্ড স্পা’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান উঠতি বয়সের তরুণী দিয়ে নানা অপকর্ম করে আসছিলো। প্রতিনিয়ত অনৈতিক কর্মকান্ডের অভিযোগের ভিত্তিতে ২২ আগস্ট বিকেলে হোটেল এ্যাইলেন্ডডিয়া’র হংকং সেলুন এন্ড স্পা নামক প্রষ্ঠিানে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালায়। এ সময় ৬ জন তরুণী, ৩ জন স্পা সেবা গ্রহনকারিসহ প্রতিষ্ঠানের মালিককে আটক করে। কিন্তু আটকের ২/৩ মিনিটের মধ্যে অভিযানের পুরো সেন্টিমেন্ট পরিবর্তন হয়ে যায়। জেলা প্রশাসনের এক উর্ধতন কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে অনৈতিক কর্মকান্ডে লিপ্ত থাকা ৬ তরুণী, ৩ জন সেবা গ্রহনকারি, অনুমোদনহীন হরেক রকম স্পা ক্রীমসহ নানা পণ্য পাওয়ার পরেও এ্যাকশনে যেতে পারেনি অভিযান পরিচালনাকারি টিম। অভিযোগ উঠেছে অভিযান পরিচালনাকারি কর্মকর্তার সৎ সাহস থাকার পরেও নিরুপায় হয়ে নামমাত্র ৫শ’ টাকা জরিমানা করে স্থান ত্যাগ করতে হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সোহাগ চন্দ্র সাহা কর্তৃক পরিচালিত ভ্রাম্যমান আদালতের কার্যক্রম নিয়ে তিনি ইতিপূর্বে খুবই প্রসংশনীয় হয়েছে। কারন প্রায় অভিযানে সততার দৃষ্টান্ত রেখে ভ্রাম্যমান আদালতের প্রতি সকলের আস্তা কেড়েছে। কিন্তু অভিযোগ উঠেছে এ অভিযানে উক্ত কর্মকর্তার সৎ সাহস থাকার পরেও যথাযত আইন প্রয়োগে বাধা গ্রস্থ করেছে উপর মহল। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপস্থিত এক ব্যক্তি জানান, ম্যাজিষ্ট্রেট সোহাগ চন্দ্র সাহা অভিযান চালিয়ে ৬ জন তরুণী, ৩ জন সেবা গ্রহনকারি ও প্রতিষ্ঠানের মালিক নুরুল কবীর পাশা প্রকাশ পলকে আটক করে। কিন্তু ওই সময় পলক অভিযানে বাধাগ্রস্থ করে জেলা প্রশাসনের এক উর্ধতন কর্মকর্তাকে ফোন করে। পরে ওই কর্মকর্তা দায়িত্বরত কর্মকর্তাকে ফোন করলে এক পর্যায়ে মোবাইলে নানা কথাবার্তা হয়। সব শেষ ভ্রামমান আদালতের মাধ্যমে যেন এ অপকর্মকারিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া না হয় সে জন্য প্রশাসনের আরো দুই জন ম্যাজিষ্ট্রেট ঘটনাস্থলে পৌঁছে। এক পর্যায়ে নিরুপায় হয়ে নামমাত্র ৫শ’ টাকা জরিমানা করা হয় বলে জানা গেছে। তবে এ ব্যাপারে কলাতলীর হংকং সেলুন এন্ড স্পা’র মালিক নুরুল কবীর পাশা প্রকাশ পলক বলেন, একটি ক্রীমের বৈধতা না পেয়ে ৫শ’ টাকা জরিমানা করেন। ৬ জন তরুণী রেখে নানা অনৈতিক কর্মকান্ডের বৈধতার ব্যাপারে তিনি বলেন, আমারটা কোনো ফাইভ স্টার হোটেল নয়, অনুমতি থাকবে। তবে পর্যটন এলাকা হিসেবে অসহায় মেয়েদের দৈনিক ৫শ’ টাকা বেতনে স্পা’র কাজে নিয়োগ দিয়েছি। তারা নিজের ইচ্ছায় এসব কাজ করছে। আমি জুর করে করাচ্ছিনা। এ সব অনৈতিক কর্মকান্ড করার পরও অভিযান পরিচালনাকারি টিমের এ্যাকশন ভেস্তে যাওয়ার ব্যাপারে তিনি আরো বলেন, আমি দীর্ঘ সময় ঢাকায় কি করেছি। হেসে হেসে বলেন আমি ছোট মানুষ যে টুকু ক্ষমতা আছে দেখালাম। এদিকে প্রতিষ্ঠানের মালিক পলক স্পা ক্রীমের জন্য ৫শ’ টাকা জরিমানার কথা বললেও একটি সূত্র জানায়, সরকারি কাজে বাধা প্রদানের অভিযোগে ৫শ’ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানা প্রদানকারী হলো সেলুনের মালিক কামাল পাশার পুত্র নুরুল কবির পাশা। তবে স্থানীয়দের অভিযোগ, কক্সবাজার কলাতলীর হোটেল এ্যাইলেন্ডডিয়া’র দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় সেলুনের আড়ালে দীর্ঘদিন যাবত দেহ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে কর্তৃপক্ষ।


সংবাদটি শেয়ার করুন
 
     
  
      

আরো সংবাদ