হামুন'র তান্ডব : শহরতলীতে চলছে খোলা আকাশের নিচে পাঠদান - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-১০-৩০ ১২:৩৬:৪৯

হামুন’র তান্ডব : শহরতলীতে চলছে খোলা আকাশের নিচে পাঠদান

হামুন'র তান্ডব : শহরতলীতে চলছে খোলা আকাশের নিচে পাঠদান

নিজস্ব প্রতিবেদক :  কক্সবাজার পৌরসভার ব্যতিক্রমধর্মী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল কুতুব একাডেমিতে চলছে খোলা আকাশের নীচে পাঠদান। গেল ২৪ অক্টোবর ঘুর্ণিঝড় হামুনে আঘাতে লন্ডভন্ড হয়ে পড়ে কক্সবাজারের বিভিন্ন এলাকা। ঘূর্ণিঝড়ের পরে ধ্বংস হওয়া প্রতিষ্ঠানটি পুনঃনির্মাণে এখনও কেউ এগিয়ে আসেনি। ফলে শিক্ষার্থীদের পাঠদানসহ সার্বিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে।

গেল কয়েকদিন ধরে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কখনও খোলা আকাশের নিচে কখনও বা খেলার মাঠে পাঠদান করা হচ্ছে। তবে এখনও সংশ্লিষ্ট কেউ প্রতিষ্ঠানটি মেরামতে এগিয়ে আসেনি বলে জানাগেছে।

কক্সবাজার পৌরসভার জরুরি সহযোগিতা তালিকায়ও নেই ঘুর্ণিঝড় হামুন’র তান্ডবে লন্ডভন্ড হওয়া এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি। দুর্যোগ মন্ত্রানালয়ের তালিকায়ও কি নেই ক্ষতিগ্রস্ত এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি এ প্রশ্ন এলাকাবাসীর। গরীব-অসহায় ও জলবায়ু উদ্বাস্তু জনগোষ্ঠীর শিশুসহ এতিমদের বিনা বেতনে পড়ালেখার সুযোগ পাওয়া ৩ শতাধিক ছাত্র ছাত্রী আগামী নভেম্বরে বার্ষিক পরীক্ষা দিতে না পারলে কিন্তু দায়ভার সকলের উপরে পড়তে পারে এমন অভিযোগও করে আসছেন অভিভাবকরা।

বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক হুমায়ুন সিকদার জানান, ২০০৪ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয়। প্রতিষ্ঠার পর ২০০৭ সালে বিদ্যালয়টি ইআইআইএন এ অন্তর্ভুক্ত করা হলে ২০১০ সালে বর্তমানে বিদ্যালয়ে ৩ শতাধিক শিক্ষার্থীর নিয়ে পাঠদান অব্যাহত রয়েছে। বিদ্যালয়ে ১০জন শিক্ষক পাঠদান কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। বিদ্যালয়টি পুনঃ নির্মাণ না হলে আগামী নভেম্বরে বার্ষিক পরীক্ষা থেকে বঞ্চিত হবে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা ফলে অংকুরেই শেষ হয়ে যাবে তাদের শিক্ষা জীবন। সরকারি-বেসরকারি সংস্থা, জনপ্রতিনিধি এবং বিত্তশালীদেরকে বিদ্যালয়ের পাশে দাঁড়ানোর জন্য তিনি অনুরোধ জানান।

এদিকে ওই স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী শাওন জানায়, ঘুর্ণিঝড়ে ক্ষতি হওয়া আমাদের বিদ্যালয়টি বিত্তবান-সরকারি বেসরকারি কোনো সংস্থা এগিয়ে না আসায় আমাদেরকে খোলা আকাশের নীচে বসে ক্লাস করতে হয়।

জাহাঙ্গীর নামক এক অভিভাবক বলেন, ২ দশকের প্রতিষ্ঠানটি এলাকায় শিক্ষা বিস্তারে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করেছে। এ বিদ্যালয়ের ছাত্র মেডিকেল কলেজ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, আইনজীবী, শিক্ষক ও খেলোয়াড় তৈরি করেছে যা এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমুহের ইতিহাসে এই প্রথম। এরকম একটি প্রতিষ্ঠান ঘুর্ণিঝড়ে বিলীন হওয়ায় পুনঃ নির্মাণে কেউ এগিয়ে না আসায় দুঃখজনক। এজন্য খোলা আকাশের নিচেই শিক্ষার্থীদের পাঠদান করাতে হচ্ছে শিক্ষকদের।

কক্সবাজার সোসাইটির সভাপতি কমরেড গিয়াস উদ্দিন জানান, একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া মানে একটি জাতি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া। প্রতিষ্ঠানটি এদেশের বা এই এলাকার সম্পদ এবং সরকারের শিক্ষা প্রসারে ভুমিকা রেখে আসছে।

উল্লেখ্য, গত বছরের ২৪ অক্টোবর ঘুর্ণিঝড় সিত্রাং এর আঘাতে এবং করোনাকালিন ২০২০ সালের ৫ এপ্রিল কালবৈশাখীর আঘাতে একইভাবে ক্ষতিগ্রস্ত-লন্ডভন্ড হওয়ার পরও উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কেউ সহযোগিতায় এগিয়ে আসেনি।

আরো সংবাদ