হে আল্লাহ আমাদের গোনাহসমূহ মাফ করে দিন - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১ ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৫-০৭ ২৩:০১:০১

হে আল্লাহ আমাদের গোনাহসমূহ মাফ করে দিন

হে মাবুদ আমাদের বিগত দিনের গোনাহসমূহ মাফ করে দিন
Spread the love

জুমার খুৎবা পূর্ব বয়ান জুমাতুল বিদায় লাখো মুসল্লির আমিন আমিন ধ্বনি…

শামসুল ইসলাম : লাখো মুসল্লির মুখে মুহুর্মুহু উচ্চারিত হয়েছে আমিন! আমিন! ধ্বনি। ‘হে আল্লাহ আমাদের বিগত দিনের গোনাহগুলো মাফ করে দিন। সকল প্রকার গোনাহ ও পাপাচার থেকে বেঁচে থাকার তৌফিক দান করুন। ঘরে ঘরে ছড়িয়ে পড়ুক ঈদের খুশি। গতকাল পবিত্র জুমাতুল বিদার পুণ্যময় দিনে সারা দেশের মসজিদগুলোতে মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভ এবং করোনা মহামারি থেকে মুক্তির জন্য নামাজ শেষে মোনাজাতে অগণিত মুসল্লি চোখের পানি ঝরিয়েছেন। দেশ জাতির সুখ-শান্তি উন্নতি এবং মুসলিম উম্মার কল্যাণ সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন সাধারণ মুসল্লিরা। রমজানের শেষ দশকে নাজাত বা জাহান্নাম থেকে মুক্তির সময়ে শেষ শুক্রবারে মুক্তিকামী ধর্মপ্রাণ আপামর জনসাধারণ আশা ও উৎসাহের সঙ্গে মসজিদে যান। রাজধানীসহ সারা দেশের মসজিদগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে উপচেপড়া ভিড় পরিলক্ষিত হয়। মহাখালীস্থ মসজিদে গাউছুল আজম কমপ্লেক্সেও যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে প্রচুর মুসল্লির সমাগম ঘটে। মসজিদের পেশ ইমাম ও খতিবরা জুমার বয়ানে মুসল্লিদের উদ্দেশে জুমাতুল বিদার গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরেন।

জুমাতুল বিদাসহ মাহে রমজানের প্রত্যেক জুমাবারে ইবাদত-বন্দেগিতে অধিক সওয়াব লাভের সুযোগ থাকে। পবিত্র কোরআনে জুমার নামাজ জামাতে আদায়ের নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে, ‘হে মুমিনরা! জুমার দিনে যখন নামাজের জন্য আহ্বান করা হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণে ধাবিত হও এবং ক্রয়-বিক্রয় ত্যাগ কর। এটাই তোমাদের জন্য শ্রেয়, যদি তোমরা উপলব্ধি কর।’ (সুরা আল-জুমুআ, আয়াত-৯)।

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মুফতি মিজানুর রহমান আজ জুমার বয়ানে বলেছেন, জুমার পুণ্যময় এ দিনে এমন একটি সময় আছে, যে সময় বান্দার মোনাজাত ও দোয়া আল্লাহ বিশেষভাবে কবুল করেন। জুমার দিনের শ্রেষ্ঠত্ব ও ফজিলত সম্পর্কে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘সপ্তাহের সাত দিনের মধ্যে জুমার দিন সর্বাধিক মর্যাদাবান।

রমজানের সর্বোত্তম দিবস হলো জুমাতুল বিদা। এ দিবসটি সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ও তাৎপর্যমণ্ডিত। রমজানের শেষ দশকে নাজাত বা জাহান্নাম থেকে মুক্তির সময়ে শেষ শুক্রবারে মুক্তিকামী ধর্মপ্রাণ আপামর জনসাধারণ আশা ও উৎসাহের সঙ্গে মসজিদে আসেন। সবাই নামাজ শেষে দুহাত তুলে আল্লাহর কাছে মোনাজাত করে আমিন! আমিন! ধ্বনির সঙ্গে মুহুর্মুহু উচ্চারিত হয়: ‘আল বিদা ইয়া মাহে রমাদান! আল বিদা;’ ‘আল বিদা আয় মাহে রহমাত! আল বিদা’ ‘আল বিদা হে মাহে মাগফেরাত! আল বিদা’ ‘আল বিদা মাহে নাজাত! আল বিদা।’
রমজানের রোজার শেষে এই ঈদ আসে বলে এর নাম ‘ঈদুল ফিতর’। সুতরাং ঈদুল ফিতর বিশ্ব মুসলিমের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মহাউৎসব। রমজানের বরকত লাভের জন্য ত্যাগ-তিতিক্ষা, কষ্টক্লেশ ও আয়াস সাধ্য সাধনার পর যে মাসটি সাফল্যের বার্তা নিয়ে আসবে, তা অবশ্যই মহান। শাওয়াল মাসের প্রথম দিনই ঈদ উৎসব। এই দিন উপলক্ষে জাকাত বা ‘সদকাতুল ফিতর’ তথা ফিতরা প্রদান করা হয়; যেন সমাজের নিম্নশ্রেণির মানুষ ও ঈদের আনন্দে শরিক হতে পারে। আল্লাহ আমাদের সবাইকে কবুল করুন। আমিন!

আরো সংবাদ