সংঘাতের ঘটনা বাড়ছে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে


জসিম সিদ্দিকী:কক্সবাজারের বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা সহিংস হয়ে উঠছে। প্রতিনিয়ত নিজেদের মধ্যে সংঘাতের ঘটনা বাড়ছে। তুচ্ছ ঘটনায় হামলা, সংঘর্ষ, খুনসহ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে মিয়ানমারের বাস্তুচ্যূত এই মানুষেরা। ফলে উদ্বেগ বাড়ছে।স্থানীয়দের দাবি, প্রত্যাবাসন ও ভাসানচরে স্থানান্তর প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করতে পরিকল্পিতভাবে করা হচ্ছে এসব অপরাধের ঘটনা। মাত্র কয়েকদিন আগে উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্পের একটি ব্লকে রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের মাঝে সংঘর্ষ সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় খুনের ঘটনাও ঘটে। এখন নিয়মিত এমন সংঘাতের ঘটনা ঘটছে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে। জড়িয়ে পড়ছে নানা অপরাধে। তুচ্ছ ঘটনায় হামলা, সংঘর্ষ, প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া, খুন এখন যেন নিত্য ব্যাপার। ফলে কক্সবাজার অঞ্চলে তৈরি হবে নিরাপত্তা সংকট এমনটা মনে করছেন স্থানীয়রা।
পরিসংখ্যান বলছে, গত দেড়বছরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৩০ জন মারা গেছে নানা ঘটনায়। অপহরণের শিকার ৩৭ জন। মোট ২৯৯টি ঘটনায় আসামী হয়েছে ৬১৮জন। কেবল নিজেদের মধ্যেই নয় স্থানীয় আর বিদেশিদের ওপরও মাঝে মাঝে চড়াও হচ্ছে আশ্রিত রোহিঙ্গারা।
স্থানীয় পর্যবেক্ষকদের দাবি, ক্যাম্পের ভেতরে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন গ্রুপ। ক্যাম্পের বেশিরভাগ ঘটনাই পরিকল্পিত। যার উদ্দেশ্য, মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন ও ভাসানচরে স্থানান্তর প্রক্রিয়া বানচাল করা।
কক্সবাজার পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন বলেন, এলাকা ভিত্তিক ক্যাম্পে বিভিন্ন দোকান থেকে চাঁদা আদায়, আধিপত্য বিস্তারসহ নানা কারনে রোহিঙ্গারা সহিংস হয়ে উঠছে। তবে এখন রোহিঙ্গাদের অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে সামনে তা ভয়ংকর রূপ নেবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*