অগ্রগতি নয়, অন্ধকারে তলিয়ে যাচ্ছে দেশ

দেশ অগ্রগতির দিকে নয়, বরং ‘অন্ধকারের অতলে’ তলিয়ে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। গতকাল গণভবনে রাজনীতিবিদের সম্মানে ইফতার মাহফিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় তিনি এই মন্তব্য করেন। আজ মঙ্গলবার নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন,’অবৈধ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য বাংলাদেশের জনগণের সঙ্গে ডাহা তামাশা এবং মশকরা। এটা যে একেবারে পেছন দিকের অন্ধকারের অতলে এগিয়ে যাচ্ছে সেটা জনগণ জানে। নিশ্চয় অবৈধ সরকারের প্রধানমন্ত্রী সেটা বলবেন না। আর গণতন্ত্রের কথা বলেছেন। গণতন্ত্র এখন ক্রসফয়ার তন্ত্রের বেড়াজালে আবদ্ধ।’

সোমবার গণভবনে রাজনীতিবিদদের সম্মানে ইফতার মাহফিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন এগিয়ে যাচ্ছে। আমাদের গণতন্ত্র সুদৃঢ়,মজবুত ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়েছে। অর্থনীতির ভিত্তিও যথেষ্ট শক্তিশালী।’ রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘সারা দেশের সড়ক-মহাসড়ক এখন ছোট ছোট খালে পরিণত হয়েছে। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন শুধু সাইনবোর্ড ও বিলবোর্ডে শোভা পায়। দেশের সড়ক-মহাসড়ক ও গ্রামীণ সড়ক মিলে ৮৫ হাজার কিলোমিটার সড়কের বেহাল দশা বিরাজ করছে।’ বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘সড়কের খানাখন্দ ও আর দুর্ভোগের আশঙ্কায় লাখ লাখ মানুষ ঈদে বাড়ি যেতে পারবে কিনা তারা চিন্তিত হয়ে পড়েছে। তারা বিকল্পভাবে বাড়ি যেতে ট্রেনের টিকিটের পিছনে ছুটছে, সেখানেও পাচ্ছে না কাঙ্ক্ষিত টিকিট। সরকারের বেপরোয়া লুটপাটের নীতির কারণেই সড়ক-মহাসড়কের দুদর্শা কাটছে না।’   বর্তমান সরকারকে গণবিরোধী অভিহিত করে তাদের কাছ থেকে জনকল্যাণমূলক বাজেট হবে না বলে মন্তব্য করেছেন রিজভী।

তিনি বলেন, ‘গণবিরোধী সরকারের কাছ থেকে জনকল্যাণমুখী বাজেট প্রত্যাশা কেউ করতে পারে না। এরা গণবিরোধী সরকার, জনসম্পৃক্ত ও জনকল্যাণমূলক বাজেট দেবে- এটার কোনো কারণ নেই।’ ‘তার পরেও দেখি আমরা। কালকে বাজেট উপস্থাপন হোক। বাজেটের আদি-অন্ত বিশ্লেষণ করে কী ফুটে উঠে তার ওপর ভিত্তি করে দেখে আমরা প্রতিক্রিয়া জানাব’ বলেও যোগ করেন বিএনপির এই নেতা। গত ১০ বছরে দ্রব্যমূল বাড়েনি-অর্থমন্ত্রীর এই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় রিজভী বলেন, ‘রবি ঠাকুরের ওই গানটা নিশ্চয়ই সবার মনে আছে- কেউ কখনো খুঁজে কি পায় স্বপ্নলোকের চাবি। এই স্বপ্নলোকের চাবি আছে আপনার অর্থমন্ত্রীর কাছে। তাই এই ধরনের উদ্ভট কথাবার্তা বলেন আর কি।’ পশ্চিবঙ্গের আনন্দবাজার পত্রিকায় প্রকাশিত- ‘বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী প্রতিদান চেয়েছেন’ শীর্ষক সংবাদের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ বিএনপি এই নেতা বলেন, ‘ভারতের পত্রিকায় যে প্রতিদানের কথা বলা হয়েছে তা বাংলাদেশের আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে প্রভাব খাটানোর ইঙ্গিত। এ বিষয়টি আমাদের সবাইকে চিন্তা করতে হবে।’ সংবাদ সম্মেলনে দলের ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান, শওকত মাহমুদ, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবুল খায়ের ভুঁইয়া, কেন্দ্রীয় নেতা মীর সরফত আলী সপু, বেলাল আহমেদ, সামসুজ্জামান সুরুজ, আমিনুল ইসলাম, উলাম দলের এম এ মালেক,শাহ নেসারুল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*