কক্সবাজারে আমবয়ানের মধ্যে দিয়ে ইজতেমা শুরু

জসিম সিদ্দিকী: কক্সবাজারে তাবলীগ জামাতের ২ দিনব্যাপী ইজতেমা ৬ নভেম্বর ফজরের নামাজের পর আমবয়ানের মাধ্যমে শুরু হয়েছে। সকালে বয়ান করেন মুফতি মাওলানা মোরশেদুল আলম চৌধুরী। কক্সবাজার শহরের ডায়াবেটিক পয়েন্ট সংলগ্ন ঝাউবাগানের বালিয়াড়িতে বসা ইজতেমা শেষ হবে ৭ নভেম্বর। প্রথম দিন আকাশ কুয়াশাচ্ছন্ন ও মৃদু শীত অনুভুত হলেও প্রভাব ফেলেনি তাবলীগ জামাতের আয়োজনে। ইজতেমা প্রাঙ্গণ থেকে ঘুরে জানাগেছে, সকালে আমবয়ানের মাধ্যমে ইজতেমার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এরপর কিত্তা ও হালকাওয়ারী তালিম চলে। বাদে জুহর আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। আলোচনা করবেন ঢাকা কাকরাইলের প্রধান মুরব্বি আহলে শুরা হাফেজ ক্বারী মাওলানা জুবাইর আহমদ। গতকাল দুপুরের পর থেকে জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন ইজতেমা প্রাঙ্গনে জমায়েত হয়ে যায়। ফজরের নামাজের পর থেকে বিভিন্ন এলাকা থেকে ইজতেমায় লোকজন আসতে শুরু করেছে। চট্টগ্রাম ও ঢাকা থেকে এসেছে বেশ কয়েকটি জামাত। দেশের বাইরের বেশ কয়েকজন তাবলীগের সাথী ইজতেমা প্রাঙ্গণে দেখা গেছে। কক্সবাজার তাবলীগ জামাতের মুখপত্র মাওলানা আতাউল করিম জানান, ইজতেমার মূল তাবুর বাইরে ৮ উপজেলার জন্য ১০টি খিত্তা (অবস্থানের তাবু), মুরব্বি, ওলামা মাশায়েশ ও ভিআইপিদের জন্য ১টি করে খিত্তা তৈরী করা হয়েছে। ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের জন্য অস্থায়ীভিত্তিতে আড়াইশ টয়লেট, ৫০টি ডাস্টবিন এবং প্রায় ১০০ টিওবওয়েল স্থাপন করা হয়েছে। নির্মাণ করা হয়েছে ৪টি পাহারাঘর। নিয়োজিত রাখা হয়েছে প্রায় ৭০০ স্বেচ্ছাসেবক। ২ দিনের জেলা পর্যায়ের এই ইজতেমায় ঢাকার কাকরাইলের প্রধান মুরব্বি আহলে শুরা হাফেজ ক্বারী মাওলানা জুবাইর আহমদ, কাকরাইলের মুকিম মাওলানা ওমর ফারুক, প্রকৌশলী আবদুল মুকিবসহ জেলার বিভিন্ন স্তরের আলেমরা এতে অংশ গ্রহণ করেন। কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন জানান, সফলভাবে ইজতেমা সম্পন্ন করতে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে। আর আইন শৃঙ্খলা রক্ষার্থে পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*