ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কর্মবিরতিতে অচল সদর হাসপাতাল


বিশেষ প্রতিবেদক: কক্সবাজার পৌরসভার দক্ষিণ ডিককুল গ্রামের গৃহিণী মনোয়ারা বেগম (২৫)। ৪ এপ্রিল কক্সবাজার সদর হাসপাতালের গাইনি ও প্রসূতি ওয়ার্ডে জন্ম দেন এক পুত্র সন্তানের। এরপর থেকেই তাঁর সারা শরীরে জ¦ালা-যন্ত্রণা বেড়ে গেছে। ডাক্তাররা বলেছিলেন, মনোয়ারাকে এক ব্যাগ রক্ত দিতে হবে। তাঁর স্বামী অনেক কষ্টে একজন রক্তদাতা জোগাড়ও করেছিলেন। কিন্তু নার্সরা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, চিকিৎসকদের নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত তাঁরা রক্ত গ্রহণ করবেন না।
অনাগত শিশুকে কোলে নিয়েই হাসপাতালের সিটে কাতরাচ্ছেন চিকিৎসার জন্য। কিন্তু দেখা মিলছে না চিকিৎসকের। চিকিৎসকদের কর্মবিরতি মনোয়ারাকে দিনদিন ঠেলে দিচ্ছে মৃত্যুর দিকে। যদি মনোয়ারার মৃত্যু হয় তবে এর দায় কে নেবে এদেশের চিকিৎসক সমাজ? নাকি মনোয়ারা দারিদ্রতা? এই প্রশ্নের উত্তর হয়তো মনোয়ারারও জানা নেই।
৬ এপ্রিল রাতে হাসপাতালে এই প্রতিবেদককে মনোয়ারার স্বামী নুরুল আমিন বলেন, স্ত্রীর যন্ত্রণা বেড়ে গেছে। সারাক্ষণ শুধু কান্নাকাটি করছে। টাকার অভাবে অন্য কোথাও নিয়েও যেতে পারছি না। ডাক্তাররা আবার আসবেন এই আশায় হাসপাতালের ওয়ার্ডে বসে আছি।
ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কর্মবিরতিতে প্রায় অচল হয়ে পড়েছে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল। ৪ এপ্রিল রাত থেকেই হাসপাতালে সেবা প্রদান বন্ধ রেখেছেন প্রায় সব নিয়মিত চিকিৎসক। কাজে যোগদান করলেও সেবা না দিয়েই হাসপাতাল ত্যাগ করছেন তাঁরা। ইন্টার্ন চিকিৎসকদের পাশাপাশি ইন্টার্ন নার্সরা কর্মবিরতিতে যোগ দিয়েছেন। পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য থাকা প্যাথলজিও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।
এই অবস্থায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন রোগীরা। নবজাতক (এক সপ্তাহের মধ্যে জন্ম নেয়া শিশু) থেকে শুরু করে গর্ভবতী নারীরাও কর্মবিরতির কারণে চিকিৎসা সেবা বঞ্চিত হচ্ছেন। গত ২ দিনেই অধিকাংশ রোগী হাসপাতাল ত্যাগ করেছেন। অনেকেই ভর্তি হয়েছেন বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে। অনেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে কক্সবাজার ত্যাগ করেছেন। ফলে রোগিবিহীন হয়ে পড়ছে জেলার প্রধান চিকিৎসা কেন্দ্র কক্সবাজার সদর হাসপাতাল।
উদ্ভুত সমস্যা সমাধানের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন কক্সবাজার সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। জেলা প্রশাসন থেকে শুরু করে জেলার বিভিন্ন স্তর থেকে এই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে। যে কোনভাবে হাসপাতালের স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনতেই এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। গতকাল রাতে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায় নিজ কক্ষে কর্মবিরতিরত ইন্টার্ন চিকিৎসকদের ডেকে কথা বলেছেন।
তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ বিধান পাল রাতে এই প্রতিবেদককে বলেন, উদ্ভুত সমস্যা সমাধানের জন্য চেষ্টা অব্যাহত আছে। সিভিল সার্জন ডাঃ মোহাম্মদ আবদুল মতিন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান মোল্লা, পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান এবং চট্টগ্রাম থেকে বিভাগীয় পরিচালক এসে পৌঁছছেন। আমরা আলোচনার জন্য বসবো। আশাকরি ৭ এপ্রিলের মধ্যে সমস্যার সমাধান হবে।
৬ এপ্রিল রাতে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, পুরো হাসপাতালেই বিরাজ করছে সুনসান নিরবতা। চিকিৎসক-নার্সদের আনাগোনা নেই। রোগী বহনকারী ট্রলির ঝনঝণ শব্দও নেই। মুমূর্ষু রোগীকে বাঁচাতে স্বজনেরা ছুটাছুটি করছেন না। ওয়ার্ডগুলো খোলা থাকলেও তাতে রোগীর সংখ্যা বাড়ার পরিবর্তে কমে যাচ্ছে। রোগীদের কয়েকজন স্বজনদের সহায়তায় হাসপাতাল ত্যাগ করছেন।
অন্য সময় জরুরী বিভাগে বিপুল সংখ্যক রোগী দেখা গেলে গতকালের পরিস্থিতি ছিলো ব্যতিক্রম। যদিও জরুরী বিভাগে কর্মরত দুইজন চিকিৎসক বুকে কালো ব্যাজ ধারণ করে পালন করছিলেন কর্তব্য। খুব জরুরী না হলে তাঁরাও সেবা দিচ্ছেন না।
জরুরী বিভাগে কর্মরত ডাঃ প্রসেনজিৎ বলেন, আমি রয়েছি দ্বিমুখী সমস্যায়। চিকিৎসক হওয়ায় সহকর্মীরা চাপ দিচ্ছেন। পাশাপাশি স্থানীয় হওয়ায় পরিচিতরা পেশাদারত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন।
রাতে গাইনি ও প্রসূতি ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা যায়, রিনা দে এবং ফেরদৌস আরা নামে দুইজন নার্স কর্মরত তাদের অফিস কক্ষে বসে আছেন। ৫২ শয্যার এই ওয়ার্ডে রোগী আছে মাত্র ৪ জন। অথচ মাত্র ২ দিন আগেও এই ওয়ার্ডে ৫০ জনের অধিক নারী চিকিৎসাধীন ছিলেন। চিকিৎসা সেবা না পাওয়ায় হাসপাতাল ত্যাগে বাধ্য হয়েছেন তাঁরা। যে চারজন আছেন তাঁরাও চিকিৎসা সেবা বঞ্চিত।
সাবেকুন্নাহার নামে হ্নীলার এক নারী সন্তান প্রসব পরবর্তী শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়ায় আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম)’র সহায়তায় চিকিৎসার জন্য এই ওয়ার্ডে ভর্তি হন। তবে, ডাক্তারদের কর্মবিরতির কারণে চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন না। সাবেকুন্নাহারের স্বামী আবুল কাশেম প্রতিবেদককে বলেন, ডাক্তাররা স্ত্রীকে পাঁচ ব্যাগ রক্ত দিতে বললেও ৩ ব্যাগ দিতে পেরেছি। বাকি ২ ব্যাগ রক্ত নেয়া হচ্ছে না। চিকিৎসা না পাওয়ার কারণে আমার স্ত্রীর পা ফুলে যাচ্ছে।
শিশু ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা যায়, ৪০ শয্যার ওয়ার্ডটিতে রয়েছে মাত্র ১৬ জন অসুস্থ শিশু। অথচ ৪ এপ্রিলও ওয়ার্ডটিতে রোগীদের জন্য একটি সিট দিতে হিমশিম খেতে হয়েছে নার্সদের। চিকিৎসা সেবা বন্ধ থাকায় অভিভাবকরা তাঁদের সন্তানদের অন্য স্থানে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করানোর কারণেই ওয়ার্ডটি প্রায় খালি হয়ে গেছে।
এই ওয়ার্ডে নিজ সন্তান নিয়ে আসা এক নারী জানালেন, ৫ এপ্রিল এই ওয়ার্ডে নতুন কোন রোগি ভর্তি করানো হয়নি। তিনি জানান, তাঁর শিশু সন্তানের শরীর ফুলে যাওয়ায় চিকিৎসা করাতে এনেছেন। কিন্তু ডাক্তারদের দেখা পাচ্ছেন না।
মহিলা ওয়ার্ডে গিয়ে জানা যায়, ৪ এপ্রিলও ওয়ার্ডটিতে প্রায় ১’শ রোগি চিকিৎসাধীন ছিলেন। কিন্তু বর্তমানে সেই সংখ্যা ২০ জনের অধিক হবে না। মাঝে মাঝে চিকিৎসক এলেও চিকিৎসা না করেই চলে যাচ্ছেন। চিকিৎসা সেবা বন্ধ থাকায় রোগীরা হাসপাতাল ত্যাগ করেছেন।
এই ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন হাজেরা বেগম নামে এক বৃদ্ধা জানালেন, পাঁচ দিন আগে তিনি মহিলা ওয়ার্ডে ভর্তি হন। কিন্তু গত দুইদিন ধরে কোন ধরনের চিকিৎসা পাচ্ছেন না। তিনি বলেন, অনেকেই চলে গেছেন। ৭ এপ্রিল চিকিৎসা না পেলে আমিও চলে যাবো।
হাসপাতালের ৫ম তলার ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল ওয়ার্ডে গিয়েও একই চিত্রই দেখা গেলো। এই ফ্ল্যাটে পুরুষ, মহিলা এবং শিশুদের জন্য ৩টি আলাদা ওয়ার্ড আছে। ৪ এপ্রিল ৩টি ওয়ার্ডে শতাধিক রোগী ছিলো। কিন্তু গতকালের চিত্র ছিলো সম্পূর্ণ ভিন্ন। তিন ওয়ার্ড মিলিয়ে রোগী ছিলো প্রায় ৪০ জন। তবে, এই ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীনদের জন্য অন্তত একজন ডাক্তার হলেও আছেন। যিনি চিকিৎসা সেবা প্রদানকে মনে করেছেন নৈতিক দায়িত্ব।
এই ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন শাকের নামে এক ব্যক্তি জানান, টমটম দুর্ঘটনায় পতিত হয়ে গুরুতর আহত অবস্থায় তিনি ১২ দিন ধরে এই ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। তিনি বলেন, কি একটা যেন হয়েছে। সবাই চলে গেছে।
ফ্লোরেন্স নাইটিংগেল ওয়ার্ডে কর্মরত ডাঃ কেফায়েত উল্লাহ্ বলেন, ‘নৈতিক কারণে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি।’ আমার চাপ মনে হচ্ছে না। হয়তো কেউ কেউ (ডাক্তার) দিনে এসে দায়িত্ব পালন করে গেছেন বলেও জানান তিনি।
এ রকম সংকটজনক অবস্থায় বিএমএ কক্সবাজার জেলা অবস্থান নিয়েছে ডাক্তারদের পক্ষে। গতকাল এক মানববন্ধনের মাধ্যমে সংগঠনটির নেতারা দাবি করছেন, কর্তব্যরত চিকিৎসকের উপর হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত তাঁদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। অন্যদিকে, যাদের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ উঠেছে গত কয়েকদিন ধরে তার গা ঢাকা দেয়ায় এই বিষয়ে তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*