ইয়াবা ব্যবসায়ীদের দখলে কক্সবাজার কারা হাসপাতাল

শফি উল্লাহ শফি কক্সবাজার : নানা অনিয়ম, দুর্নীতি ও অসাধু বাণিজ্যের বেড়াজালে আটকা পড়েছে কক্সবাজার কারাগার। হাজতি ও কয়েদিদের নিয়ে দৈনিক, সাপ্তাহিক ও মাসিক মোটা অঙ্কের বাণিজ্য চলছে। কারাগারের হাসপাতালটি বর্তমানে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের দখলে চলে গেছে। দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের চাহিদা পূরণ করতে না পেরে অসুস্থ হাজতি ও কয়েদি হাসপাতালের মেঝেতে পড়ে নানা ভোগান্তির শিকার হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। কারাগার সূত্র জানায়, কক্সবাজার জেলা কারাগারের ধারণ ক্ষমতা ৫৩০ জন। এর মধ্যে পহেলা এপ্রিলের তথ্য অনুযায়ী রয়েছে ৪,১২৮ জন। কারাগার হাসপাতালের ধারণ ক্ষমতা ২০ জন। এর মধ্যে বর্তমানে রয়েছে কমবেশি ১২৭ জনের মতো। তবে বর্তমানে কারাগারে যেসব কয়েদি ও হাজতি রয়েছে সেখানে অন্য আসামিদের তুলনায় ইয়াবা মামলার আসামিই বেশি।

সূত্র জানায়, নগদ অর্থ ছাড়া বর্তমানে কারাগারে সুযোগ-সুবিধা ভোগ করা দূরের কথা, জীবন বাঁচানোর পানি পর্যন্ত মিলে না বলে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। হাসপাতাল ও নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী নিয়েও চলছে হরিলুট। সম্প্রতি কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়া জামায়াত নেতা ও জনপ্রতিনিধি ওয়াসিম জানান, যতদিন কারাগারে ছিলাম ততদিন লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ। হাসপাতালে থাকার জন্য নগদ টাকার পাশাপাশি অনেক আসবাবপত্র দিতে হয়েছে। হাসপাতালের দুর্নীতির অভিযোগের শেষ নেই। জেলার সীমান্ত উপজেলা ও ইয়াবা শহর নামে পরিচিত টেকনাফের বড় বড় ইয়াবা গডফাদাররা কিনে নিয়েছে হাসপাতালের সিট। ইয়াবা মামলার আসামিরা দখলে নিয়েছে হাসপাতাল।

হাজতি ও কয়েদিদের দেখার ঘর, নিত্যদিনের খাবার, সাজাপ্রাপ্তদের কাজকর্ম বণ্টন, বিভিন্ন ওয়ার্ডের সিট ব্যবসা, কারাগারের ভেতরে পিসি নামের দোকান, গোসল ও খাবার পানির সরবরাহ ব্যবসাসহ আরও একাধিক সেক্টর নিয়ে প্রতিদিন ও প্রতি মাসে রমরমা নানা বাণিজ্য করে যাচ্ছে। অভিযোগ উঠেছে, প্রতি মাসে কক্সবাজার কারাগার থেকে অবৈধ পথে আয় হয় ২০ থেকে ৩০ লাখ টাকা। কোনো ইয়াবা ব্যবসায়ীর জামিন হলেই আর কোনো কথাই নেই। কারাগার থেকে বের হলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পুনরায় ধরে নিয়ে যাওয়ার হুমকি-ধমকি দিয়ে নিরাপদে বের করে দেয়ার প্রতিশ্রুতিতেই আদায় হয় লাখ লাখ নগদ অর্থ। কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়া শহরের আমিন জানায়, কারাগারে না ঢুকলে কখনও দুর্নীতির বর্ণনা দেয়া যাবে না। কারাগার একটি আলাদা জগৎ। ওই জগতে সব মিলে। তবে বিনিময়ে শুধু অর্থ। টাকা দিলে ঘরোয়া পরিবেশে বসে মোবাইলের মাধ্যমে পুরো দেশের সঙ্গে যোগাযোগ করাও সম্ভব। একইভাবে জেল ফেরত আল আমিন বলেন, কারাগার সাধারণ মানুষের জন্য। তাদের সবকিছু নীরবে সহ্য করতে হয়। কারণ রোগী থাকে হাসপাতালের মেঝেতে বা ওয়ার্ডে। ইয়াবা ব্যবসায়ীরা থাকে হাসপাতালের সিটে। মুমূর্ষু কোনো রোগী যদি হাসপাতালে থাকে তাহলে তাকে প্রতি মাসে ফার্মাসিস্টকে নগদে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা করে পরিশোধ করতে হয়। তা হলে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রতি মাসে কত টাকা নেয় এটা বুঝতে বাকি থাকে না।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়, কারাগারে থাকা কয়েদি ও হাজতিদের নিত্যদিনের খাবার নিয়ে জেলা কারাগারের একটি অসাধু মহল হরিলুট চালিয়ে যাচ্ছে। সপ্তাহে পর্যায়ক্রমে মাছ, মাংস, সবজি ও ডাল দেয়ার বিধান থাকলেও তা মানছে না কারা কর্তৃপক্ষ। সর্বদা এক নিয়মে সবজি ও পাতলা ডাল দিয়ে খাবারের বিশাল অঙ্কের অর্থ ভাগবাটোয়ারা করছে তারা। কখনও অডিটের ভয়ে মাংস কিংবা মাছ দিলেও তা নামমাত্রই বলা যায়। একইভাবে কারাগারের ভেতরে কয়েদি ও হাজতিদের সুবিধার্থে খোলা পিসি (দোকান) নিয়ে চলছে নানা বাণিজ্য। ওই দোকানের পণ্য বাইরের তুলনায় প্রতিটির দাম ৫ থেকে ১০ টাকা বেশি। এই দুর্নীতি ও বাণিজ্যের মাধ্যমে মাসিক ও দৈনিক আদায়কৃত মোটা অর্থ কর্তৃপক্ষের পকেটে ঢোকে বলে নিশ্চিত করেছেন একাধিক কারারক্ষী। তাদের অভিযোগ, অনিয়ম-দুর্নীতিতে ঊর্ধ্বতন মহলের সরাসরি সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। এসব অপকর্মের বাহক হিসেবে কাজ করছে একেক সেক্টরে একেকজন।

কারাগারের জেলার রীতেশ চাকমা বলেন, হাসপাতালে নয়ছয় হয় না এটা বলব না। এসবে আমি কোনোভাবেই জড়িত নই। ডাক্তার ও ফার্মাসিস্টের তত্ত্বাবধায়নে চলে হাসপাতাল। জানা মতে, কোনো ইয়াবা ব্যবসায়ী হাসপাতালে নেই। ইয়াবা ব্যবসায়ীরা অসুস্থ না হওয়ার কারণ জানতে চাইলে আমতা আমতা করে ফোন লাইন বিচ্ছিন্ন করে দেন জেলার রীতেশ চাকমা।

ফার্মাসিস্ট ফখরুল আজিম চৌধুরী বলেন, ধারণ ক্ষমতার চেয়ে অতিরিক্ত হাজতি ও কয়েদি আছে সত্য। তবে টাকার বিনিময়ে নয়। অসুস্থতার কারণে কয়েকজন ইয়াবা মামলার আসামিও হাসপাতালে রয়েছে। মাসিক ও দৈনিক মোটা অঙ্কের অর্থের বিনিময়ের বিষয়টি সত্য নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*