কক্সবাজার সদর হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবা ভেঙ্গে পড়েছে


নিজস্ব প্রতিবেদক: পর্যটন রাজধানী কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবা ভেঙ্গে পড়েছে। চারদিন আগে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে মৃত্যুবরণকারী রোগীর সঙ্গীদের সাথে ইন্টার্নি ডাক্তারদের মধ্যকার অপ্রীতিকর ঘটনাকে কেন্দ্র করে চিকিৎসকরা আন্দোলনে নামায় এ অচল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। বিগত চারদিন ধরে ২৫০ শয্যার জেলা সদর হাসপাতালের সকল ধরনের চিকিৎসা সেবা বন্ধ ছিলো।
ফলে তিনদিন ধরে শহরের প্রাইভেট হাসপাতাল গুলোতে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীদের চাপ অত্যাধিক বৃদ্ধি পেয়েছে। কক্সবাজার শহরের ১০০ শয্যার ফুয়াদ আল-খতীব হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা মুমূর্ষ রোগীরা গিজগিজ করছে। কোথাও জায়গা নেই।
হাসপাতালের এডমিন অফিসার সেলিম উল্লাহ জানান, বিগত দুইদিন ধরে হাসপাতালে রোগীদের চাপ বেশী। কোথাও তিল ধরনের জায়গা নেই। জরুরি বিভাগে রোগীদের চাপ অত্যাধিক। তবুও সামর্থ্য অনুযায়ী ফুয়াদ আল-খতীব হাসপাতালের চিকিৎসকরা ক্রাইসিস পিরিয়ডে চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে।
৭ এপ্রিল রাতে শহরের জেনারেল হাসপাতাল, ডিজিটাল হাসপাতাল, সেন্ট্রাল হাসপাতাল ও সী-সাইড হাসপাতালে গিয়ে রোগীদের অত্যাধিক চাপ দেখা যায়। এসব হাসপাতালে কোথাও কোনো সিট খালি নেই।
জেনারেল হাসপাতালের সুপারভাইজার সিরাজুল ইসলাম জানান, হাসপাতালের ৪০টি আবাসিক সিটই এখন রোগীতে পরিপূর্ণ।
উখিয়া রাজা পালং ইউনিয়নের হাজী গ্রামের ৯০ বছর বয়সী ছমি উদ্দিন গত মঙ্গলবারে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছেন। ২দিন সদর হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা দিয়েছে। ডাক্তাররা আন্দোলনের নামায় ছমি উদ্দিনের স্বজনরা তাকে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যায়। ৭ এপ্রিল রাতে ছমি উদ্দিনের অবস্থা খারাপ হলে পুত্র বধু হালিমা বেগম শশুরকে নিয়ে আসেন ফুয়াদ আল-খতীব হাসপাতালে। কিন্তু তাকে রাখার মত কোনো সিট নেই ১০০ শয্যার এই হাসপাতালে।
চকরিয়া থেকে আসা হতদরিদ্র রোগী আবুল কাশেম জানান, অল্প টাকা নিয়ে চিকিৎসা নিতে সদর হাসপাতালে এসেছিলাম। কিন্তু ডাক্তাররা নাকি রোগী দেখবেন না। এজন্যই বাঁচার তাগিদে কক্সবাজারে কম পয়সার চিকিৎসার হাসপাতাল খুঁজছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*