রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দূর্যোগ পরবর্তী করণীয় বিশেষ মহড়া


জসিম সিদ্দিকী:বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর রামু ১০ পদাতিক ডিভিশিনের ব্যবস্থাপনায় আসন্ন বর্ষা মৌসুমকে সামনে রেখে মিয়ানমারে বলপ্রয়োগে বাস্তুুচত রোহিঙ্গা নাগরিকদের যে কোনো দূর্যোগ মোকাবেলার লক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে বিশেষ মহড়া। ২৩ মে দুপুরে কক্সবাজারের উখিয়ার মধুর ছড়া রোহিঙ্গ ক্যাম্পে এ মহড়া অনুষ্ঠিত হয়। মহড়া কার্যক্রম পরিদর্শন করেছেন দূর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মোহাম্মদ এনামুর রহমান। এ সময় তিনি বলেন, রোহিঙ্গারা যে পরিমান সহযোগীতা পাচ্ছে সে পরিমাণ সহযোগীতা পাবে স্থানীয়রা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্থানীয়দের বিষয়ে অবগত আছেন। তিনি আরো বলেন, বিদেশী দাতা সংস্থা গুলোর শর্তের কারনে রোহিঙ্গাদের ভাসনচরে নেয়ার প্রক্রিয়া বিলম্ব হচ্ছে। এসব সংস্থা নিরাপত্তাসহ ৫২টি শর্ত দিয়েছে। তাদের দেয়া শর্ত পূরনের চেষ্টা করছে সরকার। যা পুরণ করে শীঘ্রই কার্যক্রম শুরু করবে। কুতুপালং রোহিঙ্গা শিবিরের ১৭ নং ক্যাম্পে দূর্যোগ মোকাবেলার বিশেষ মহড়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় সাথে উপস্থিত ছিলেন, স্বশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার লে. জেনারেল মাহফুজুর রহমান, ১০ পদা. ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল মো. মাঈনুল্লাহ চৌধুরী, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো. আছাদ উল্লাহ, মিনহাজুল আলম, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল শরীফ আহসান, ৬৫ পদা. বিগ্রেডিয়ার জেনারেল ওমর সাদিক, ৯৭ পদা. বিগ্রেডিয়ার জেনারেল ফয়েজ, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মুসফিক, এয়ার কমান্ডো হাসান মাহমুদ খান, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল সাজিদুর রহমান, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিঃ সচিব মো. শাহ আলম, ত্রাণ ও পুর্ণবাসন কমিশনার আবুল কালাম, উখিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাহিয়ান আদনানসহ সংশ্লিষ্ট ক্যাম্প ইনচার্জগণ। প্রতিমন্ত্রী দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প ত্যাগ করেন। উক্ত মহড়ায় ৬ শতাধিক সেনা সদস্য ৩ শতাধিক বিভিন্ন সংস্থার কর্মী, একটি হেলিক্যাপ্টার, ফায়ার সার্ভিসের ২টি ইউনিট অংশগ্রহণ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*