‘গণমাধ্যম মালিকদের খেলাপি ঋণের হিসাব নেওয়া হবে’

নিউজ ডেস্ক: ১৪ জুন বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল অসুস্থ থাকায় তার পরিবর্তে এ সংবাদ সম্মেলন করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যারা পত্রিকায় কাজ করেন, আপনারা খুঁজে বের করুন, পত্রিকার মালিকরা কোন-কোন ব্যাংক থেকে কত টাকা ঋণ নিয়েছে। আর তা পরিশোধ করেছে কি না? আপনারা দয়া করে সমস্ত ব্যাংক থেকে এ তথ্যগুলো বের করুন। যত মিডিয়া এখানে আছে, যত পত্রিকা আছে, এগুলোর মালিকেরা কোন ব্যাংক থেকে কত টাকা ঋণ নিয়েছে। তারা কত টাকা সুদ দেয়নি। ফলে খেলাপি হয়েছে। আমি আপনাদের অনুরোধ করেছি। এটার হিসাব বের করলে আমাকে আর প্রশ্ন করা লাগবে না। তারা টাকা দিলেই আর ঋণ খেলাপি থাকবে না।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের সুদের হার অনেক বেশি। আর এটা চক্রহারে বৃদ্ধি হয়। তখন চক্র হারে সুদ দেখিয়ে খেলাপি দেখানো হয়। ফলে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দেখানো হয়, অনেক বড়। প্রকৃত ঋণ যদি দেখা হয় তবে দেখা যাবে ঋণ বড় নয়। এই দুর্বলতাগুলো আমরা চিহ্নিত করছি। এগুলো সংশোধন করব, তার জন্য পদক্ষেপ নিয়েছি।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘ঋণ খেলাপিদের আরেকবার সুযোগ দেব। তারা যাতে সঠিকভাবে ঋণ পরিশোধ করে। আর পত্রিকার মালিকদের খেলাপি ঋণের হিসাব নেওয়া হবে। তারা যেন তাদের ঋণ পরিশোধ করে পত্রিকায় লেখেন, সেটার অনুরোধ থাকল।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা সবসময় চেষ্টা করেছি, যাতে সুদটা সিঙ্গেল ডিজিটে থাকে। এ জন্য ব্যাংকগুলোকে সুবিধাও দিয়েছি। কিন্তু অনেক বেসরকারি ব্যাংক সেটা মানেনি। এবার বাজেটে নির্দেশনা দেওয়া আছে, এ বিষয়ে কঠোর অবস্থানে যাওয়া হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ব্যাংকগুলোকে নিয়ম মেনে চলতে হবে। ঋণের সুদ যেন ডাবল ডিজিটে না হয়। তাহলে আমাদের বিনিয়োগ বাড়বে। বেশি আর চক্রবৃদ্ধি আকারে সুদ হতে থাকলে মানুষ আর ব্যবসা করতে পারবে না। এদিকটাতে আমরা বিশেষভাবে ব্যবস্থা নিচ্ছি। অনেক আইন আমরা সংশোধন করব, সে ব্যবস্থা নিচ্ছি।’
এছাড়াও সংবাদ সম্মেলনের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমানে খেলাপি ঋণের সংখ্যা এক লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। এটা ব্যাংক সেক্টরের জন্য সুখবর নয়। যারা ইচ্ছাকৃতভাবে ঋণ পরিশোধ করেন না তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেব।’

তিনি আরও বলেন, ‘ব্যাংক, আর্থিক খাত ও শেয়ারবাজারে সংস্কার করা হবে। সক্রিয় বন্ড মার্কেট চালু করা হবে। ব্যাংক কোম্পানি আইনেও পরিবর্তন আনা হবে।’

নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে ব্যবসায়ীরা খুশি মনে সহায়তা করবে বলে আশা প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে নতুন ভ্যাট আইন করা হয়েছে। তা আগামী ১জুলাই থেকে কার্যকর হবে।’

২০১৯-২০ অর্থবছরে প্রস্তাবিত বাজেট জনকল্যাণ মূলক উল্লেখ শেখ হাসিনা বলেন, ‘নতুন অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। এর মধ্যে রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে তিন লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা। এবারের বাজেটে ঘাটতি ধরা হয়েছে এক লাখ ৪৫ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা।’

তিনি বলেন, ‘এ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব প্রাপ্তি ও বৈদেশিক অনুদান বাবদ আয় ধরা হয়েছে তিন লাখ ৮১ হাজার ৯৭৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) থেকে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে তিন লাখ ২৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। এনবিআর বহির্ভূত কর আদায়ের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। কর বাদে রাজস্ব আয় ধরা হয়েছে ৩৭ হাজার ৭১০ কোটি টাকা। বৈদেশিক অনুদান ধরা হয়েছে ৪ হাজার ১৬৮ কোটি টাকা।’
বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন-পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক, সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. মোশারফ হোসেন ভূঁইয়া ও বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*