রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত

নিজস্ব প্রতিবেদক: রোহিঙ্গা শিবিরে আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থাগুলোর কার্যক্রম পরিদর্শন করেছেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার। তিন দিনের সফরে আমেরিকান রেড ক্রস, আইএফআরসি, আইওএম, ইউএনডিপি, ইউএনএইচসিআর, ডব্লিউএফপিসহ বিভিন্ন সংস্থার কার্যক্রম দেখেন। এছাড়া স্থানীয় কমিউনিটি, সরকারি কর্মকর্তা এবং সেখানে জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা ও এনজিও কর্মীদের সঙ্গেও সাক্ষাত করেন। মঙ্গলবার ঢাকায় মার্কিন দূতাবাস থেকে এ তথ্য জানিয়ে বলা হয়, কক্সবাজার অঞ্চলটিতে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের সহায়তা কার্যক্রম এবং রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলেন মিলার। রোহিঙ্গাদের জন্য জাতিসংঘের ২০১৯ সালের জয়েন্ট রেসপন্স প্ল্যানে দেশটি বাড়তি ৪ কোটি ৫৫ লাখ ডলার দেওয়ার কথা ঘোষণা দিয়েছে। বাড়তি অর্থের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের সহায়তায় গঠিত নিয়মিত তহবিলটিতে যুক্তরাষ্ট্রের মোট সহায়তা ১০ কোটি ৫৫ লাখ ডলারে পৌঁছেছে। দেশটির নাগরিকদের দেওয়া করের অর্থ সঠিকভাবে ব্যবহৃত হওয়া নিশ্চিত করতেই কক্সবাজার সফরে যান মিলার। তিনি আসন্ন ঝড় ও বর্ষা মৌসুমের পরিস্থিতি মোকাবেলায় স্থানীয় এলাকাবাসীর সঙ্গে সংস্থাগুলো যেসব প্রশংসনীয় উদ্যোগ নিয়েছে তা নিয়ে কথা বলেন। যুক্তরাষ্ট্র এ বিষয়ে আরো কী করতে জানতে চান রাষ্ট্রদূত। রাষ্ট্রদূত মধ্য এপ্রিল নাগাদ ভাসান চরে এক লাখের মতো রোহিঙ্গাকে স্থানান্তর শুরু করার পরিকল্পনা নিয়ে বিস্তারিত জানতে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার এবং কক্সবাজারের জেলা প্রশাসকসহ স্থানীয় সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাতে রোহিঙ্গাদের ভাসান চরে যাওয়ার ব্যাপারটি সবকিছু জানাশোনার ভিত্তিতে সম্পূর্ণ স্বেচ্ছামূলক হবে এমন আশ্বাসকে তিনি স্বাগত জানান। রাষ্ট্রদূতকে জানানো হয়, ভাসানচরে যাওয়া লোকেরা কক্সবাজারের বিভিন্ন স্থানে থাকা রোহিঙ্গাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করার জন্য চর থেকে বের হতে পারবে। দেশটি ২০১৭ সালের আগস্টে মিয়ানমারের রাখাইনে সহিংসতা শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় ৫০ কোটি ডলার সহায়তা দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*