৬০ হাজার একর জমিতে চিংড়ি চাষ শুরু

জসিম সিদ্দিকী: চলতি মাস থেকেই কক্সবাজারের উপকূলীয় এলাকায় ৬০ হাজার একর জমিতে শুরু হচ্ছে চিংড়ি চাষ। আর এই লক্ষকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে ঘের সংস্কার ও পোনা মজুদের কাজ।
কক্সবাজার জেলা মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে জানাগেছে জেলায় অন্তত ৬০ হাজার হেক্টর জমিতে বাগদা চিংড়ি চাষ হবে চলতি মৌসুমে। সবকটি প্রজেক্টে মৎস্য অধিদপ্তর নজর রাখে এমন দাবী সংশ্লিষ্টদের। লবণ মৌসুম শেষ হলে শুরু হয় চিংড়ি চাষ।
কুতুবদিয়ার চিংড়ি চাষী মিজানুর রহমান জানিয়েছে, ইতোমধ্যে লবণ চাষ শেষ হয়েছে। বৃষ্টি না হলে আরো কিছু দিন চলবে লবণ মাঠ।
বদরখালীর চিংড়ি ব্যবসায়ি বেলাল উদ্দিন জানিয়েছে, বর্তমানে বাগদা চিংড়ির মূল্য বেশী থাকায় সবাই প্রজেক্টের দিকে নজর দিয়েছে। তাই দ্রুত গতিতে চলছে প্রজেক্টের কাজ। অনেকেই আরো ২ মাস আগে নার্সারী করে পোনা মজুদ করেছে।
জানাগেছে, গত বর্ষা মৌসুমে চিংড়ির আশানুরূপ উৎপাদনের ফলে লাভের মুখ দেখায় চলতি মৌসুমে দ্বিগুণ উৎসাহ কাজে নেমেছে চিংড়ি চাষিরা।
জেলার দ্বীপ উপজেলা মহেশখালী ও কুতুবদিয়া, পেকুয়া, চকরিয়া, উখিয়া, টেকনাফ ও সদর উপজেলার বিস্তীর্ণ উপকূলীয় এলাকায় শুরু হয়েছে চিংড়ি চাষ।
মহেশখালী ধলঘাট এলাকার সাপমারার ডেইলের ব্যবসায়ি সাঈদ আলম জানান, বর্ষা মৌসুমে ধলঘাটার মানুষের আয়ের একমাত্র পথ চিংড়ি চাষ। ইতোমধ্যে চাষীরা বিপুল পরিমান টাকা প্রজেক্টে বিনিয়োগ করেছে। তাই জমির মালিকরা যাতে ঠিকমত টাকা পায় সে জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন।
কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরুজুল হক টুটুল জানান, চিংড়ি প্রজেক্টের ব্যাপারে পুলিশ আরো সজাগ থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*